সোমবার, জুলাই 22, 2024
spot_img

সংবাদ ভিত্তিক কনটেন্ট দিয়ে ফেসবুক থেকে আয় বন্ধ হওয়ার দাবিটি বিভ্রান্তিকর

সম্প্রতি, “সংবাদ ভিত্তিক কনটেন্ট থেকে ইনকাম বন্ধ শুরু করলো ফেসবুক। অর্থাৎ, কোন নিউজ চ্যানেলের নিউজের কারণে ভিউ থেকে আর কোন অর্থ পাবে না চ্যানেলগুলো।” শীর্ষক দাবিতে একটি তথ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

সংবাদ ভিত্তিক কনটেন্ট

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এবং এখানে (আর্কাইভ)।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, সংবাদ ভিত্তিক কনটেন্ট দিয়ে ফেসবুক থেকে আয় বন্ধ হওয়ার দাবিটি পুরোপুরি সঠিক নয়। সম্প্রতি ফেসবুক যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ার ব্যবহারকারীদের জন্য থাকা ‘নিউজ ট্যাব’ বন্ধ এবং এই বিষয়ে উক্ত দুই দেশের বিভিন্ন সংবাদ প্রকাশদের সাথে চুক্তি নবায়ন না করার ঘোষণা দিয়েছে। তবে অন্যান্য মাধ্যমে নিউজ কনটেন্ট দিয়ে ফেসবুক থেকে পূর্বের মতোই আয় করা যাবে। এছাড়া আলোচ্য ‘নিউজ ট্যাব’ ফিচারটি বাংলাদেশে পূর্বে থেকেই চালু নেই।

গুজবের সূত্রপাত

গত ০১ মার্চ বাংলাদেশের মূল ধারার গণমাধ্যম বাংলা ভিশনে “সংবাদ ভিত্তিক কনটেন্ট থেকে ইনকাম বন্ধ শুরু করলো ফেসবুক” (আর্কাইভ) শীর্ষক শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ করে। পরবর্তীতে এই শিরোনামের একটি ফটোকার্ডও প্রকাশ করা হয় গণমাধ্যমটির ফেসবুক পেজে (আর্কাইভ)।

Screenshot: Facebook. 

তবে প্রতিবেদনের বিস্তারিত অংশে উল্লেখ করা হয়েছে, “সংবাদ ভিত্তিক কনটেন্টের মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের রাস্তা বন্ধের কার্যক্রম শুরু করলো ফেসবুক। সংবাদকর্মীদের জন্য প্রথম আঘাতটি শুরু হয়েছে অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্স ও জার্মানি থেকে। পহেলা মার্চ ফেসবুকের নিয়ন্ত্রক সংস্থা মেটা জানিয়েছে, এখন থেকে অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্স ও জার্মানির সংবাদ প্রকাশকদের সাথে লভ্যাংশ ভাগ করা হবে না। এই তিনটি দেশে এসম্পর্কিত কোন চুক্তিও নবায়ন করবে না মেটা। এতে চরম দুর্যোগের মুখে পড়তে যাচ্ছে আগে থেকেই আর্থিক সংকটে ধুঁকতে থাকা সংবাদ মাধ্যমগুলো। আসছে এপ্রিলে অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রে বন্ধ হবে নিউ ট্যাব সেবা যা গতবছর বন্ধ হয়েছে যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও জার্মানিতে।”

উক্ত সূত্রের ভিত্তিতে কিওয়ার্ড সার্চ পদ্ধতি ব্যবহার করে আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের ওয়েবসাইটে গত ২ মার্চ “Facebook owner Meta angers Australia with plan to stop paying for news content” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায়, ফেসবুকের মালিকানা প্রতিষ্ঠান মেটা এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, তারা আর অস্ট্রেলিয়ান সংবাদ প্রকাশকদের ফেসবুকে প্রকাশিত সংবাদের বিনিময়ে অর্থ প্রদান করবে না। এই সিদ্ধান্তের আওতায়, যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ার ব্যবহারকারীদের জন্য ফেসবুকের বিশেষ ‘নিউজ ট্যাব’ বন্ধ করে দেওয়া হবে এবং ঐ দুই দেশের গণমাধ্যমের সাথে ফেসবুকে সংবাদ পরিবেশনের জন্য থাকা চুক্তি নবায়ন করা হবে না। মেটা আরো জানিয়েছে, গত বছর তারা ফ্রান্স, জার্মানি, ও যুক্তরাজ্যের গণমাধ্যমের সাথে চুক্তি নবায়ন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

গত ১ মার্চ প্রযুক্তি সংক্রান্ত আমেরিকান মিডিয়া আউটলেট দ্য ভার্জ একই বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনটিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ২০১৯ সালে প্রকাশকদের সাথে মিলিয়ন ডলারের চুক্তি (উদাহরণস্বরূপ, ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের জন্য ১০ মিলিয়ন ডলার, নিউ ইয়র্ক টাইমসের জন্য ২০ মিলিয়ন ডলার, এবং সিএনএনের জন্য ৩ মিলিয়ন ডলার) করে ফেসবুকের ‘নিউজ ট্যাব’ চালু হয়েছিল। কিন্তু আগামী এপ্রিল মাসে এটি আমেরিকা ও অস্ট্রেলিয়ায় চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে।

