ধর্ষণের প্রতিবাদ বিষয়ক প্ল্যাকার্ড বিকৃত করে ভিন্ন দাবিতে প্রচার

বিগত কয়েক বছর যাবত, “রাস্তার কুকুর রাস্তার পুলিশ হতে সাবধান, দুটোই কিন্তু পশু, সুযোগ পেলেই কামড়াবে।” শীর্ষক  লেখা সম্বলিত প্ল্যাকার্ডের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার হয়ে আসছে।

চলতি বছরে ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে।
পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে। 

একই দাবিতে ২০২১ সালে ফেসবুকে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে এবং এখানে।
পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন – এখানে এবং এখানে।

একই দাবিতে ২০২০ সালে ফেসবুকে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে এবং এখানে।
পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে এবং এখানে।

একই প্ল্যাকার্ডে ভিন্ন লেখা সম্বলিত (প্ল্যাকার্ডে লেখা “Fuck করবি যত পারো, তারপরও গদি ছাড়ো, ছিঃ ছিঃ হাছিনা, লজ্জায় বাঁচিনা।”) ফেসবুকে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে এবং এখানে।
পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে এবং এখানে।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, পুলিশকে কুকুরের সাথে তুলনা করে লেখা আলোচিত প্ল্যাকার্ডের ছবিটি বাস্তব নয় বরং “বাহ্ পুলিশ চমৎকার, ধর্ষকদের পাহারাদার।” লেখা একটি প্ল্যাকার্ডে উক্ত লেখা বসিয়ে বিকৃতভাবে ফেসবুকে প্রচার হয়ে আসছে।

অনুসন্ধান যেভাবে

আলোচিত ছবিটি রিভার্স ইমেজ সার্চ পদ্ধতির মাধ্যমে মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারে ২০২০ সালের ৬ অক্টোবর মানবাধিকার কর্মী ‘Pinaki Bhattacharya’ এর অ্যাকাউন্টে একটি টুইট খুঁজে পাওয়া যায়। 

টুইটে তিনি লিখেন, “অব্যাহত ধর্ষণের প্রতিবাদে চমৎকার অভিনব প্রতিবাদ। পোষ্টারে লেখা আছে, “বাহ পুলিশ চমৎকার, ধর্ষকদের পাহারাদার”। সেই পোষ্টার পুলিশ তাকিয়ে দেখছে। ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্তরা যেহেতু প্রায়শই ক্ষমতাসীন দলের সদস্য তাই পুলিশ তাদের সুরক্ষা দেয় বলে অভিযোগ আছে।”

টুইটে আলোচিত ছবিটি খুঁজে পাওয়া গেলেও প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল, “বাহ পুলিশ চমৎকার, ধর্ষকদের পাহারাদার।” 

পরবর্তীতে এডভান্স সার্চ পদ্ধতির মাধ্যমে ফেসবুকে ২০২০ সালের ৫ অক্টোবর বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মির্জা আব্বাসের স্ত্রী আফরোজা আব্বাসের নামে চালু থাকা ‘Afroza Abbas’ নামক একটি ফ্যানপেজে “বাহ্ পুলিশ চমৎকার, ধর্ষকদের পাহারাদার। শাহবাগ থানার সামনে নারী অধিকার কর্মীদের প্রতিবাদ” শিরোনামে একই ছবি খুঁজে পাওয়া যায়। 

একইদিনে (৫ অক্টোবর, ২০২০) একই ছবি ফেসবুকে প্রথম প্রচার হতে দেখা যায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০২০ সালের ২ সেপ্টেম্বর নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার একটি গ্রামে একজন গৃহবধূর বাড়ীতে ঢুকে তার স্বামীকে পাশের কক্ষে আটকে রেখে বিবস্ত্র করে নির্যাতন করে স্থানীয় কয়েকজন যুবক। প্রায় একমাস পরে সেই নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়। এর প্রেক্ষিতে প্রতিবাদ ছড়িয়ে পড়ে রাজপথেও। ৫ অক্টোবর শাহবাগেও একই ঘটনার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল হয়। 

