আজানের শব্দে ‘আজান ফুল’ ফোটার তথ্যটি মিথ্যা

সম্প্রতি “আযান ফুল! আযানের প্রতিটি বাণী উচ্চারিত হওয়ার সাথে ছন্দ মিলিয়ে ফোটে বিরল প্রজাতির এই ফুল। পাঁচ ওয়াক্তে আযানের সাথে সাথে ফোটে এই অদ্ভুত ফুল এবং আজান শেষে চুপসে যায়। আর সেকারণেই ফুলটির নাম দেয়া হয় আযান ফুল।” শীর্ষক দাবিতে কিছু তথ্য ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে।

ফেসবুকে প্রচারিত এরকম কিছু ভিডিও দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে
ভিডিওগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে। 

গণমাধ্যমে প্রচারিত এমন কিছু প্রতিবেদন দেখুন বাংলাদেশ প্রতিদিন, ডেইলি বাংলাদেশ, ইনকিলাব

ইউটিউবে প্রচারিত এমন কিছু ভিডিও দেখুন এখানে, এখানে, এখানে

যা দাবি করা হচ্ছে

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউবে প্রচারিত তথ্যসমূহে দাবি করা হচ্ছে, একটি হলুদ রঙের ফুল, যে ফুল শুধু আজান শুনলে ফুটে! একে Adhan flower বা বাংলায় আজান ফুল বলে! এটি আজারবাইজানের একটি  গ্রামে মোহাম্মদ রহিম নামক এক ব্যক্তির বাগানে সর্বপ্রথম এই  ফুল গাছের মিরাক্কেল ঘটনাটি দেখা যায় ! এই ফুলটি দিনে পাঁচবার ফুটে আজানের সময় আজান শেষ হওয়ার সাথে সাথে আবার পাপড়িগুলো বন্ধ অবস্থায় ফিরে আসে! অর্থাৎ আজারবাইজানের একটি  গ্রামে  মোহাম্মদ রহিম নামক এক ব্যক্তির বাগানে সর্বপ্রথম আজান ফুল গাছ দেখা যায়, যেটি কেবল শুধু আজান শুনলে ফুটে এবং আজান শেষ হওয়ার সাথে সাথে আবার পাপড়িগুলো বন্ধ অবস্থায় ফিরে আসে। এই ফুলটি দিনে পাঁচবার আজানের সময় ফুটে। এছাড়া গণমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, অন্য গানের সুর বা কখনো আজানের মতো করে অন্য কোনো সুর দিয়েও গবেষকরা পরীক্ষা করে দেখেছেন কিন্তু এ ফুল ফুটাতে পারেনি।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, আজান ফুল নামে পরিচিত ফুলটির মূল নাম ইভিনিং প্রাইম রোজ। এটি কেবল আজানের শব্দ শুনলেই ফুটে না বরং আজানের শব্দ ছাড়াই ফুলটি ফুটে থাকে।

কি-ওয়ার্ড অনুসন্ধানের মাধ্যমে ‘stonishing CreatorSignsAndProofs’ নামের একটি ইউটিউব চ্যানেলে ২০১৪ সালের ৩০ মার্চ  “CNN: Adhan miracle, flowers blooming when adhans comes, islam miracle” শীর্ষক শিরোনামে প্রচারিত একটি ভিডিও খুঁজে পাওয়া যায়। 

ভিডিওটির বিস্তারিত বিবরণী থেকে জানা যায়, আমেরিকা ভিত্তিক সিএনএন আজান ফুল নিয়ে প্রতিবেদন করতে একটি টিম পাঠায়৷ তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে এর সত্যতা নিশ্চিত করেন৷ সিএনএনের এই প্রতিবেদনে, ফুলটি দিনে পাঁচবার আজানের সময় ফুটে বলেও ভিডিওটির বিস্তারিত বিবরণীতে বলা হয়।

