বিএনপি ও জামায়াতের সমাবেশকে কেন্দ্র করে তিন সাংবাদিক আক্রমণের শিকার দাবিতে গণমাধ্যমের নকল ফটোকার্ড প্রচার

২৮ অক্টোবর ঢাকায় ঢাকায় একাধিক রাজনৈতিক কর্মসূচীতে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় দেশের মূল ধারার সংবাদমাধ্যম একাত্তর টিভির সৌমিত্র মজুমদার, সমকালের কাজল হাজরা এবং জাগোনিউজ২৪ এর বিভাষ দিক্ষীত বিপ্লব আক্রমণের শিকার হয়েছেন দাবিতে গণমাধ্যম তিনটির আদলে তৈরি ফটোকার্ডের মাধ্যমে ফেসবুকে প্রচার করা হয়েছে। 

সাংবাদিক

একাত্তর টিভির প্রতিবেদক সৌমিত্র মজুমদার ও ক্যামেরাপার্সন কাউসার আহমেদ পল্টনে বিএনপির সমাবেশে হামলার শিকার হয়েছেন দাবিতে ফেসবুকে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ)।

দৈনিক সমকাল পত্রিকার সিনিয়র ফটো সাংবাদিক কাজল হাজরার ক্যামেরা বিএনপির নেতা কর্মীরা কেড়ে নিয়েছেন দাবিতে ফেসবুকে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ)।

জাগোনিউজ২৪ এর সিনিয়র ফটো সাংবাদিক বিভাষ দিক্ষীত বিপ্লবকে মারধর ও ক্যামেরা ভাংচুর করেছে শিবিরের কর্মীরা শীর্ষক দাবিতে ফেসবুকে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ)।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, ২৮ অক্টোবর ঢাকায় একাধিক রাজনৈতিক দলের সমাবেশকে কেন্দ্র করে নিজেদের সাংবাদিক আক্রমণের শিকার দাবিতে একাত্তর টিভি, সমকাল ও জাগোনিউজ২৪ কোনো ফটোকার্ড প্রকাশ করেনি বরং সংশ্লিষ্ট সাংবাদিকরা কোনো আক্রমণের শিকার হননি বলে গণমাধ্যমগুলোর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। 

একাত্তর টিভির কোনো সাংবাদিক কি সম্প্রতি হামলার শিকার হয়েছেন? 

এ বিষয়ে অনুসন্ধানে একাত্তর টিভির ফেসবুক পেজে ২৮ অক্টোবর বা সাম্প্রতিক সময়ে আলোচিত ফটোকার্ডটি খুঁজে পায়নি রিউমর স্ক্যানার টিম। 

পরবর্তীতে ফটোকার্ডে থাকা ছবিটি রিভার্স ইমেজ সার্চ করে ২০২২ সালে রাজশাহীর একটি ঘটনায় সাংবাদিক আহত হওয়া একাধিক গণমাধ্যমের খবরে (, ) ছবিটির খোঁজ মেলে। 

Screenshot: Dhaka Tribune

ঢাকা ট্রিবিউনে সে বছরের ২৬ মে প্রকাশিত এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, সেদিন রাজশাহীতে বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনায় ৬ সাংবাদিক আহত হয়েছেন। হামলায় আহতরা হলেন, বেসরকারি টেলিভিশন “চ্যানেল ২৪” এর ক্যামেরাপারসন আখতরুজ্জামান লেলিন, সময় টিভির আব্দুস সালাম, দীপ্ত টিভির রফিকুল ইসলাম, এসএ টিভির আবু সাঈদ, গাজী টিভির রবিউল ইসলাম খোকন এবং নিউজ ২৪ এর সামিউল আলীম বাপ্পী। 

এই তালিকায় একাত্তর টিভির কোনো সাংবাদিক নেই। 

পরবর্তীতে ফটোকার্ডটিতে উল্লিখিত প্রতিবেদক সৌমিত্র মজুমদারের সাথে কথা বলেছে রিউমর স্ক্যানার টিম। তিনি জানিয়েছেন, তিনি ২৮ অক্টোবর ঢাকাতেই ছিলেন না। তিনি চট্টগ্রামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক বঙ্গবন্ধু টানেল উদ্বোধন কর্মসূচীর খবর সংগ্রহ করতে সেখানে উপস্থিত ছিলেন। 

