বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দীনের নাম উদ্ধৃত করে বিভ্রান্তিকর বক্তব্য প্রচার

সম্প্রতি “সে (সাকিব আল হাসান) আমার ছেলের বয়সী। তো ছেলের বয়সী একজনের সামনে নিয়ে আমাকে দ্বিতীয় সেরার পুরস্কার দেওয়াকে আমি অপমানের সহিত দেখি” শীর্ষক শিরোনামের একটি বক্তব্য বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দীনের  নাম উদ্ধৃত করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচারিত হচ্ছে। 

ফেসবুকে প্রচারিত এরকম কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে। 
পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে। 

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দীন উক্ত মন্তব্য করেন নি বরং উক্ত ঘটনায় তার বক্তব্যকে বিকৃতভাবে প্রচার করা হচ্ছে।

কি ওয়ার্ড সার্চের মাধ্যমে, BSPA নামক ফেসবুক পেজে গত ২ জানুয়ারি “বিএসপিএ’র ৬০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে সম্মাননা পাওয়ার আগে-পরে যা বলেছিলেন কাজী সালাহউদ্দিন।” শীর্ষক শিরোনামের একটি ভিডিও পাওয়া যায়। ১৯ মিনিট ২ সেকেন্ডের ভিডিওটি পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, ক্রীড়া সাংবাদিকদের সংগঠন  Bangladesh Sports Press Association এর ৬০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে খেলাধুলায় অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ সেরা দশজন ক্রীড়াবিদকে পুরস্কৃত করা হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ক্রিকেট তারকা সাকিব আর হাসানকে প্রথম পুরস্কার প্রদান এবং সাবেক ফুটবলার ও বর্তমান বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দীনকে দ্বিতীয় পুরস্কার প্রদান করা হয়।

ভিডিওর ১ মিনিট ২০ সেকেন্ড সময়ে পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে কাজী সালাউদ্দীনকে উপস্থাপক প্রশ্ন করেন, যদি তিনি (কাজী সালাউদ্দিন) তৃতীয় পুরস্কার পান তাহলে কি হবে। উত্তরে কাজী সালাউদ্দীন বলেন, Whatever happen, will happen. অর্থাৎ যেটা হবার, সেটাই হবে।

অর্থাৎ পুরস্কার প্রদানের পূর্ববর্তী সময়ে কাজী সালাউদ্দীন পুরস্কার প্রদান সম্পর্কে সাকিব আল হাসানকে নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে দেখা যায় নি।

পরবর্তীতে, ভিডিওর ১২ মিনিট ২০ সেকেন্ডে পর্যায়ক্রমে প্রথম ও দ্বিতীয় পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। পুরস্কার গ্রহণের পর কাজী সালাউদ্দীন সংক্ষিপ্ত বক্তব্য প্রদান করেন। উক্ত বক্তব্যে তাকে উক্ত অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ করার জন্য ধন্যবাদ জানান। এছাড়াও তিনি বলেন, ৩৪ বছর আগে তিনি শেষ ফুটবল খেলেন। এছাড়াও সাকিব আল হাসানকে শুভকামনা জানিয়ে কাজী সালাউদ্দীন বলেন, সাকিব আল হাসান তার (কাজী সালাউদ্দিন) ছেলের চেয়েও বয়সে ছোট। এরপর সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে কাজী সালাউদ্দীন মঞ্চ থেকে নেমে যান।

অর্থাৎ, উক্ত অনুষ্ঠানের ভিডিওটি পর্যবেক্ষণ করে কোথাও কাজী সালাউদ্দীনকে দ্বিতীয় পুরস্কার দেয়ায় অপমানিত বোধ করার বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে দেখা যায় নি।

এছাড়াও, মূলধারার গণমাধ্যম পর্যবেক্ষণ করে কাজী সালাউদ্দীনের উক্ত বক্তব্য কোথাও খুঁজে পাওয়া যায় নি। 

তবে, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে গত ১ জানুয়ারি কার্যনির্বাহী কমিটির ৬ষ্ঠ নিয়মিত সভার আলোচ্য বিষয় নিয়ে পোস্ট করা হয়। উক্ত পোস্টে বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস এসোসিয়েশন (বিএসপিএ) কর্তৃক প্রদত্ত পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করা হয় বলে জানায় বাফুফে। তবে পোস্টের কোথাও কাজী সালাউদ্দীনের উক্ত বক্তব্যের ভিত্তি খুঁজে পাওয়া যায় নি। 

উক্ত ঘটনায় মূলধারার গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচারিত হয়। 

তবে বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দীনের নাম উদ্ধৃত করে “সে (সাকিব আল হাসান) আমার ছেলের বয়সী। তো ছেলের বয়সী একজনের সামনে নিয়ে আমাকে দ্বিতীয় সেরার পুরস্কার দেওয়াকে আমি অপমানের সহিত দেখি” শীর্ষক বক্তব্যটি কোনোপ্রকার নির্ভরযোগ্য তথ্যসূত্র ছাড়াই ভিত্তিহীনভাবে প্রচার করা হচ্ছে। 

মূলত, গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস এসোসিয়েশনের ৬০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে ক্রীড়াঙ্গনে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ দশজন ক্রীড়াবিদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে কাজী সালাউদ্দীনকে দ্বিতীয় এবং সাকিব আল হাসানকে প্রথম পুরস্কার দেয় বিএসপিএ। পুরস্কার গ্রহণের পর সবাইকে শুভকামনা জানিয়ে কাজী সালাউদ্দীন জানান, সাকিব আল হাসান তার ছেলের চেয়েও কম বয়সী। তবে পুরস্কার গ্রহণের পরদিন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন কর্তৃক উক্ত পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করা হয়। উক্ত ঘটনায় কাজী সালাউদ্দীনের বক্তব্যকে বিকৃত করে সাকিব আল হাসানের সামনে দ্বিতীয় পুরস্কার গ্রহণ করায় অপমানিত হওয়ার দাবিতে প্রচারিত হচ্ছে। 

সুতরাং, বিএসপিএ কর্তৃক পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে কাজী সালাউদ্দীনের বক্তব্যকে বিকৃত করে প্রচার করা হচ্ছে; যা বিভ্রান্তিকর। 

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img