রবিবার, জুলাই 21, 2024
spot_img

ভিডিওটি ছেলের মৃত্যুদণ্ডের আদেশে আদালতে মায়ের আকুতি শীর্ষক কোন ঘটনার নয়

সম্প্রতি “ছেলের মৃত্যুদন্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত তাই একটি বার ছেলেকে বুকে জড়িয়ে নেওয়ার আকুতি দুঃখিনী মায়ের। রাব্বির হাম হুমা কামা রাব্বায়ানি” শীর্ষক শিরোনামে একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানেএখানে এবং এখানে। আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানেএখানে এবং এখানে

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, আলোচিত ভিডিওটিতে বিচারক কর্তৃক ঐ মিশরীয় নারীর সন্তানকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়নি বরং অভিযুক্ত ছেলের সাথে আদালতের কক্ষে দেখা করার অনুমতি পেয়ে মায়ের তার ছেলের কাছে ছুটে যাওয়ার একটি ঘটনার ৬ বছর পুরোনো ভিডিও এটি।

ভিডিওটির কিছু স্থিরচিত্র রিভার্স সার্চের মাধ্যমে, মিশরীয় সংবাদ মাধ্যম “ElWatan News” এর ভেরিফাইড ইউটিউব চ্যানেলে ২০১৬ সালের ১১ আগস্টে “قاضي أحداث العدوة يسمح لوالدة متهم بلقاء ابنها.. ويخلي سبيله (অনুবাদ: আল-আদওয়া কিশোর বিচারক অভিযুক্তের মাকে তার ছেলের সাথে দেখা করার অনুমতি দেয় এবং তাকে মুক্তি দেয়)” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত মূল ভিডিওটি খুঁজে পাওয়া যায়।

আদালত
Screenshot from YouTube

মূলত, মিশরের যুবক আহমেদ আবদেল ফাত্ত, ২০১৩ সালে মিনিয়া গভর্নরেটের আল-আদওয়া ঘটনার মামলায় অভিযুক্ত ছিলেন। যা ২০১৩ সালের ১৪ আগস্ট রাবার অবস্থান ছত্রভঙ্গ হওয়ার পর ঘটেছিল। এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে আহমেদকে আদালত কর্তৃক তিন বছরের সাজা দেওয়া হয়। ২০১৬ সালের ১১ আগস্টে মিনিয়া ফৌজদারি আদালতে বিচারকার্যের সময় আহমেদ আবদেল ফাত্তাহর মা’কে অভিযুক্ত ছেলের সাথে দেখা করার অনুমতি দেওয়ার পরেই তিনি তার ছেলের কাছে ছুটে যান এবং তাকে জড়িয়ে ধরেন। তারপর বিচারক তাকে বসতে বলেন এবং কিছুক্ষণ পর আহমেদকে মুক্তি দেওয়া হয়। এই সময়ে ধারণকৃত একটি ভিডিওই সাম্প্রতিক সময়ে কোনরূপ তথ্যসূত্র ছাড়া ছেলের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ হওয়ায় ছেলেকে জড়িয়ে ধরে মায়ের আকুতি দাবিতে সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে।

Also Read: ভিডিওটির নবজাতকের মা সন্তান প্রসবের সময়ে মারা যায় নি

উল্লেখ্য, উক্ত ভিডিওটি পূর্বেও ভিন্ন ভিন্ন দাবিতে সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করা হয়েছিলো। যার প্রেক্ষিতে ফ্যাক্টচেকিং প্রতিষ্ঠান ‘Misbar‘ ও ‘nabd‘ ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিলো।

সুতরাং, ছেলের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেয়ায় আদালত কক্ষে ছেলেকে জড়িয়ে ধরে মায়ের আকুতি দাবি করে সামাজিক মাধ্যমে প্রচারিত ভিডিওটি সম্পূর্ণ বিভ্রান্তিকর।

তথ্যসূত্র

  1. ElWatan News: https://www.youtube.com/watch?v=4VJP8ZtdL40
RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img