এছাড়া ভিডিওটিতে দেখা যায়, আজানের সাথে সাথে হলুদ রঙের একটি ফুল প্রস্ফুটিত হচ্ছে৷ ভিডিওটিতে দিনের আজানের সময় ফুল ফোটার দৃশ্য দেখালেও এটি কোন সময়ের আজান তার উল্লেখ করা হয়নি।

বিপরীতে মাগরিব ও এশার নামাজের আজানের সময় আজানের সাথে সাথে ফুলটি ফোটার দৃশ্য দেখানোর সময় ওয়াক্ত দুইটির উল্লেখ করা হয়।

অপরদিকে সিএনএনের মূল ইউটিউব চ্যানেল সহ অন্যান্য প্লাটফর্মে এই সংক্রান্ত কোনো প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়নি৷

তবে প্রতিবেদনটির শুরুতেই সংবাদ উপস্থাপিকা মূল সংবাদে যাওয়ার পূর্বে এটি লিডার টিভি এক্সপ্লেইন বলে জানান৷ এছাড়া প্রতিবেদনের শুরুতেই ‘REPORT PREPARED BY LIDER TV AZERBAIJAN’ শীর্ষক একটি লেখা দেখা যায়।

পরবর্তীতে লিডার টিভি নিয়ে অনুসন্ধানে দেখা যায়, চ্যানেলটির ওয়েবসাইট চলতি বছরের ৯ সেপ্টেম্বর মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেছে এবং বর্তমানে ওয়েবসাইটটি নবায়ন অথবা বন্ধ হওয়ার প্রক্রিয়ায় আছে। অপরদিকে লিডার টিভির কোনো ফেসবুক পেইজ বা ইউটিউব চ্যানেল খুঁজে পাওয়া যায়নি।

হলুদ রঙের এই ফুলটির নাম কি এটি কখন ফোটে?

ভিডিওটি থেকে কিছু স্থিরচিত্র নিয়ে রিভার্স ইমেজ সার্চের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের মিসৌরি অঙ্গরাজ্যের MISSOURI DEPARTMENT OF CONSERVATION এর ওয়েবসাইটে ফুলটি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়। 

ওয়েবসাইটটি থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী, Onagraceae (ওনাগ্রেসিয়া) গোত্রের এই ফুলটির বৈজ্ঞানিক নাম Oenothera biennis (ওইনোথেরা বাইয়েন্নিস)। এটি Common Evening Primrose বা কমন ইভিনিং প্রাইমরোজ নামে পরিচিত। এই ফুল জুন থেকে অক্টোবর এই সময়ের মধ্যে ফুটে।

মিসৌরিতে এর ২২ টি প্রজাতি খুঁজে পাওয়া যায়। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায় কমন ইভিনিং প্রাইমরোজ। অন্যান্য ইভিনিং প্রাইমরোজের মতো এটিও সন্ধ্যায় ফুটে।

অপরদিকে গৃহসজ্জা ও বাগান পরিচর্যা বিষয়ক একটি ওয়েবসাইট Thespruce এর তথ্যানুযায়ী, কমন ইভিনিং প্রাইমরোজের উৎপত্তি উত্তর আমেরিকায়। এটি শেষ বিকালে ও সন্ধ্যায় ফুটে এবং রাত্রিকালীন বিভিন্ন পরাগায়নকারী যেমন মথ, বাদুড় এসবকে আকর্ষণ করে। তার পরবর্তী সারাদিনে ধীরে ধীরে চুপসে যায়।

কমন ইভিনিং প্রাইমরোজের ফোটার সঙ্গে  আজানের শব্দ বা গানের সম্পর্ক আছে কি? 

