বুধবার, জুলাই 24, 2024
spot_img

মাওলানা মামুনুল হক আবারও গ্রেফতার হওয়ার দাবিটি সঠিক নয়

বিভিন্ন মামলায় তিন বছরেরও বেশি সময় কারাভোগ পর চলতি মাসের ৩ মে কাশিমপুর কারাগার থেকে মুক্তি পান হেফাজতে ইসলামের বিলুপ্ত কমিটির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক। তার বিরুদ্ধে ঢাকায় এবং ঢাকার বাইরে হওয়া মোট ৪১টি মামলা ছিল। সর্বশেষ গত ২৮ এপ্রিল চট্টগ্রামের হাটহাজারী থানায় দায়ের করা একটি মামলায় জামিন পাওয়ার মাধ্যমে তিনি কারাগার থেকে মুক্তি পান। তার মুক্তি পাওয়ার পর ‘মুক্তি দিয়ে আবারও গ্রেপ্তার মামুনুল হক’ শীর্ষক শিরোনাম থাম্বনেইলে উল্লেখপূর্বক একটি ভিডিও ইউটিউবে প্রচার করা হয়েছে।

মামুনুল হক

আস-সুন্নাহ টিভি নামে একটি চ্যানেল থেকে প্রচারিত ভিডিওটি দেখুন এখানে (আর্কাইভ)

এই প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়া অবধি ভিডিওটি দেখা হয়েছে ১৯ হাজারেরও অধিক বার।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, গত ০৩ মে কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়ার পর মাওলানা মামুনুল হককে আবারও গ্রেফতার করা হয়নি বরং, অধিক ভিউ পাওয়ার আশায় চটকদার থাম্বনেইল ব্যবহার করে আলোচিত ভিডিওটি তৈরি করা হয়েছে।

অনুসন্ধানের শুরুতে আলোচিত ভিডিওটি পর্যবেক্ষণ করে ভিডিওটিতে কোথাও মুক্তি দিয়ে আবারও গ্রেফতার মামুনুল হক দাবি সম্পর্কিত সংবাদ বা তথ্য উপস্থাপন করতে দেখা যায়নি। এমনকি ভিডিওটিতে আলোচিত দাবির সাথে প্রাসঙ্গিক কোনো তথ্যেরও উল্লেখ পাওয়া যায়নি। অর্থাৎ ভিডিওটি’র থাম্বনেইলে প্রচারিত দাবিটির সাথে বিস্তারিত অংশের অসামঞ্জস্যতা রয়েছে। ৮ মিনিট ৪১ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে দুইটি ভিন্ন ভিন্ন ভিডিও দেখিয়ে উক্ত দাবিটি উপস্থাপন করা হয়েছে। 

ভিডিওর শুরুতে ‍দুটি ফুটেজ দেখিয়ে উপস্থাপক একজন বলেন, ‘দর্শক, আল্লামা মামুনুল হক সাহেবকে আবারও জেলে বন্দি করতে পারে এইরকম কিছু তথ্য এবং, আপনারা জানেন ডিবি পুলিশ হারুন সাহেব সাংবদিকের কাছে মানে সাংবাদিক সম্মেলনে আসছে এবং মামুনুল হক সাহেবকে সতর্কবার্তা দিয়েছেন যেকোনো সময় নাকি আবারও গ্রেফতার হতে পারে।’

এরপর তিনি শুরুতে দেখানো ভিডিওটি কিছু অংশ দেখিয়ে মুক্তির পর মামুনুল হকের দেওয়া একটি বক্তব্য দেখান।

সম্প্রতি জামিন পাওয়ার পর মাওলানা মামুনুল হক একটি বক্তব্য দেন। সেই বক্তব্যের প্রেক্ষিতেই ভিডিওটি তৈরি করা হয়েছে। বক্তব্যে মাওলানা মামুনুল হক বলেন, ‘আমাদের ওপর জুলুম করা হয়েছে এটাকে আমরা সহ্য করে নিলাম। আমাদের ভাইদেরকে হত্যা করা হয়েছে সেটাও সহ্য করে নিলাম। আমরা আমার সন্তানের লাশ কাধেঁ তুলে নিয়েছি সেটাকেও আমি হাসি মুখে বরণ করে নিলাম। আমাদেরকে আপমান এবং লাঞ্চনার সব ধরনের ষড়যন্ত্রের সম্মুখীন হতে হয়েছে সেটাও আমরা হাসি মুখে বরণ করে নিয়েছি কিন্তু আল্লাহর এই জমিনে আল্লাহ ও রাসূলের কোনো অসম্মান এক মূহুর্তের জন্য বরদাসত করা হবে না। আমরা আমাদের  সর্বোচ্চচ ত্যাগ এবং কুরবানি স্বীকার করতে প্রস্তুত রয়েছি। জীবন দিতে প্রস্তুত রয়েছি। আল্লাহর এই জমিনে আল্লাহর ঝান্ডা সমুন্নত করেই আমাদের যাত্রা থামবে ইনশা-আল্লাহ। হয়তো শাহাদত, নয়তো খেলাফত ইনশা-আল্লাহ।’