অর্থাৎ, ২০২২ সালের ভিন্ন ঘটনার একটি ছবি ব্যবহার করে একাত্তর টিভির সাংবাদিক পল্টনে বিএনপির সমাবেশে আহত হওয়া শীর্ষক দাবিটি প্রচার করা হচ্ছে। 

তাছাড়া, ২৮ অক্টোবর ঢাকায় রাজনৈতিক দলগুলোর কর্মসূচীতে একাধিক সাংবাদিক আক্রমণের শিকার হওয়ার ঘটনা ঘটলেও একাত্তর টিভির কোনো সাংবাদিক আক্রমণের শিকার হওয়ার তথ্য পাওয়া যায়নি। 

সমকালের কোনো সাংবাদিক কি সম্প্রতি হামলার শিকার হয়েছেন? 

এ বিষয়ে অনুসন্ধানে সমকাল এর ফেসবুক পেজে ২৮ অক্টোবর বা সাম্প্রতিক সময়ে আলোচিত ফটোকার্ডটি খুঁজে পায়নি রিউমর স্ক্যানার টিম। 

পরবর্তীতে ফটোকার্ডে থাকা ছবিটি রিভার্স ইমেজ সার্চ করে ২০২২ সালে রাজশাহীর উপরোল্লিখিত একই ঘটনায় প্রকাশিত আরেক গণমাধ্যমের সংবাদে এই ছবিটির খোঁজ মেলে। 

Screenshot: Jugantor 

উক্ত ঘটনায় আহত হওয়া সাংবাদিকদের  তালিকায় সমকালের কোনো সাংবাদিক ছিল না। 

পরবর্তীতে ফটোকার্ডটিতে উল্লিখিত ফটো সাংবাদিক কাজল হাজরার বিষয়ে অনুসন্ধান করে জানা যাচ্ছে, তিনি বর্তমানে সমকাল কর্মরত নয়, কাজ করছেন আরেক জাতীয় দৈনিক কালবেলা’য়। তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে এই তথ্য উল্লেখ পাওয়া যায় এবং কালবেলার অনলাইন বিভাগের প্রধান পলাশ মাহমুদও রিউমর স্ক্যানারকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

Screenshot: Facebook 

পলাশ এক ফেসবুক পোস্টে জানিয়েছেন, পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে গতকাল দৈনিক কালবেলার পাঁচ সাংবাদিক আহত হয়েছেন। এরা হলেন রাফসান জানি, আবু সালেহ মুসা, রবিউল ইসলাম রুবেল, তৌহিদুল ইসলাম তারেক ও জনি রায়হান।

এই তালিকায় কাজল হাজরার নাম নেই। 

অর্থাৎ, ২০২২ সালের ভিন্ন ঘটনার একটি ছবি ব্যবহার করে সমকালের ফটো সাংবাদিক বিএনপির সমাবেশে আহত হওয়া শীর্ষক দাবিটি প্রচার করা হচ্ছে। 

তাছাড়া, সমকাল এক ফেসবুক পোস্টেও জানিয়েছে, ফটো সাংবাদিক কাজল হাজরার ক্যামেরা কেড়ে নেওয়ার খবর দিয়ে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া কার্ডটি সমকালের নয়। 

জাগোনিউজ২৪ কি সাংবাদিক আহত দাবিতে আলোচিত ফটোকার্ডটি প্রকাশ করেছে?

এ বিষয়ে অনুসন্ধানে জাগোনিউজ২৪ এর ফেসবুক পেজে ২৮ অক্টোবর আলোচিত ফটোকার্ডটি খুঁজে পাওয়া না গেলেও একইদিন ফটোকার্ডে থাকা ছবি সম্বলিত আরেকটি ফটোকার্ড খুঁজে পাওয়া যায়। তবে এই ফটোকার্ডে কোনো সাংবাদিক আহত হওয়া সংক্রান্ত তথ্য উল্লেখ পাওয়া যায়নি৷ এই ফটোকার্ডটি ছিল ঢাকার আরামবাগে বিএনপি কর্মীদের সাথে পুলিশের বাগবিতণ্ডা সম্পর্কিত।

