মঙ্গলবার, জুলাই 23, 2024
spot_img

ঢাবির রং উৎসবে বক্তব্য দিয়ে ভাইরাল শিক্ষার্থীকে গণধোলাইয়ের গুজব

গত ২৮ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের আয়োজনে রং উৎসবে অংশ নেয় শিক্ষার্থীরা। সেদিন জাতীয় দৈনিক যায়যায়দিন পত্রিকার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের অ্যাকাউন্টগুলোতে এই আয়োজনের একটি ভিডিওতে থাকা এক শিক্ষার্থীর রোজার মধ্যে রং উৎসবের মতামত সম্বলিত বক্তব্য ভাইরাল হয়। এরমধ্যে গতকাল (৩০ মার্চ) বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের প্রবেশ ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড চালানোর অভিযোগে দ্বিতীয় দিনের মতো বিক্ষোভের ঘটনা ঘটেছে। পরবর্তীতে রাতে রং উৎসবে অংশ নেওয়া আলোচিত সেই শিক্ষার্থী বুয়েটে গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন দাবিতে তার রং উৎসবের সময়ের ছবি এবং তার আরেকটি ছবি দাবিতে ছেঁড়া জামায় রক্তাক্ত একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। এসব পোস্টে দুই ছবিতে একই ব্যক্তি রয়েছে দাবি করে কোথাও তাকে নকিব আশরাফ, কোথাও বা ইশরাক বলে সম্বোধন করা হয়েছে।

ঢাবির রং

এ সংক্রান্ত পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ)। 

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, ঢাবির রং উৎসবে গণমাধ্যমে ALLAH will understand বলে ভাইরাল শিক্ষার্থী গণধোলাইয়ের শিকার হননি বরং নকিব আশরাফ নামে একজন ছাত্রনেতার ২০২৩ সালের ভিন্ন ঘটনার একটি ছবি ব্যবহার করে উক্ত দাবিটি প্রচার করা হয়েছে। 

এ বিষয়ে অনুসন্ধানের শুরুতে ছড়িয়ে পড়া পোস্টগুলোতে থাকা নামের সূত্রে (নকিব আশরাফ) ফেসবুকে একই নামের একটি অ্যাকাউন্টে একটি পোস্ট খুঁজে পায় রিউমর স্ক্যানার। জনাব নকিব এই বিষয়টিকে তার পোস্টে গুজব বলে আখ্যায়িত করেন। তার পোস্টের কমেন্টে তিনি আরও উল্লেখ করেন, ডান পাশের ছবিটা তার। গত বছর গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে প্রচারণা চলাকালীন সময়ে সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের গাড়িতে হামলার সময়ে তিনি গাড়িতেই মেয়রের প্রটোকলে দাঁড়ানো ছিলেন। তখন হামলাকারীরা তার উপরও আক্রমণ করে। সে সময়ের ছবি এটি। 

Screenshot: Facebook 

আমরা এই তথ্যের সূত্রে ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টারের একটি সংবাদ প্রতিবেদন থেকে জানতে পারি, সে বছরের ২০ মে টঙ্গী রেলগেট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এতে নকিব ছাড়াও আহত হন আরও তিনজন। 

পরবর্তীতে ফেসবুকে একইদিন (২০ মার্চ) প্রকাশিত একটি ভিডিও ফুটেজে আলোচিত দৃশ্যটির সন্ধান মেলে। এই পোস্টের ক্যাপশন থেকেও জানা যাচ্ছে, উক্ত ব্যক্তির নাম নকিব আশরাফ এবং তিনি সেসময় হামলার শিকার হয়েছিলেন। 

Screenshot: Facebook 

নকিব আশরাফ রাজধানীর নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী এবং ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সক্রিয়।

রিউমর স্ক্যানার টিম নিশ্চিত হয়েছে যে নকিব আশরাফ এবং রং উৎসবের আলোচিত ব্যক্তি দুইজন ভিন্ন ভিন্ন ব্যক্তি। রং উৎসবের ভাইরাল ব্যক্তির নামও নকিব আশরাফ নয়। রিউমর স্ক্যানারের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি সানজানা জেবিন ছোঁয়ার সহায়তায় রং উৎসবের ভাইরাল ব্যক্তির পরিচয় নিশ্চিতে সমর্থ হই আমরা। ভাইরাল ব্যক্তি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের একজন শিক্ষার্থী। (নিরাপত্তাজনিত কারণে বিস্তারিত পরিচয় প্রকাশ করা হলো না)

দাবিটির সূত্রপাত কীভাবে?

গতকাল সন্ধ্যায় আহনাফ তাহমিদ অর্জন নামে এক ব্যক্তি নকিবের ছবির সাথে তুলনা করে আরেক ব্যক্তির ছবি পোস্ট করে লিখেন, “বুয়েটে বাটাম খেলো ইশরাক।” আমাদের যাচাইয়ে দেখা যায়, উক্ত ব্যক্তির নাম মোহাম্মদ ইশরাক। 

Comparison by Rumor Scanner

রিউমর স্ক্যানারের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে, ইশরাকের সাথে নকিবের চেহারার দৃশ্যমান মিল থাকায় দুটো ছবি জোড়া দিয়ে তুলনার চেষ্টা করা হয়েছে। এই পোস্টটিই পরবর্তীতে রং উৎসবের ব্যক্তিটিকে জড়িয়ে বিবর্তিত রূপ পেয়েছে। এই বিষয়টি ভাইরাল হওয়ার ক্ষেত্রে এখানেও চেহারার দৃশ্যমান মিল কাজ করেছে বলে মনে করছে রিউমর স্ক্যানার। 

মূলত, বুয়েটে শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনের মধ্যে ছাত্রনেতা নকিব আশরাফের একটি ছবি প্রকাশ করে তাকে গতকাল গণধোলাই দেওয়া হয়েছে দাবি করা হলেও রিউমর স্ক্যানারের যাচাইয়ে দেখা যায়, ভাইরাল হওয়া ছবিটি ২০২৩ সালের ২০ মে টঙ্গীতে গাজীপুরের সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীরের মা জায়েদা খাতুনের নির্বাচনী প্রচারণার সময়কার। তাছাড়া, রং উৎসবের ভাইরাল ভিডিওর শিক্ষার্থীও নকিব আশরাফ নন।

সুতরাং, ভিন্ন ব্যক্তির পুরোনো ছবি ব্যবহার করে ঢাবির রং উৎসবে বক্তব্য দিয়ে ভাইরাল শিক্ষার্থী গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন শীর্ষক একটি দাবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়েছে; যা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img