কাশ্মীরের রেলসেতুর উচ্চতা এবং আইফেল টাওয়ারের সাথে সেতুটির তুলনায় গণমাধ্যমে ভুল তথ্য 

সম্প্রতি, “কাশ্মীরে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু রেলসেতু” শীর্ষক শিরোনামে একটি প্রতিবেদন কতিপয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।

যা দাবি করা হচ্ছে

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু রেলসেতু এখন ভারতে। জম্মু ও কাশ্মীরে চেনাব নদীর ওপর ১০৯ ফুট উঁচু রেলসেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে ১০ ফুটের চেয়েও বেশি উচ্চতায় নির্মাণ করা হয়েছে।

গণমাধ্যমে প্রচারিত এমন সংবাদ প্রতিবেদন দেখুন দ্য ডেইলি স্টার, দৈনিক ইত্তেফাক, বণিকবার্তা

একই দাবিতে ফেসবুকে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ) এবং এখানে (আর্কাইভ)। 

কতিপয় গণমাধ্যমে রেলসেতুটি আইফেল টাওয়ারের চেয়ে ৩৫ মিটার বা ১১৫ ফুট বেশি উচ্চতায় নির্মাণ করা হয়েছে শীর্ষক একটি দাবি প্রচার করা হয়েছে। 

উক্ত দাবিতে গণমাধ্যমের প্রতিবেদন দেখুন প্রথম আলো, বাংলানিউজ২৪, নাগরিক টিভি (ইউটিউব) এটিএন বাংলা (ইউটিউব), দূরবীন নিউজ (ফেসবুক)। 

একই দাবিতে ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন দেখুন এই সময়, কোলকাতা টিভি (ফেসবুক), টাইমস অফ ইন্ডিয়া (ইউটিউব)।

একই দাবিতে ফেসবুকে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ)।

একই দাবিতে ইউটিউবের ভিডিও দেখুন এখানে (আর্কাইভ)। 

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, ভারতের জম্মু ও কাশ্মীরে চেনাব নদীর ওপর ১০৯ ফুট উঁচু রেলসেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে ১০ ফুটের চেয়েও বেশি উচ্চতায় নির্মাণ করার দাবিটি সঠিক নয় বরং রেলসেতুটির মোট উচ্চতা ১১৭৮ ফুট এবং এটি আইফেল টাওয়ার থেকে প্রায় ৯৫ ফুট উঁচু।

এ বিষয়ে অনুসন্ধানে কি-ওয়ার্ড সার্চের মাধ্যমে গত ২৬ মার্চ ভারতীয় গণমাধ্যম ‘NDTV’ তে “World’s Highest Railway Bridge In Jammu And Kashmir To Be Operational Soon” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ভারতের জম্মু ও কাশ্মীরে চেনাব নদীর উপর নির্মিত রেলসেতুটির মোট উচ্চতা ৩৫৯ মিটার বা ১১৭৮ ফুট এবং রেলসেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে প্রায় ৩৫ মিটার (১১৫ ফুট) উঁচু।

Screenshot from NDTV

পরবর্তীতে কাতার ভিত্তিক গণমাধ্যম ‘Al Jazeera’ এর ওয়েবসাইটে গত ২৭ এপ্রিল  ‘World’s highest railway bridge to open in Kashmir soon’ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন  থেকেও রেলসেতুটির মোট উচ্চতা বিষয়ে একই তথ্য পাওয়া যায়। তবে এই প্রতিবেদনে সেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে বেশি উচ্চতার কথা বলা হলেও পরিমাণগত কোনো তথ্য উল্লেখ করা হয়নি।

Screenshot from Al Jazeera

অনুসন্ধানের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যম ‘CNN’ এর ওয়েবসাইটে গত ২ মে “Taller than the Eiffel Tower, India constructs world’s highest railway bridge in Kashmir” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত  প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ভারতের জম্মু ও কাশ্মীরে চেনাব নদীর উপর নির্মিত রেলসেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে ২৯ মিটার বা ৯৫ ফুট উচ্চতা বেশি।

Screenshot from CNN

এখানে লক্ষ্যণীয় যে, সিএনএনের দাবি, রেলসেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে ২৯ মিটার বা ৯৫ ফুট উঁচু। কিন্তু এনডিটিভি দাবি করছে, ৩৫ মিটার বা ১১৫ ফুট উঁচু। অর্থাৎ, সিএনএন এবং এনডিটিভির এ সংক্রান্ত তথ্যে গরমিল রয়েছে। 

এ বিষয়ে অধিকতর অনুসন্ধানে, আইফেল টাওয়ারের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে ২০২২ সালের ১৫ মার্চের এ সংক্রান্ত সর্বশেষ আপডেট বলছে, আইফেল টাওয়ারের মোট উচ্চতা ৩৩০ মিটার বা ১০৮৩ ফুট।

