শনিবার, এপ্রিল 13, 2024
spot_img

রাজধানীতে বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহত দাবিতে বিভ্রান্তিকর সংবাদ প্রচার

সম্প্রতি ‘এইমাত্র রাজধানীতে বোমা হামলা, হঠ্যাৎ-ই নিহত ৪৪’ শীর্ষক শিরোনাম ও থাম্বনেইলে একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচারিত হয়েছে।

Screenshot: Facebook

ফেসবুকে প্রচারিত এমন একটি ভিডিও দেখুন এখানে। আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে। 

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, বাংলাদেশে বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটেনি বরং আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোয় বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহত হয়েছে এবং কোন দেশ তা নির্দিষ্ট করে উল্লেখ না করা এবং ভিডিও’র থাম্বনেইলে বাংলাদেশের মানুষের আহাজারি ও লাশের ছবি ব্যবহার করায় বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে। 

গত ১০ এপ্রিল News Plus নামের একটি ফেসবুক পেজ থেকে ‘এইমাত্র রাজধানীতে বোমা হামলা, হঠ্যাৎ-ই নিহত ৪৪’ শীর্ষক শিরোনাম এবং থাম্বনেইলে বাংলাদেশের মানুষের আহাজারি ও লাশের ছবি ব্যবহার করে ভিডিওটি প্রকাশ করা হয়।

Screenshot: Facebook

ভিডিওটি পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যায়, এটি কয়েকটি প্রতিবেদন নিয়ে তৈরি একটি নিউজ বুলেটিন ভিডিও। ৮ মিনিট ২২ সেকেন্ডের এই ভিডিওটিতে ৫ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডের সময় আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোয় বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহতের বিষয়ে বলা হয়। এবিষয়ে সংবাদ পাঠ ৫ মিনিট ৩৬ সেকেন্ড থেকে শুরু হয়ে ৬ মিনিট ১০ সেকেন্ড পর্যন্ত চলে। এবিষয়ে বিস্তারিত সংবাদে বলা হয়, আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোয় সন্ত্রাসীদের হামলায় অন্তত ৪৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। রোববার (৯ এপ্রিল) ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, গত ৬ এপ্রিল দেশটির নাইজার সীমান্তের কাছে সাহেল অঞ্চলের কৌরাকাউ এবং টন্ডোবি গ্রামে সন্ত্রাসীরা এলোপাথারি গুলি চালালে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে। নিহতের মধ্যে কৌরাকাউতে ৩১ জন এবং টন্ডোবি গ্রামের ১৩ জন হয়েছেন। সম্প্রতি গবাদি পশু চুরির চেষ্টাকারী দুই সন্ত্রাসীকে পিটিয়ে হত্যার প্রতিশোধ হিসেবে এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

উক্ত প্রতিবেদনের সূত্র ধরে প্রাসঙ্গিক কি ওয়ার্ড অনুসন্ধানের মাধ্যমে মূল ধারার গণমাধ্যম আরটিভির অনলাইন সংস্করণে ‘বুরকিনা ফাসোতে সন্ত্রাসীদের হামলা, নিহত ৪৪’ শীর্ষক শিরোনামে গত ০৯ এপ্রিল প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন(আর্কাইভ) খুঁজে পাওয়া যায়। 

Screenshot: RTV Online

প্রতিবেদনে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসির বরাতে জানানো হয়, গত ৬ এপ্রিল দেশটির নাইজার সীমান্তের কাছে সাহেল অঞ্চলের কৌরাকাউ এবং টন্ডোবি গ্রামে সন্ত্রাসীরা এলোপাথারি গুলি চালালে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে। নিহতের মধ্যে কৌরাকাউতে ৩১ জন এবং টন্ডোবি গ্রামের ১৩ জন হয়েছেন। সম্প্রতি গবাদি পশু চুরির চেষ্টাকারী দুই সন্ত্রাসীকে পিটিয়ে হত্যার প্রতিশোধ হিসেবে এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

রিউমর স্ক্যানার যাচাই করে দেখেছে, আরটিভি অনলাইনে প্রকাশিত উক্ত প্রতিবেদনটি দাবিকৃত ভিডিওতে প্রতিবেদনের শেষ পর্যন্ত হুবহু পাঠ করা হয়েছে। তাছাড়া দাবিকৃত ভিডিও’র শিরোনামে রাজধানীতে বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহতের কথা লেখা হলেও বিস্তারিত সংবাদ পাঠের সময় আরটিভি অনলাইনে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোয় বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহতের কথা বলা হয়। এছাড়া প্রচারিত ভিডিওতে দেখানো ছবিটিও আরটিভি অনলাইনে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে নেওয়া হয়েছে।

পাশাপাশি দেশীয় কিংবা আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম কিংবা অন্যকোনো সূত্রে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে রাজধানীতে বোমা হামলা কিংবা বোমা হামলায় নিহতের কোনো সংবাদ খুঁজে পাওয়া যায়নি।

অর্থাৎ, প্রচারিত ভিডিও’র বিস্তারিত প্রতিবেদন এবং এবিষয়ে গণমাধ্যমের প্রতিবেদন পর্যালোচনা করলে এটা স্পষ্ট যে, আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোয় বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহতের ঘটনাকে দেশটির নাম উল্লেখ না করে রাজধানীতে বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহত দাবি করে থাম্বনেইলে বাংলাদেশের মানুষের আহাজারি ও লাশের ছবি ব্যবহার করে বিভ্রান্তিকরভাবে প্রচার করা হয়েছে।

মূলত, সম্প্রতি আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোয় বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহতের ঘটনা ঘটে। তবে বাংলাদেশে একটি নিউজ বুলেটিন ভিডিওতে দেশটির নাম উল্লেখ না করে ‘এইমাত্র রাজধানীতে বোমা হামলা, হঠ্যাৎ-ই নিহত ৪৪’ শীর্ষক ক্যাপশন এবং থাম্বনেইলে বাংলাদেশের মানুষের আহাজারি ও লাশের ছবি ব্যবহার করায় বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়। প্রকৃতপক্ষে, চটকদার ক্যাপশন এবং থাম্বনেইল ব্যবহার করে অধিক ভিউ পাবার আশায় উক্ত দাবিতে ভিডিওটি প্রচার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ক্যাপশন এবং থাম্বনেইলে চটকদার শিরোনাম ব্যবহার করে বিভিন্ন সময় বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচার করা হচ্ছে। এসব ঘটনা নিয়ে পূর্বেও ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রিউমর স্ক্যানার।

সুতরাং, আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোয় বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহতের ঘটনার সংবাদের ভিডিও’র ক্যাপশনে শুধুমাত্র রাজধানীতে বোমা হামলায় ৪৪ জন নিহত লিখে প্রচার করা হচ্ছে এবং থাম্বনেইলে বাংলাদেশের মানুষের আহাজারি ও লাশের ছবি ব্যবহার করা হচ্ছে; যা বিভ্রান্তিকর। 

তথ্যসূত্র

RS Team
RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img