বুধবার, ফেব্রুয়ারি 28, 2024
spot_img

ছবিটি নরওয়েতে কোরআনে আগুন দেওয়া ব্যক্তির নয়

সম্প্রতি, ‘নরওয়েতে কোরআনে আগুন দেওয়া ব্যক্তির দুই হাতে পঁচন ধরেছে’ দাবিতে দুটি ছবি সম্বলিত পোস্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে।

কোরআনে আগুন

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু সাম্প্রতিক পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ) এবং এখানে (আর্কাইভ)।

একই দাবিতে ২০২১ সালে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ) এবং এখানে (আর্কাইভ)।

একই দাবিতে ২০১৯ সালে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ) এবং এখানে (আর্কাইভ)।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, হাসপাতালের বিছানায় হাতে পচন ধরা ব্যক্তিটি কোরআন পোড়ানো সেই ব্যক্তি নন বরং তিনি আমেরিকার নাগরিক Paul Gaylord এবং ২০১২ সালে বিড়ালের কামড়ে তার দুই হাতের আঙ্গুল এক বিশেষ ধরণের রোগে আক্রান্ত হয়।

অনুসন্ধানের শুরুতে রিভার্স ইমেজ সার্চের মাধ্যমে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম The Guardian এর ওয়েবসাইটে ২০১২ সালে ‘Oregon man recovering from rare case of the plague’ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে নরওয়েতে কোরআনে আগুন দেয়া যুবকের হাতে পচন ধরেছে দাবিতে প্রচারিত ছবিটির অনুরূপ একটি ছবি খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot: The Guardian

প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, হাসপাতালের বিছানায় থাকা এই ব্যক্তি একজন আমেরিকান নাগরিক। Paul Gaylord নামের এই ব্যক্তির বিড়ালের কামড়ে দুই হাতের আঙুল এক বিশেষ ধরনের রোগে আক্রান্ত হয়েছিল।

পরবর্তীতে রিভার্স ইমেজ সার্চের মাধ্যমে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম Daily Mail এর ওয়েবসাইটে ২০১২ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর ‘I’m very happy to be alive’: Plague victim has fingers and toes amputated in painful 2.5 hour surgery’ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনেও আলোচিত ছবিটি খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot: Daily Mail

এই প্রতিবেদন থেকেও আলোচিত ছবিটির বিষয়ে একই তথ্য জানা যায়।

অর্থাৎ, উপরোক্ত বিষয়গুলো পর্যালোচনা করলে এটা স্পষ্ট যে, এই ব্যক্তি নরওয়েতে কোরআনে আগুন দেওয়া ব্যক্তি নন এবং তার হাতের রোগটি বিড়ালে কামড়ের ফলে হয়েছে।

পাশাপাশি, নরওয়েতে কোরআনে আগুন দেওয়া ব্যক্তির হাতে পচন ধরার বিষয়ে গণমাধ্যম কিংবা অন্য কোনো সূত্রে কোনো তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি। 

মূলত, ২০১২ সালে আমেরিকার নাগরিক Paul Gaylord বিড়ালের কামড়ে দুই হাতের আঙ্গুল এক বিশেষ ধরণের রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়। পরবর্তীতে ইন্টারনেট থেকে তার হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে থাকার একটি ছবি সংগ্রহ করে নরওয়েতে কোরআনে আগুন দেয়া যুবকের হাতে পচন ধরার ছবি দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের নভেম্বর মাসে নরওয়েতে SIAN (Stopp Islamiseringen av Norge) নামক মুসলিম বিদ্বেষী গ্রুপের বিক্ষোভ চলাকালীন সময়ে গ্রুপটির নেতা Lars Thorsen কোরআনে আগুন ধরিয়ে দেন।

উল্লেখ্য, পূর্বেও বিভিন্ন ধর্মীয় গুজব প্রচার নিয়ে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রিউমর স্ক্যানার। এমন কয়েকটি প্রতিবেদন দেখুন এখানে এবং এখানে

সুতরাং, নরওয়েতে কোরআনে আগুন দেওয়া ব্যক্তির হাতে পঁচন ধরেছে দাবিতে বিড়ালের কামড়ে দুই হাতের আঙ্গুল এক বিশেষ ধরণের রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির ছবি ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে; যা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

RS Team
RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img