বৃহস্পতিবার, জুলাই 25, 2024
spot_img

বর্তমানে বাংলাদেশের শিক্ষার মান দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্বনিম্ন নয়

সম্প্রতি, বাংলাদেশের শিক্ষার মান ১৩৮ টা দেশের মধ্যে ১২৩ তম যা দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে স’র্বনিম্ন। শীর্ষক দাবিতে একটি তথ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হয়েছে। 

শিক্ষার মান

উক্ত দাবিতে ফেসবুকে প্রচারিত পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ)।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, বর্তমানে বাংলাদেশের শিক্ষার মান দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে থাকার দাবিটি সঠিক নয় বরং ২০২০ সালের তথ্যটিকে সাম্প্রতিক দাবিতে প্রচার করা হয়েছে। সর্বশেষ ২০২৩ সালে প্রকাশিত শিক্ষা বিষয়ক তিনটি  সূচকের মধ্যে বৈশ্বিক জ্ঞান সূচক অনুযায়ী ১৫৪ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১১২ তম, বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচক অনুযায়ী ১৩২ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১০৫ তম এবং গ্লোবাল ট্যালেন্ট কম্পিটিটিভনেস ইনডেক্স অনুযায়ী ১৩৪ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৩ তম। এর মধ্যে গ্লোবাল ট্যালেন্ট কম্পিটিটিভনেস ইনডেক্স অনুযায়ী বাংলাদেশের অবস্থান দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বনিম্ন হলেও বৈশ্বিক জ্ঞান সূচক ও বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচক অনুযায়ী বাংলাদেশের অবস্থান দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বনিম্ন নয়। এছাড়া আলোচিত সূচকগুলোতে দক্ষিণ এশিয়ার সব দেশকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত বৈশ্বিক শিক্ষা সংক্রান্ত তিনটি সূচক হলো- বৈশ্বিক জ্ঞান সূচক, বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচক এবং গ্লোবাল ট্যালেন্ট কম্পিটিটিভনেস ইনডেক্স। তাই আলোচিত দাবি যাচাইয়ে রিউমর স্ক্যানার টিম এই তিনটি সূচকের সর্বশেষ তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান জানার চেষ্টা করে।

অনুসন্ধানের শুরুতে দক্ষিণ এশিয়ায় কোন কোন অবস্থিত সে বিষয়ে জানতে দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা (সার্ক) এর ওয়েবসাইট পর্যবেক্ষণ করে রিউমর স্ক্যানার টিম। উক্ত ওয়েবসাইট থেকে জানা যায়, সার্ক এর সদস্য দেশগুলো হচ্ছে আফগানিস্তান, বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত, মালদ্বীপ, নেপাল, পাকিস্তান এবং শ্রীলংকা। অর্থাৎ এই সবগুলো দেশই ভৌগোলিকভাবে দক্ষিণ এশিয়ায় অবস্থিত।

বৈশ্বিক জ্ঞান সূচক

২০২৩ সালে প্রকাশিত বৈশ্বিক জ্ঞান সূচকের তালিকা অনুযায়ী, ১৫৪ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১১২ তম। এছাড়া, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে পাকিস্তান ও মিয়ানমারকে পেছনে ফেলে বাংলাদেশ পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের পরের অবস্থানে যথাক্রমে পাকিস্তান (১১৭ তম) এবং মিয়ানমার (১১৮ তম)।

Screenshot: knowledge4all.com

২০২২ সালে প্রকাশিত বৈশ্বিক জ্ঞান সূচকের তালিকা অনুযায়ী, সেসময় ১৩২ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১০৫ তম ছিল। এছাড়া, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে নেপাল, পাকিস্তান ও মিয়ানমারকে পেছনে ফেলে বাংলাদেশ তৃতীয় অবস্থানে ছিল। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের পরের অবস্থানে যথাক্রমে নেপাল (১০৮ তম) পাকিস্তান (১১০ তম) এবং মিয়ানমার (১১৫ তম)।