ভিডিও যাচাই ০১

ভিডিওতে বলা হয়, ভিডিওটি দেইখ্যা আমি নিজেও একটু টাস্কি খাইয়্যা রইছি। মাত্র বেচারা জেল থেকে বের হইছেন, তো জেল থেকে বের হইয়্যা আইসাই এই ধরনের বক্তব্য দিইয়্যা কি আবার জেলে যাবেন? কোথাও না কোথাও আমরা দেখছি জেল থেকে যে হুজুররা বের হইছেন…

এই বিষয়ে যে ভিডিওটি দেখানো হয়েছে তা ইউটিউবার নাইম এর ইউটিউব চ্যানেল NAYEEM ELLI 2 এ চলতি মাসের ৪ তারিখ ‘জেল থেকে বের হতেই একি কান্ড || মামুনুল হক কি আবারো জেলে যাবে’ শিরোনামে প্রকাশিত হয়েছিল।

Screenshot comparison: Rumor Scanner 

ভিডিওতে নাইম বলেন, ‘মামুনুল হক সাহেবের কলিজা বড় সেটা আমরা জানি মাত্র জেল গেইট থেকে বের হয়ে এই বক্তব্যটা যে দিলেন আমার একটি কনফিউশান’ এবং এইরকম বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পুরোনো ভিডিও প্রচারিত হয় উল্লেখ করে তিনি ভিডিটা আসলেই সত্য কিনা সেটা জিজ্ঞেস করেন।

অর্থাৎ, এটি একটি স্বাভাবিক মন্তব্যধর্মী ভিডিও, ভিডিওটিতে মামুনুল হক আবার গ্রেফতার হয়েছেন এমন কোনো তথ্য নেই। 

ভিডিও যাচাই ০২

ভিডিওতে বলা হয়, ভাংচুরের মামলা সহ আনেকগুলো মামলা(মামুনুল হকের বিরুদ্ধে) হয়েছে। সেই মামলাও আমরা শুনেছি..

এই বিষয়ে যে ভিডিওটি দেখানো হয়েছে তা Ekattor TV এর ইউটিউব চ্যানেলে ২০২১ সালের ১৮ এপ্রিল ‘ভাংচুর ও বক্তব্য দেওয়ার মামলায় মামুনুলকে গ্রেফতার: পুলিশ’ শিরোনামে প্রকাশিত হয়েছিল।

Screenshot comparison: Rumor Scanner 

ভিডিওটিতে তৎকালীন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসি হারুন অর রশিদ বলেন, ২০২০ সালের মোহাম্মদপুর থানার একটি মামলা যেটা নিয়ে আমরা তদন্ত করছিলাম । তদন্তে হেফাজত নেতা মামুনুলের সম্পৃক্ততার বিষয়টি সুস্পষ্ট হওয়ায় আমরা তাকে গ্রেফতার করেছি।

অর্থাৎ, এই ভিডিওটি সাম্প্রতিক সময়ের নয়। 

এছাড়া, আলোচিত দাবির বিষয়ে প্রাসঙ্গিক কি ওয়ার্ড অনুসন্ধানে গণমাধ্যমে দাবির সত্যতা পাওয়া যায়নি।

মূলত, দীর্ঘদিন কারাভোগেট পর গত  ৩ মে কাশিমপুর কারাগার থেকে মুক্তি পাননহেফাজতে ইসলামের বিলুপ্ত কমিটির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক। তার বিরুদ্ধে ঢাকায় এবং ঢাকার বাইরে হওয়া প্রায় ৪১ টি মামলার মধ্যে সর্বশেষ গত ২৮ এপ্রিল চট্টগ্রামের হাটহাজারী থানায় দায়ের করা একটি মামলায় জামিন পাওয়ার মাধ্যমে তিনি কারাগার থেকে মুক্তি পান। তার মুক্তির পরবর্তী সময়ে তাকে  আবারও গ্রেফতার করা হয়েছে বলে একটি তথ্য ইউটিউবে ছড়িয়ে পড়ে। তব অনুসন্ধানে জানা যায়, দাবিটি সঠিক নয়। প্রকৃতপক্ষে গত ০৩ মে কারামুক্তির পর মাওলানা মামুনুল হককে আবার গ্রেফতার করা হয়নি।

সুতরাং, মুক্তি দিয়ে আবারও  মাওলানা মামুনুল হককে গ্রেফতার করা হয়েছে দাবিতে প্রচারিত তথ্যটি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img