এমভি আবদুল্লাহর নয়, আটককৃত এই জলদস্যুরা ইরানের আল নাইমি জাহাজের

গত ১২ই মার্চ ভারত মহাসাগর থেকে বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আব্দুল্লাহকে জিম্মি করে সোমালিয়ান জলদস্যুরা। এরই প্রেক্ষাপটে “আলহামদুলিল্লাহ ভাই জলদস্যুরা ধরা পড়েছে ১৭ নাবিকদের প্রাণ বাঁচালো ইন্ডিয়ান সৈনিকরা” শীর্ষক শিরোনামে একটি ছবি ইন্টারনেটে প্রচার করা হয়েছে।

টিকটকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে(আর্কাইভ), এখানে(আর্কাইভ), এখানে(আর্কাইভ)।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, প্রচারিত ছবিটি বাংলাদেশের পতাকাবাহী এমভি আবদুল্লাহ জাহাজ জিম্মিকারী সোমালিয়ান জলদস্যুদের নয় বরং এটি চলতি বছরের ২৯ জানুয়ারি ভারতীয় নৌবাহিনী কর্তৃক পূর্ব সোমালিয়ান উপকূলে ইরানি পতাকাবাহী একটি মাছ ধরার জাহাজ থেকে গ্রেফতারকৃত সোমালিয়ান জলদস্যুদের ছবি।

রিভার্স ইমেজ সার্চের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম AP News এর ওয়েবসাইটে ২০২৪ সালের ৩১ জানুয়ারি “India’s navy rescues two hijacked boats. British military warns of two pirate groups in Indian Ocean” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন আলোচিত ছবিটি খুঁজে পাওয়া যায়। 

Source: AP News

উক্ত প্রতিবেদন থেকে জানা যায় যে, ভারতীয় নৌবাহিনী গত ২৯ জানুয়ারি পূর্ব সোমালিয়ান উপকূল থেকে ইরানি পতাকাবাহী একটি মাছ ধরার জাহাজকে সোমালিয়ান জলদস্যুদের হাত থেকে মুক্ত করে। এ ঘটনায় ১০ জন সোমালিয়ান জলদস্যু গ্রেফতার করে জাহাজে থাকা ১৯ জন পাকিস্তানি কেবিন ক্রু উদ্ধার করে ভারতীয় নৌবাহিনী। 

পরবর্তীতে উক্ত ঘটনার সূত্র ধরে, ভারতীয় নৌবাহিনীর মুখপাত্রের ভেরিফাইড এক্স(সাবেক টুইটার) অ্যাকাউন্ট SpokespersonNavy থেকে ২০২৪ সালের ৩০ জানুয়ারি প্রকাশিত একটি পোস্ট খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot Source: X

উক্ত টুইটে আলোচিত ছবিটি খুঁজে পাওয়া যায়। 

উক্ত টুইটে ভারতীয় নৌবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, গত ২৯ জানুয়ারি সোমলিয়ার পূর্ব উপকূলে ১৯ পাকিস্তানি নাবিকসহ ইরানি পতাকাবাহী আল নাইমি নামের একটি জাহাজ উদ্ধার করে ভারতীয় নৌবাহিনী। এ ঘটনায় ১১জন সোমালিয়ান জলদস্যুকে আটক করেছে তারা।

প্রসঙ্গত, গত ১২ই মার্চ ভারত মহাসাগর থেকে ২৩ জন নাবিকসহ বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আব্দুল্লাহকে জিম্মি করে সোমালি জলদস্যুরা। পরবর্তীতে, জাহাজের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে জলদস্যুরা জাহাজটিকে সোমালিয়ার উপকূলের দিকে নিয়ে যায়। এই প্রতিবেদনে প্রকাশ অবধি জাহাজটি সোমালিয়ান জলদস্যুদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। 

মূলত, চলতি বছরের ২৯ জানুয়ারি ইরানি পতাকাবাহী আল নাইমি জাহাজকে সোমালিয়ান জলদস্যুদের হাত থেকে উদ্ধার করে ভারতীয় নৌবাহিনী। এঘটনায় ভারতীয় নৌবাহিনীর হাতে আটককৃত সোমালিয়ান জলদস্যুদের একটি ছবিকেই সম্প্রতি ভারতীয় নৌবাহিনীর হাতে আটক এমভি আবদুল্লাহ জাহাজ জিম্মিকারী সোমালিয়ান জলদস্যুদের ছবি দাবিতে প্রচার করা হচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে, ভারতীয় নৌবাহিনী বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ জিন্মি করা সোমালিয়ান জলদস্যুদের এখন অবধি আটক করতে পারেনি।

সাম্প্রতিক সময়ে জলদস্যুদের হাতে জিম্মি এমভি আবদুল্লাহ জাহাজ নিয়ে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়া একাধিক তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রিউমর স্ক্যানার।

সুতরাং, ভারতীয় নৌবাহিনী কর্তৃক ভিন্ন একটি জাহাজ জলদস্যুদের কাছ থেকে উদ্ধারের ঘটনায় আটককৃত জলদস্যুদের ছবিকে এমভি আবদুল্লাহ জাহাজ জিম্মিকারী সোমালিয়ান জলদস্যুদের ভারতীয় নৌবাহিনী কর্তৃক আটকের ছবি দাবিতে ইন্টারনেটে প্রচার করা হচ্ছে; যা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img