Screenshot: knowledge4all.com

২০২১ সালের ডিসেম্বরে প্রকাশিত বৈশ্বিক জ্ঞান সূচকের তালিকা অনুযায়ী, সেসময় ১৫৪ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১২০ তম ছিল। এছাড়া, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে পাকিস্তান ও নেপালকে পেছনে ফেলে বাংলাদেশ চতুর্থ অবস্থানে ছিল। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের পরের অবস্থানে যথাক্রমে পাকিস্তান (১২৩ তম), নেপাল (১২৮ তম) এবং সর্বশেষ আফগানিস্তান (১৫১ তম)।

Screenshot: www.undp.org

২০২০ সালের প্রকাশিত বৈশ্বিক জ্ঞান সূচকের তালিকা অনুযায়ী, সেসময়ে ১৩৮ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১১২ তম ছিল এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান সর্বনিম্ন ছিল (১১২ তম) তবে এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে ছিলো মিয়ানমার (১২৮ তম)।

Screenshot: www.undp.org

বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচক

World Intellectual Property Organization (WIPO) এর ওয়েবসাইটে বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচক – ২০২৩ এর তালিকা অনুযায়ী, ১৩২ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১০৫ তম রয়েছে এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে নেপালকে (১০৮ তম) পেছনে পেলে বাংলাদেশ চতুর্থ স্থানে অবস্থান রয়েছে। এই তালিকায় বাংলাদেশ থেকে ভারত (৪০ তম), পাকিস্তান (৮৮ তম) ও শ্রীলংকা (৯০ তম) এগিয়ে আছে।

Screenshot: WIPO

World Intellectual Property Organization (WIPO) এর ওয়েবসাইটে বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচক – ২০২২ এর তালিক  অনুযায়ী সেসময়ে ১৩২ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১০২ তম এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে নেপাল (১১১ তম) ও মায়ানমারকে (১১৬ তম) পেছনে চতুর্থ স্থানে অবস্থান করছিল। এই তালিকায় বাংলাদেশ থেকে ভারত (৪০ তম), শ্রীলংকা (৮৫ তম) ও পাকিস্তান (৮৭ তম) এগিয়ে ছিল।

Screenshot: WIPO

World Intellectual Property Organization (WIPO) এর ওয়েবসাইটে বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচক – ২০২১ এর তালিকা অনুযায়ী, সেসময়ে ১৩২ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১১৬ তম এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে মায়ানমারকে (১২৭ তম) পেছনে পঞ্চম স্থানে অবস্থান করে। এই তালিকায় বাংলাদেশ থেকে ভারত (৪৬ তম), শ্রীলংকা (৯৫ তম), পাকিস্তান (৯৯ তম) ও নেপাল (১১১ তম) এগিয়ে ছিল।

Screenshot: WIPO

World Intellectual Property Organization (WIPO) এর ওয়েবসাইটে বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচক – ২০২০ এর তালিকা অনুযায়ী, সেসময়ে ১৩১ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১১৬ তম এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে মায়ানমারকে (১২৯ তম) পেছনে পঞ্চম স্থানে অবস্থান করে। এই তালিকায় বাংলাদেশ থেকে ভারত (৪৮ তম), নেপাল (৯৬ তম), শ্রীলংকা (১০১ তম) ও পাকিস্তান (১০৭ তম) এগিয়ে ছিল।

Screenshot: WIPO

গ্লোবাল ট্যালেন্ট কম্পিটিটিভনেস ইনডেক্স

Global Talent Competitiveness Index এর ওয়েবসাইটে গ্লোবাল ট্যালেন্ট কম্পিটিটিভনেস ইনডেক্স – ২০২৩ এর তালিকা অনুযায়ী, ১৩৪ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৩ তম এবং এটি দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর সর্বনিম্ন। এই তালিকায় বাংলাদেশ থেকে শ্রীলংকা (৯০ তম), ভারত (১০৩  তম), নেপাল (১০৭ তম) ও পাকিস্তান (১০৯ তম) এগিয়ে রয়েছে।

