শুক্রবার, সেপ্টেম্বর 22, 2023
spot_img

চিতা-হরিণের ছবিসহ প্রচারিত গল্পটি ভুয়া

সম্প্রতি, “হরিণটার চোখে কোন ভয় দেখতে পাচ্ছেন? এ ছবিটা শ্রেষ্ঠ ছবির পুরস্কার পেয়েছে। ফটোগ্রাফার ছবিটা তোলার পর থেকে ডিপ্রেসনে চলে যান। চিতা বাঘ গুলো মা হরিণ ও তার দুই বাচ্চাকে ধাওয়া করে। মা হরিণটা খুব সহজেই চিতা বাঘগুলোর কাছে নিজেকে ধরা দেয় অথচ সে দৌড়ে পালিয়ে যেতে পারতো কিন্তু সে তা না করে নিজেকে বলি দেয়, যাতে তার বাচ্চা দুটো পালিয়ে যেতে পারে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে চিতা বাঘগুলোর খাবারে পরিনত হওয়া মা হরিণটি তার বাচ্চাদের দূরে নিরাপদে পালিয়ে যাওয়া অবধি তাকিয়েই আছেন । – মা তো মা ই! পৃথিবীর ইতিহাসে মা একটি পবিত্র নাম” শীর্ষক শিরোনামে একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

চিতা

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে। আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, আলোচিত গল্পটি সম্পূর্ণ বানোয়াট এবং উক্ত গল্পের সাথে সংযুক্ত ছবিটির ফটোগ্রাফারের ডিপ্রেশনে যাওয়ার তথ্যটিও ভুয়া।

মূলত, ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসে কেনিয়ার মাসাইমারাতে ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার অ্যালিশন বাটিজিয়েগ ছবিটি ক্যামেরাবন্দী করে তার ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেন এবং ক্যাপশনে লিখেন “নারাশা নামের মা চিতা বাঘটি তার শাবকদের শিকার ধরার কৌশল শেখাচ্ছিল; শিকারকে কীভাবে নাস্তানবুদ করতে হবে তারই প্রশিক্ষন দেওয়ার চেষ্টা করছিল মা চিতাবাঘ নারাশা। বারবার মা চিতা নারাশা তার শাবকদের শিখিয়ে দিলেও বারবার ব্যর্থ হচ্ছিলো তারা। তিনি শিকারের দৃশ্যটির প্রতিটি ধাপ ক্যামেরাবন্দি করেন যদিও কয়েক মুহুর্তে পরেই ওই ইম্পালাকে ধরাশায়ী করেছিল চিতা শাবকরা তাদের অপরিপক্ক কৌশলেই।”

এছাড়া ২০১৭ সালে ছবিটির ফটোগ্রাফারের ডিপ্রেশনে চলে যাওয়ার ভুয়া দাবিটি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়লে অ্যালিশন তার ফেসবুক পেজে উক্ত ছবিটি সংযুক্ত করে একটি পোস্টের মাধ্যমে লিখেন “এই ভুয়া গল্প সহ ছবিটি লক্ষাধিকবার বিভিন্ন সোশাল মিডিয়ায় শেয়ার করা হচ্ছে। আমি লক্ষাধিক মেসেজের বন্যায় ভেসে যাচ্ছি। আমাকে জিজ্ঞেস করা হচ্ছে আমি কি ‘অবসাদগ্রস্ত ফটোগ্রাফার’। আমাকে লিঙ্কডইনে ট্যাগ করা হচ্ছে ভুয়া রটনায় যা আমার পেশার দফারফা করতে চলেছে। কি বিষাক্ত পৃথিবীতে বাস করি আমরা। বোকা ধোকাবাজ লোকজন পাগলের মত ফেক নিউজ ছড়াচ্ছে।’’
আলোচিত গল্পটি ইন্টারনেটে দীর্ঘ কয়েকবছর যাবৎ প্রচারিত হচ্ছে এবং ২০২১ সালেও এটি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে রিউমর স্ক্যানার টিম এটিকে মিথ্যা হিসেবে শনাক্ত করে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

RS Team
RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img