Screenshot Comparison: Rumor Scanner 

জাগোনিউজ২৪ এর এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রতিবেদনেও সাংবাদিক আহত হওয়া সংক্রান্ত কোনো তথ্য মেলেনি। 

তাছাড়া, জাগোনিউজ২৪ এর চিফ রিপোর্টার মাসুদ রানা রিউমর স্ক্যানারকে বলেছেন, (বিপ্লবের সাথে) এমন কিছু ঘটেনি। উনি সুস্থ আছেন। ফটোকার্ড নকল করে এমনটা প্রচার করা হচ্ছে। উনি গতকাল বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ ও শাপলা চত্বরে জামায়াতের সমাবেশে ছিলেন। 

এছাড়া, ২৮ অক্টোবর ঢাকায় রাজনৈতিক দলগুলোর কর্মসূচীতে একাধিক সাংবাদিক আক্রমণের শিকার হওয়ার ঘটনা ঘটলেও জাগোনিউজ২৪ এর কোনো সাংবাদিক আক্রমণের শিকার হওয়ার তথ্য পাওয়া যায়নি। 

মূলত, ২৮ অক্টোবর ঢাকায় একাধিক রাজনৈতিক কর্মসূচীতে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় দেশের একাধিক গণমাধ্যমের অন্তত ৩০ জন সংবাদকর্মী আক্রান্ত এবং হামলার শিকার হয়েছেন। এই খবরের মধ্যেই মূল ধারার সংবাদমাধ্যম একাত্তর টিভির সৌমিত্র মজুমদার, সমকালের কাজল হাজরা এবং জাগোনিউজ২৪ এর বিভাষ দিক্ষীত বিপ্লব আক্রমণের শিকার হয়েছেন দাবিতে গণমাধ্যম তিনটির আদলে তৈরি ফটোকার্ডের মাধ্যমে ফেসবুকে প্রচার করা হয়েছে। কিন্তু রিউমর স্ক্যানার টিম অনুসন্ধানে জেনেছে, এই ফটোকার্ডগুলো সংশ্লিষ্ট গণমাধ্যমগুলো প্রকাশ করেনি। প্রকৃতপক্ষে, কাজলা হাজরা বর্তমানে সমকালে নয়, কাজ করছেন কালবেলা’য়। তিনি আক্রমণের শিকার হননি গতকাল। অন্যদিকে, সৌমিত্র মজুমদার গতকাল ঢাকাতেই ছিলেন না, গিয়েছিলেন চট্টগ্রামে প্রধানমন্ত্রীর কর্মসূচীতে। তাছাড়া, বিভাষ দিক্ষীত বিপ্লবের সাথেও গতকাল এমন কিছু ঘটেনি বলে জাগোনিউজ২৪ জানিয়েছে। অর্থাৎ, তিন গণমাধ্যমের আদলে নকল ফটোকার্ড তৈরি করে ভুয়া এই তথ্যগুলো প্রচার করা হয়েছে। 

প্রসঙ্গত, ২৮ অক্টোবর ঢাকায় একাধিক রাজনৈতিক কর্মসূচীকে কেন্দ্র করে একাধিক ভুল তথ্য ছড়িয়ে পড়ার প্রেক্ষিতে সেসব বিষয়ে অনুসন্ধান করে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রিউমর স্ক্যানার টিম। এমন কিছু ফ্যাক্টচেক দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে৷ 

সুতরাং, ২৮ অক্টোবর ঢাকায় একাধিক রাজনৈতিক কর্মসূচীতে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় একাত্তর টিভির সৌমিত্র মজুমদার, সমকালের কাজল হাজরা এবং জাগোনিউজ২৪ এর বিভাষ দিক্ষীত বিপ্লব আক্রমণের শিকার হয়েছেন শীর্ষক দাবি প্রচার করা হয়েছে; যা সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং উক্ত দাবিতে গণমাধ্যম তিনটির আদলে তৈরি ফটোকার্ডগুলোও ভুয়া।  

তথ্যসূত্র

  • Ekattor Tv: Facebook Page
  • Samakal: Facebook Page
  • Jagonews24: Facebook Post
  • Statement from Soumitra Majumdar, Ekattor Tv
  • Statement from Masud Rana, Jagonews24
  • Rumor Scanner’s own investigation 
RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img