উল্লিখিত গণমাধ্যমগুলোর সূত্রে এ বিষয়ে গত ২৯ ফেব্রুয়ারি মেটার প্রকাশিত মূল বিবৃতিটি খুঁজে পাওয়া যায়। বিবৃতিটিতে মেটা বলেছে, ২০২৪ সালের এপ্রিলের প্রথম দিকে, আমরা যুক্তরাষ্ট্র এবং অস্ট্রেলিয়ায় ফেসবুকের বুকমার্কস অংশে একটি নির্দিষ্ট ট্যাব হিসেবে থাকা ফেসবুক নিউজকে বাতিল করবো। এটি আমাদের ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বরের ঘোষণার অনুসরণ করে, যেখানে আমরা গত বছর যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ও জার্মানিতে ফেসবুক নিউজকে বাতিল করেছিলাম।

উক্ত বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ফেসবুকের নিউজ ফিচারের এই পরিবর্তনগুলো এই দেশগুলোতে মেটার অন্যান্য পণ্য ও সেবাসমূহের উপর কোনো প্রভাব ফেলবে না। ব্যবহারকারীরা এখনো ফেসবুকে সংবাদের লিংক দেখতে পারবে। সংবাদ প্রকাশকেরা তাদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ও পেজ অ্যাক্সেস করতে পারবে, তারা তাদের গল্পের লিংক পোস্ট করতে এবং মানুষকে তাদের ওয়েবসাইটে নিয়ে যেতে পারবে। সংবাদ সংস্থাগুলি রিলস এবং বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আরও ব্যাপক দর্শকের কাছে পৌঁছানোর সুযোগ পাবে এবং তাদের ওয়েবসাইটে মানুষকে নিয়ে যেতে পারবে, যেখানে তারা ফেসবুকের বাহিরের লিংক থেকে উপার্জিত আয়ের শতভাগ রাখতে পারবে।

Screenshot: Facebook.

অর্থাৎ, ফেসবুক সম্প্রতি এক বিবৃতির মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ার ব্যবহারকারীদের জন্য ফেসবুকে যে আলাদা ‘নিউজ ট্যাব’ আছে সেটি বাতিলের ব্যাপারে জানিয়েছে এবং এ প্রসঙ্গে সংবাদ প্রকাশদের সাথে যে চুক্তি ছিল তা নবায়ন করা হবে না বলে জানিয়েছে। তবে সংবাদ প্রকাশরা এখনো অন্যান্য উপায়ে সংবাদ কনটেন্টের মাধ্যমে আয় করতে পারবে। 

এছাড়া, বাংলাদেশে ফেসবুকের ‘নিউজ ট্যাব’ ফিচারটি চালু নেই, এটি কেবল নির্দিষ্ট কয়েকটি দেশে চালু রয়েছে। সময়ের সাথে সাথে ফেসবুক এই ফিচারটি বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে বন্ধ করছে, যেমন গত বছর এটি যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ও জার্মানিতে বন্ধ করা হয়েছে। এ বছর এপ্রিল মাস থেকে যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়াতেও এটি বন্ধ হতে চলেছে।

মূলত,  ২০১৯ সালে বিভিন্ন প্রকাশকদের সাথে মিলিয়ন ডলারের চুক্তি করে ফেসবুকের ‘নিউজ ট্যাব’ চালু হয়েছিল। গত ২৯ ফেব্রুয়ারি ফেসবুকের মালিকানা প্রতিষ্ঠান মেটা যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ার ব্যবহারকারীদের জন্য থাকা এই ‘নিউজ ট্যাব’ বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে। সেই সাথে এই বিষয়ে এই দুই দেশের বিভিন্ন সংবাদ প্রকাশদের সাথে চুক্তি নবায়ন না করার কথাও জানিয়েছে মেটা। তবে উক্ত দুই দেশের সংবাদ প্রকাশকরা এখনও বিভিন্ন উপায়ে সংবাদ কনটেন্টের মাধ্যমে আয় করতে পারবেন। উক্ত বিষয়টি “সংবাদ ভিত্তিক কনটেন্ট থেকে ইনকাম বন্ধ শুরু করলো ফেসবুক। অর্থাৎ, কোন নিউজ চ্যানেলের নিউজের কারণে ভিউ থেকে আর কোন অর্থ পাবে না চ্যানেলগুলো” শীর্ষক দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে।

সুতরাং, “সংবাদ ভিত্তিক কনটেন্ট থেকে ইনকাম বন্ধ শুরু করলো ফেসবুক” শীর্ষক দাবিতে ফেসবুকে প্রচারিত তথ্যটি বিভ্রান্তিকর।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img