Screenshot source: Eiffel Tower Website

উপরোক্ত তথ্যগুলো পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ভারতের রেলসেতুটির উচ্চতা ১১৭৮ ফুট। এই উচ্চতা আইফেল টাওয়ারের চেয়ে ঠিক কত মিটার উঁচু এ বিষয়ে এনটিভি দাবি করেছে, ১১৫ ফুট। সিএনএন দাবি করেছে, ৯৫ ফুটের বেশি। এ বিষয়ে আইফেল টাওয়ারের ওয়েবসাইট জানাচ্ছে, টাওয়ারটির বর্তমান উচ্চতা ১০৮৩ ফুট। এ হিসেবে রেলসেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে ৯৫ ফুট (২৯ মিটার) উঁচু। এক্ষেত্রে তাই, এনডিটিভি ভুল তথ্য দিয়েছে। 

এ বিষয়ে আরও অনুসন্ধান করে, গত ২৭ মার্চ ভারত সরকারের রেল মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে ‘SALIENT FEATURES OF HIGHEST RAILWAY BRIDGE ON RIVER CHENAB’ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি বিজ্ঞপ্তি পাওয়া যায়।

বিজ্ঞপ্তি থেকে জানা যায়, রেলসেতুটির মোট উচ্চতা ৩৫৯ মিটার বা ১১৭৮ ফুট এবং রেলসেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে প্রায় ৩৫ মিটার লম্বা যা ফুটে রূপান্তর করলে হয় প্রায় ১১৫ ফুট।

Screenshot source: Indian Railways Website

অর্থাৎ, এনডিটিভির ন্যায় ভারত সরকারও দাবি করছে, সেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে ১১৫ ফুট উঁচু।ভারত সরকার কেন এ সংক্রান্ত তথ্যে ২০ ফুট বাড়িয়ে বলছে এ বিষয়ে অনুসন্ধান করতে গিয়ে দেখা যায়, আইফেল টাওয়ারের উচ্চতা ২০২২ সালের পূর্বে সর্বশেষ ২০০০ সালের আপডেট অনুযায়ী ১০৬৩ ফুট (৩২৪ মিটার) ছিল। 

Screenshot source: Eiffel Tower Website

এ হিসেবে, রেলসেতুটির উচ্চতা আইফেল টাওয়ার থেকে ১১৫ ফুট বেশি হয়। 

অর্থাৎ, ভারত সরকার আইফেল টাওয়ারের উচ্চতা সংক্রান্ত যে তথ্য দিয়েছে তা আপডেট তথ্য ছিল না, তা ছিল ২০০০ সালের তথ্য। 

মূলত, সম্প্রতি কতিপয় গণমাধ্যমে কাশ্মীরে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু রেলসেতু বিষয়ক একটি প্রতিবেদনে দাবি করেছে, ভারতের জম্মু ও কাশ্মীরে চেনাব নদীর ওপর ১০৯ ফুট উঁচু রেলসেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে ১০ ফুটের চেয়েও বেশি উচ্চতায় (কতিপয় গণমাধ্যমে ১১৫ ফুট উঁচু দাবি) নির্মাণ করা হয়েছে। তবে রিউমর স্ক্যানারের দীর্ঘ অনুসন্ধানে দেখা যায়, উক্ত দাবিগুলো সঠিক নয়। চেনাব নদীর উপর নির্মিত রেলসেতুটির মোট উচ্চতা ৩৫৯ মিটার বা ১১৭৮ ফুট। তাছাড়া, ভারত সরকার কর্তৃক রেলসেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে প্রায় ১১৫ ফুট উঁচু দাবি করা হলেও প্রকৃতপক্ষে আইফেল টাওয়ারের উচ্চতা সংক্রান্ত ২০২২ সালে সর্বশেষ আপডেট অনুযায়ী, রেলসেতুটি আইফেল টাওয়ার থেকে মূলত ৯৫ ফুট উঁচু।

প্রসঙ্গত, পূর্বেও জম্মু ও কাশ্মীরে চেনাব নদীর উপর ট্রেন ট্রায়াল নিয়ে ইন্টারনেটে গুজব ছড়িয়ে পড়লে তা শনাক্ত করে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করে রিউমর স্ক্যানার।

উল্লেখ্য, ভারতের জম্মু ও কাশ্মীরে চেনাব নদীর ওপর নির্মিত রেলসেতুটি ২০২৩ সালের ডিসেম্বরে অথবা ২০২৪ সালের জানুয়ারি মাসে চালু হবে

সুতরাং, ভারতের জম্মু ও কাশ্মীরে চেনাব নদীর ওপর নির্মাণাধীন রেলসেতুটি ১০৯ ফুট উঁচু এবং এটি আইফেল টাওয়ারের চেয়ে ১০ ফুট (কারও দাবি ১১৫ ফুট) বেশি উচ্চতায় নির্মাণ করা হয়েছে শীর্ষক একটি দাবি কতিপয় গণমাধ্যমে প্রচার করা হয়েছে; যা বিভ্রান্তিকর।

তথ্যসূত্র

RS Team
RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img