তারেক রহমানের পাকিস্তান জিন্দাবাদ শীর্ষক বক্তব্যের ভিডিওটি এডিটেড

সম্প্রতি, “দেশবাসী হুশিয়ার থাকুন তারেক জিয়া লাশ চায়। তারেক জিয়ার মুখে শুনেন একটি লাশের পরিবর্তে দশটি লাশ ফেল এবং এই শপথ নিয়ে আপনারা ঘরে ফিরেন। পাকিস্তান জিন্দাবাদ” শীর্ষক শিরোনামসহ ভিন্ন ভিন্ন শিরোনামে তারেক রহমানের বক্তব্যের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউবে ছড়িয়ে পড়েছে।

১৭ সেকেন্ড দৈর্ঘের সেই ভিডিওটিতে তারেক রহমানকে বলতে শোনা যাচ্ছে,

“একটি লাশের পরিবর্তে দশটি লাশ ফেলো। আপনাদের সকলকে এই শপথ নিয়ে ঘরে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে আজকের বক্তব্য শেষ করছি। ইনশাআল্লাহ আবার আপনাদের সাথে দেখা হবে। আল্লাহ হাফেজ, পাকিস্তান জিন্দাবাদ, বিএনপি জিন্দাবাদ।”

তারেক

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে, এখানেএখানে। আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে, এখানেএখানে।

ইউটিউবে প্রচারিত একটি ভিডিও দেখুন এখানে

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, প্রচারিত ভিডিওতে তারেক রহমান বক্তব্য শেষ করার পূর্বে ‘পাকিস্তান জিন্দাবাদ’ স্লোগান বলেন নি এবং “একটি লাশের পরিবর্তে দশটি লাশ ফেলার শপথ নিয়ে ঘরে ফিরেন” শীর্ষক কোন বক্তব্য তিনি দেননি বরং ভিডিওটির ভয়েসওভার এডিটের মাধ্যমে তারেক রহমানের বক্তব্যকে বিকৃত করে বিষয়টি প্রচার করা হয়েছে।

কি-ওয়ার্ড সার্চ পদ্ধতি ব্যবহারের মাধ্যমে, Bangladesh Nationalist Party-BNP এর অফিশিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে ২০১৭ সালের ২৮ মার্চ ‘মহান স্বাধীনতা দিবসের আলোচনা সভায় দেশনায়ক তারেক রহমানের বক্তব্য’ শিরোনামে প্রকাশিত মূল ভিডিওটি খুঁজে পাওয়া যায়।

প্রচারিত ভিডিওটি ২০১৭ সালের ২৭ মার্চ লন্ডনের দ্যা রয়েল রিজেন্সি মিলনায়তনে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে লন্ডন বিএনপির আয়োজিত আলোচনার এই ভিডিও থেকে সংগ্রহ করে ভয়েসওভার যুক্ত করে প্রচার করা হচ্ছে।

তারেক রহমান কি পাকিস্তান জিন্দাবাদ বলেছেন?

ভাইরাল ভিডিওটিতে দেখা যায় তারেক রহমান ‘ইনশাআল্লাহ আবার আপনাদের সাথে দেখা হবে। আল্লাহ হাফেজ, পাকিস্তান জিন্দাবাদ, বিএনপি জিন্দাবাদ‘ বলার মাধ্যমে তার বক্তব্য শেষ করছেন।

তবে, প্রকৃতপক্ষে তিনি এই জায়গায় পাকিস্তান জিন্দাবাদ বলেন নি। বিএনপির ইউটিউব চ্যানেলে ২০১৭ সালে প্রকাশিত সেই মূল ভিডিওর ৪২ মিনিট ১৬ সেকেন্ড সময়ে দেখা যায়, তিনি ‘ইনশাআল্লাহ আবার আপনাদের সাথে দেখা হবে। আল্লাহ হাফেজ, বাংলাদেশ জিন্দাবাদ, বিএনপি জিন্দাবাদ’ বলার মাধ্যমে বক্তব্য শেষ করেছেন।