Screenshot: Insead.edu

Global Talent Competitiveness Index এর ওয়েবসাইটে গ্লোবাল ট্যালেন্ট কম্পিটিটিভনেস ইনডেক্স – ২০২২ এর তালিকা, অনুযায়ী সেসময়ে ১৩৩ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১২২ তম এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে এটি সর্বনিম্ন। এই তালিকায় বাংলাদেশ থেকে শ্রীলংকা (৯২ তম), ভারত (১০১  তম), নেপাল (১১১ তম) ও পাকিস্তান (১১৪ তম) এগিয়ে ছিল।

Screenshot: Insead.edu

Global Talent Competitiveness Index এর ওয়েবসাইটে গ্লোবাল ট্যালেন্ট কম্পিটিটিভনেস ইনডেক্স – ২০২১ এর তালিকা অনুযায়ী, সেসময়ে ১৩৪ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১২৩ তম এবং যা দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন। এই তালিকায় বাংলাদেশ থেকে ভারত (৮৮ তম), শ্রীলংকা (৯৩ তম), পাকিস্তান (১০৭ তম) ও নেপাল (১১৩ তম) এগিয়ে ছিল।

Screenshot: Insead.edu

Global Talent Competitiveness Index এর ওয়েবসাইটে গ্লোবাল ট্যালেন্ট কম্পিটিটিভনেস ইনডেক্স – ২০২০ এর তালিকা খুঁজে পাওয়া যায়। তালিকাটির তথ্য অনুযায়ী সেসময়ে ১৩২টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১২৪ তম এবং যা দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন। এই তালিকায় বাংলাদেশ থেকে ভারত (৭২ তম), শ্রীলংকা (৮২ তম), ভুটান (৯২ তম), পাকিস্তান (১০৬ তম) ও নেপাল (১২১ তম) এগিয়ে ছিল।

Screenshot: Insead.edu

মূলত, আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত বৈশ্বিক শিক্ষা সংক্রান্ত তিনটি সূচক হলো- বৈশ্বিক জ্ঞান সূচক, বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচক এবং গ্লোবাল ট্যালেন্ট কম্পিটিটিভনেস ইনডেক্স। সর্বশেষ ২০২৩ সালে প্রকাশিত শিক্ষা বিষয়ক তিনটি সূচকের মধ্যে বৈশ্বিক জ্ঞান সূচক অনুযায়ী ১৫৪ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১১২ তম, বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচকঅনুযায়ী ১৩২ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১০৫ তম এবং গ্লোবাল ট্যালেন্ট কম্পিটিটিভনেস ইনডেক্স অনুযায়ী ১৩৪ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৩ তম। সম্প্রতি বাংলাদেশের শিক্ষার মান ১৩৮ টা দেশের মধ্যে ১২৩ তম যা দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্বনিম্ন দাবিতে একটি তথ্য ফেসবুকে প্রচার করা হয়েছে। তবে রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত বৈশ্বিক শিক্ষা সংক্রান্ত তিনটি সূচকের মধ্যে গ্লোবাল ট্যালেন্ট কম্পিটিটিভনেস ইনডেক্স অনুযায়ী বাংলাদেশের অবস্থান দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বনিম্ন হলেও বৈশ্বিক জ্ঞান সূচক ও বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচক অনুযায়ী বাংলাদেশের অবস্থান দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বনিম্ন নয়। এছাড়া আলোচিত সূচকগুলোতে দক্ষিণ এশিয়ার সব দেশকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

সুতরাং, বর্তমানে বাংলাদেশের শিক্ষার মান দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্বনিম্ন দাবিতে প্রচারিত তথ্যটি বিভ্রান্তিকর।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img