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে কমন ইভিনিং প্রাইমরোজের ফুল ফোটার সঙ্গে আজান বা গানের কোনো সম্পর্ক ইন্টারনেটে বিশ্বস্ত সূত্রে খুঁজে পাওয়া যায়নি। পাশাপাশি আজান ছাড়া অন্য গানের সুর বা কখনো আজানের মতো করে অন্য কোনো সুর দিয়েও গবেষকদের কোনো গবেষণার কোনো ফলাফলও খুঁজে পাওয়া যায়নি।

বরং অনুসন্ধানে আজান বা কোনো ধরনের গান ছাড়াই ফুলটির ফোটার দৃশ্য খুঁজে পাওয়া যায়। এমন কিছু ভিডিও দেখুন এখানে, এখানেএখানে

পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের Times Reporter নামের একটি অনলাইন পোর্টালের ২০১৫ সালের ১৯ আগস্ট প্রকাশিত “Evening primrose ‘a miracle flower’” শীর্ষক একটি প্রতিবেদন থেকেও দেশটির ওহাইও অঙ্গরাজ্যের মেরি স্টুয়াজ নামের একজন নারীর গৃহেও আজান বা কোনো ধরনের গান ছাড়াই ইভিনিং প্রাইমরোজ ফোটা সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যায়।

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, ওহাইও অঙ্গরাজ্যের ডোভারের নর্থ স্টারের ৮২ বছর বয়সী মেরি স্টুয়াজের গৃহে পরিবার ও বন্ধু-বান্ধব জড়ো হোন ইভিনিং প্রাইমরোজের প্রস্ফুটিত হওয়া উপভোগ করতে। কয়েক মাস জুড়ে প্রতি রাতে এই ফুলটি ফুটছে। এই ফুল ফোটার প্রক্রিয়া শুরু হয় রাত প্রায় সাড়ে আটটা করে। প্রথমে কুড়ি ফুটতে শুরু করে এবং ধীরে ধীরে একটি সুন্দর হলুদ ফুলে পরিণত হয়।

প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়, সকাল পর্যন্ত ফুলগুলো পুরো প্রস্ফুটিত অবস্থায় থাকে এবং পরে মরে যায়। এছাড়া রাতের বেলা হামিংবার্ড, মথ এই ফুলগুলোর কাছে পরাগায়ন করতে আসে।

মূলত, আজান ফুল নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ফুলটির প্রকৃত নাম কমন ইভিনিং প্রাইমরোজ। এটির আদি বাসস্থান উত্তর আমেরিকায়। ফুলটি সাধারণত জুন থেকে অক্টোবরের মাসের মধ্যে শেষ বিকালে ও সন্ধ্যায় ফুটে থাকে৷ এটি ফোটার সঙ্গে আজান বা গানের কোনো সম্পর্ক নেই। তবে আজারবাইজানের লিডার টিভি নামের বন্ধ হয়ে যাওয়া একটি টিভি চ্যানেলের বরাতে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম সিএনএনের একটি প্রতিবেদনে দাবি করা হয় কমন ইভিনিং প্রাইমরোজ ফুলটি পাঁচ ওয়াক্তে আজানের সাথে সাথে ফুটে। কিন্তু অনুসন্ধানে এই তথ্যের কোনো সত্যতা খুঁজে পাওয়া যায়নি। বরং আজান বা কোনো ধরনের গান ছাড়াই কমন ইভিনিং প্রাইমরোজ ফোটার অনেক ভিডিও ইন্টারনেটে পাওয়া যায়।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশী ফ্যাক্টচেকিং প্রতিষ্ঠান ফ্যাক্টওয়াচ ও  ইন্দোনেশিয়ার ফ্যাক্টচেকিং প্রতিষ্ঠান Cek Fakta ও আজান ফুলের বিষয়টিকে মিথ্যা হিসেবে উল্লেখ করে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

সুতরাং, পাঁচ ওয়াক্তে আযানের সাথে আজান ফুল নামে ইভিনিং প্রাইমরোজ ফুলের ফোটা ও  আজান শেষে চুপসে যাওয়ার দাবিতে প্রচারিত ভিডিওটি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img