বিস্তর অনুসন্ধানে ফেসবুকে ২০২১ সালের ১ মার্চ Mahbubul Hoq নামক একটি একাউন্ট থেকে “বাহ… পুলিশ চমৎকার ধর্ষকদের পাহারাদার” শিরোনামে একটি পোস্ট খুঁজে পাওয়া যায়।  

পোস্টে দুইটি ছবি কোলাজ করে সংযুক্ত করেছেন। উপরের ছবিতে দেখা যাচ্ছে, এক নারীকে সাদা পোশাক পরা পুলিশ আটক করে নিয়ে যাচ্ছে। অপরদিকে নিচের ছবিতে আলোচিত ছবিটি খুঁজে পাওয়া যায়। দুইটি ছবিতে থাকা নারীই একই ব্যক্তি বলেই প্রতীয়মান হয়। জনাব মাহবুবুল হক তার পোস্টে ‘Nazifa Jannat’ নামক এক নারীর নাম উল্লেখ করেছেন।

এই পোস্টের কাছাকাছি সময়ে ফেসবুকে একই বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারী ‘Meghmallar Bose’ নামক একটি একাউন্টের প্রকাশিত একটি ফেসবুক পোস্টেও একই ছবি ব্যবহার করে নাজিফা জান্নাতকে ট্যাগ করা হয়। 

পরবর্তীতে নাজিফা জান্নাতের ফেসবুক একাউন্টে ২০২০ সালের ৫ অক্টোবর প্রকাশিত একটি পোস্ট খুঁজে পাওয়া যায়। 

নাজিফা আলোচিত গণধর্ষণের ঘটনাটির বিরুদ্ধে গণঅবস্থান কর্মসূচীর একটি প্ল্যাকার্ডের ছবি সংযুক্ত করে পোস্ট লিখেছেন, “প্রতিবাদ করতে চাইলে রাজপথে নামেন। দেখা হবে শাহবাগে, সকাল ১১ টায়।”

তবে তার প্রোফাইলে আলোচিত ছবিটি খুঁজে পাওয়া যায়নি। 

এ বিষয়ে জানতে নাজিফা জান্নাতের সাথে যোগাযোগ করে রিউমর স্ক্যানার টিম। তিনি রিউমর স্ক্যানার টিমকে “বাহ্ পুলিশ চমৎকার, ধর্ষকদের পাহারাদার।” লেখা প্ল্যাকার্ডটি আসল এবং ছবির ব্যক্তিটি তিনি বলে নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলন চলাকালে ২০২০ সালের ৫ অক্টোবর এই ছবিটি তোলা হয়। 

মূলত, ২০২০ সালে নোয়াখালীতে এক গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের প্রতিবাদে সে বছরের ৫ অক্টোবর ঢাকায় অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ কর্মসূচীতে অংশ নেওয়া ছাত্র ইউনিয়ন নেত্রী *’নাজিফা জান্নাতের’* হাতে থাকা “বাহ্ পুলিশ চমৎকার, ধর্ষকদের পাহারাদার।” লেখা প্ল্যাকার্ডের একটি ছবি ফেসবুকে প্রচারিত হয়। তারপর থেকে বিভিন্ন সময় এই ছবিতে থাকা প্ল্যাকার্ডের লেখা বিকৃত করে ফেসবুকে ভিন্ন ভিন্ন দাবিতে প্রচার হয়ে আসছে।

উল্লেখ্য, নাজিফা জান্নাত বর্তমানে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহ-সভাপতি। পূর্বে তিনি একই ইউনিটের শিক্ষা ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন।

সুতরাং, “বাহ্ পুলিশ চমৎকার, ধর্ষকদের পাহারাদার।” লেখা একটি প্ল্যাকার্ড ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহ করে তা ডিজিটাল প্রযুক্তির সহায়তায় বিকৃত করে তাতে বিভিন্ন লেখা বসিয়ে বিকৃতভাবে ফেসবুকে প্রচার হয়ে আসছে। 

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img