বুধবার, জুলাই 24, 2024
spot_img

StopNCII ইন্টারনেটের সকল মাধ্যম থেকে আপত্তিকর ছবি-ভিডিও সরাতে সক্ষম নয়

StopNCII নামের একটি ওয়েবসাইটের বিষয়ে অন্তত গত বছর থেকে বিভিন্ন তথ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার হয়ে আসতে দেখা যাচ্ছে। এ সংক্রান্ত পোস্টগুলোতে দাবি করা হচ্ছে, যদি কেউ AI বা ফটোশপ দিয়ে আপনার ছবি এডিট করে nude ছবি তৈরি করে তাহলে আপনি stopncii ওয়েবসাইটে গিয়ে আসল ছবি আর এই এডিটেড ছবি জমা দিবেন, তাহলেই তারা ইন্টারনেট এর যত জায়গায় এই এডিটেড ছবি আছে তা সরিয়ে দিবে। এর জন্য আপনার কারো সাথে সরাসরি কথা ও বলা লাগবে না। নিজের পরিচয় ও গোপন থাকবে।

উক্ত দাবিতে সাম্প্রতিক সময়ে ফেসবুকে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ)।

একই দাবিতে ২০২৩ সালের ফেসবুক পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ)। 

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, স্টপএনসিআইআই (stopncii) ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ইন্টারনেটের সকল মাধ্যম থেকে ছবি সরানো যায় না বরং নির্দিষ্ট কিছু পার্টনার প্রতিষ্ঠানে থাকা আপত্তিকর ছবি-ভিডিও সরানো গেলেও এই প্রকল্পের নানা সীমাবদ্ধতার কারণে অনেক ক্ষেত্রেই এই সেবা কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারছে না৷ 

ইংরেজি Stopncii শব্দটির পূর্ণরূপ Stop Non-Consensual Intimate Image Abuse যার বাংলা অনুবাদ করলে দাঁড়ায় অ-সম্মতিমূলক অন্তরঙ্গ চিত্র অপব্যবহার বন্ধ করুন। যুক্তরাজ্যভিত্তিক এই উদ্যোগের পেছনে রয়েছে দাতব্য সংস্থা সাউথ ওয়েস্ট গ্রিড ফর লার্নিং (SWGfL)। ২০০০ সালে চালু হওয়া সংস্থাটি ২০১৫ সালে রিভেঞ্জ পর্ণ হেল্পলাইন (RPH) নামে একটি প্রকল্প চালু করে যার অধীনে ২০১৮ সালে স্টপএনসিআইআই এর যাত্রা শুরু।   

স্টপএনসিআইআই এর ওয়েবসাইট থেকে জানা যায়, ইমেজ হ্যাশিং পদ্ধতির মাধ্যমে তারা অনলাইন থেকে ছবি সরানোর কাজ করে থাকে। ইমেজ হ্যাশিং এমন এক প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে একটি অ্যালগরিদম ব্যবহার করে একটি ছবি বা স্থিরচিত্রের একটি মৌলিক হ্যাশ ভ্যালু তৈরি করা হয়। সংশ্লিষ্ট ছবিটির সকল কপি এই হ্যাশ ভ্যালুর আওতায় চলে আসে। এজন্য এটিকে কখনও কখনও ডিজিটাল ফুটপ্রিন্টও বলা হয়। স্টপএনসিআইআই কর্তৃপক্ষ পরবর্তীতে সংশ্লিষ্ট হ্যাশ তাদের পার্টনারদের কাছে পাঠায়। পার্টনাররা তাদের প্লাটফর্ম থেকে ছবিটি সরাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে থাকে৷ 

স্টপএনসিআইআই এর বর্তমানে চার ধরণের পার্টনার রয়েছে। ইন্ড্রাস্ট্রি পার্টনারস, গ্লোবাল নেটওয়ার্ক অফ পার্টনারস, এক্সপার্ট পার্টনারস এবং সাপোর্টারস। এর মধ্যে ইন্ড্রাস্ট্রি পার্টনারস যারা তারাই মূলত তাদের প্লাটফর্ম থেকে সংশ্লিষ্ট ছবিটি সরিয়ে ফেলার কাজ করে৷ এই পার্টনাররা হলো ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, থ্রেড, টিকটক, বাম্বল, পর্ণহাব, রেডডিট, অনলি ফ্যানস, স্ন্যাপ ইন., নিয়ানটিক। 