অর্থাৎ, তারেক রহমানের প্রকৃত বক্তব্য থেকে বাংলাদেশ জিন্দাবাদ বলা অংশটুকু কেটে দিয়ে পাকিস্তান জিন্দাবাদ ভয়েসওভার যুক্ত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, উক্ত বক্তব্যে ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী পোস্টারে পাকিস্তান জিন্দাবাদ উল্লেখ থাকার বিষয়টি তিনি ইউকে বিএনপি প্রকাশিত একটি বই থেকে পড়তে গিয়ে উদ্ধ্তি দেয়ার সময় পাকিস্তান জিন্দাবাদ পড়েছিলেন। মূলত এই পাকিস্তান জিন্দাবাদ বলার অংশটুকু কাট করে বক্তব্যের শেষে বাংলাদেশ জিন্দাবাদ বলার জায়গায় বসিয়ে ভিডিওটি বিকৃত করা হয়েছে।

Also Read: বেগম খালেদা জিয়ার পুরোনো বক্তব্যকে বিকৃত করে বিভ্রান্তিকরভাবে প্রচার

তারেক রহমান কি ‘একটি লাশের পরিবর্তে দশটি লাশ ফেলো এবং এই শপথ নিয়ে ঘরে ফিরেন’ বলেছিলেন?

উক্ত বক্তব্যে তিনি একটি লাশের পরিবর্তে দশটি লাশ ফেলার শপথ নিয়ে ঘরে ফিরতে বলেন নি। মূলত তিনি তার বক্তব্যের দুইটি ভিন্ন জায়গায় এই দুটি বাক্য বলেছিলেন। প্রথম জায়গায় তিনি বলেন, “…যে ক্ষমতায় থেকে সাংবাদিক সাগর-রুনির হত্যাকে বলতে পারে- সবার বেডরুম পাহারা দেয়া সম্ভব না। যে ক্ষমতায় থেকে বলতে পারে- একটি লাশের বদলে ১০টি লাশ ফেলো। যার মন্ত্রী বলতে পারে- এসব রাজনৈতিক ব্যাপার স্যাপার আলাপ করা যায় না।…’

অর্থাৎ, এখানে তারেক রহমান ‘একটি লাশের বদলে ১০টি লাশ ফেলো’ কথাটি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য দাবিতে প্রসঙ্গক্রমে উল্লেখ করেছেন।

মূল ভিডিওটির ৩৭ মিনিট থেকে ৩৭ মিনিট ৪৩ সেকেন্ড পর্যন্ত শুনলে বিষয়টি স্পষ্ট বোঝা যায়।

‘আপনাদের সকলকে এই শপথ নিয়ে ঘরে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে আজকের বক্তব্য শেষ করছি’ এই অংশটুকু তিনি বক্তব্য শেষে উল্লেখ করেছিলেন যা মূল ভিডিওর ৪১ মিনিট ৪৮ সেকেন্ড থেকে ৪২ মিনিট ১৭ সেকেন্ড পর্যন্ত শুনলে নিশ্চিত হওয়া যায়।

মূলত, ২০১৭ সালের ২৭ মার্চ স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে লন্ডনে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় তারেক রহমানের দেওয়া দীর্ঘ বক্তব্যের ভিন্ন ভিন্ন সময়ের খণ্ড খণ্ড অংশকে ডিজিটাল প্রযুক্তির সহায়তায় সংযুক্ত করে বিকৃত আকারে বিভ্রান্তিকর দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে প্রচার করা হচ্ছে।

সুতরাং, ‘তারেক রহমান পাকিস্তান জিন্দাবাদ বলেছেন এবং একটি লাশের পরিবর্তে দশটি লাশ ফেলো বলেছেন’ শীর্ষক দাবিতে প্রচারিত বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img