এ বিষয়ে জানতে রিউমর স্ক্যানার টিম সরাসরি সাউথ ওয়েস্ট গ্রিড ফর লার্নিং (SWGfL) কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করেছে। তারা বলছেন, তাদের সেবা বর্তমানে ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, থ্রেড, টিকটক, বাম্বল, রেডডিট, অনলি ফ্যানস, স্ন্যাপ ইন. এবং আয়লোর মধ্যেই সীমাবদ্ধ। তারা এটাও মনে করিয়ে দিয়েছেন যে, এসব পার্টনারদের প্লাটফর্মে পাবলিশ পোস্টে সংশ্লিষ্ট ছবি-ভিডিও থাকলেই তা সরাতে পারে পার্টনাররা। তবে ব্যক্তিগত পর্যায়ে যেমন ফেসবুক মেসেঞ্জার বা ইন্সটাগ্রাম ইনবক্সে এসব ছবি-ভিডিও থাকলে তা সরানো সম্ভব হয় না। 

একইসাথে এটাও বলছেন যে, পার্টনার প্লাটফর্ম থেকে ছবি-ভিডিওগুলো সরানো গেলেও সংশ্লিষ্টদের ডিভাইস বা গ্যালারিতে সেসব থেকে যায়। তা সরানো সম্ভব নয়৷ 

স্টপএনসিআইআই এর প্রশ্ন-উত্তর সেকশন থেকে এই ব্যবস্থার আরেকটি সীমাবদ্ধতা সম্পর্কে জানা যায়। স্টপএনসিআইআই কর্তৃপক্ষ বলছে, যখন কেউ তাদের ওয়েবসাইটে কোনো ছবি বা ভিডিও সরাতে আবেদন করে তখন সংশ্লিষ্ট পার্টনার প্লাটফর্ম থেকে সাবমিট করা ছবি-ভিডিওর সাথে হুবহু মিল থাকা ছবি-ভিডিওগুলোই সরাতে পারেন তারা। তবে উক্ত ছবি-ভিডিও যদি ক্রপ করে, সম্পাদনাট করে বা ফিল্টারের মাধ্যমে প্রচার করা হয় তাহলে তা সরানো যায় না হুবহু মিল না থাকায়৷ তাছাড়া, একবার ছবি ও ভিডিও সরিয়ে ফেলা হলে আবার যদি কেউ তা প্রকাশ করে সেক্ষেত্রেও সেটি একই হ্যাশের আওতায় সরানো যায় না৷ সেটি আলাদা হ্যাশের মাধ্যমে সরাতে হয়। 

Screenshot: Facebook 

মূলত, স্টপএনসিআইআই (StopNCII) নামের একটি ওয়েবসাইট ইন্টারনেটের সকল উৎস থেকে অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি বা ভিডিও সরাতে কাজ করে শীর্ষক একটি দাবি প্রচার হয়ে আসলেও রিউমর স্ক্যানারের অনুসন্ধানে এর সত্যতা মেলেনি। প্রকৃতপক্ষে, বর্তমানে ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, থ্রেড, টিকটক, বাম্বল, রেডডিট, অনলি ফ্যানস, স্ন্যাপ ইন. এবং আয়লোর পাবলিক পোস্ট থেকে আবেদনের ভিত্তিতে ছবি-ভিডিও সরানো গেলেও ব্যক্তিগত পর্যায়ে যেমন ফেসবুক মেসেঞ্জার বা ইন্সটাগ্রাম ইনবক্স থেকে এসব ছবি-ভিডিও সরানো যায় না৷ তাছাড়া, পার্টনার প্লাটফর্ম থেকে ছবি-ভিডিওগুলো সরানো গেলেও সংশ্লিষ্টদের ডিভাইস বা গ্যালারিতে সেসব থেকে যায়। তা সরানো সম্ভব নয়৷ এছাড়া, যখন কেউ তাদের ওয়েবসাইটে কোনো ছবি বা ভিডিও সরাতে আবেদন করে তখন সংশ্লিষ্ট পার্টনার প্লাটফর্ম থেকে সাবমিট করা ছবি-ভিডিওর সাথে হুবহু মিল থাকা ছবি-ভিডিওগুলোই সরাতে পারেন তারা। তবে উক্ত ছবি-ভিডিও যদি ক্রপ করে, এডিট করে বা ফিল্টারের মাধ্যমে প্রচার করা হয় তাহলে তা সরানো যায় না হুবহু মিল না থাকায়৷ একবার ছবি ও ভিডিও সরিয়ে ফেলা হলে আবার যদি কেউ তা প্রকাশ করে সেক্ষেত্রেও সেটি একই হ্যাশের আওতায় সরানো যায় না৷ সেটি আলাদা হ্যাশের মাধ্যমে সরাতে হয়।

সুতরাং, StopNCII ইন্টারনেটের সকল মাধ্যমে থেকে আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও সরাতে পারে শীর্ষক দাবি ইন্টারনেটে প্রচার করা হচ্ছে; যা বিভ্রান্তিকর।

তথ্যসূত্র

  • Stopncii: Website 
  • Statement from SWGfL Authority
  • Rumor Scanner’s own analysis 
RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img