বৃহস্পতিবার, জুলাই 18, 2024
spot_img

জাহাজ দুর্ঘটনার পুরোনো ছবিকে সম্প্রতি হুতিদের হামলার শিকার জাহাজ দাবিতে প্রচার

গত বছরের অক্টোবরে শুরু হওয়া হামাস-ইসরায়েলের সংঘর্ষের জেরে লোহিত সাগরে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের হামলার কবলে পড়ে একাধিক কন্টেইনার জাহাজ। এরই প্রেক্ষিতে সাম্প্রতিক সময়ে ‘লোহিত সাগরে ইয়েমেনের খেলোয়াড়রা আরেকটি গোল করেছে’ শীর্ষক শিরোনামে একটি জাহাজের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হয়েছে।

হুতি

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ) এবং এখানে (আর্কাইভ)।

এই প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়া অবধি এ বিষয়ে সর্বাধিক ভাইরাল পোস্টটিতে প্রায় ৩১ হাজার পৃথক অ্যাকাউন্ট থেকে প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে। উক্ত পোস্টটি ৬ শত ৪৮ বার শেয়ার করা হয়েছে৷ পোসটটিতে মন্তব্য করা হয়েছে প্রায় ১ হাজার ৩ শত টি। পোস্টটির মন্তব্য ঘর ঘুরে অধিকাংশ নেটিজেনকে উক্ত দাবির পক্ষে প্রতিক্রিয়া জানাতে  দেখা গেছে।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, এই জাহাজটি ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের দ্বারা আটক কিংবা হামলার শিকার হয়নি বরং এটি গ্রীসের মালিকানাধীন লাইব্রেরিয়ার পতাকাবাহী কন্টেইনার জাহাজ এমভি রেনা, যেটি ২০১১ সালের ০৪ অক্টোবর নিউজিল্যান্ডের সমুদ্রসীমায় নেভিগেশন ত্রুটির ফলে দুর্ঘটনার শিকার হয়েছিল।

এ বিষয়ে অনুসন্ধানের শুরুতে রিভার্স ইমেজ সার্চের মাধ্যমে ‘All About Lean’ নামের একটি ওয়েবসাইটে ‘Rena Container Ship’ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot: All About Lean website

উক্ত প্রতিবেদনে ব্যবহৃত ছবিটির সাথে আলোচিত ছবিটির হুবহু মিল পাওয়া যায়।

Image Comparison by Rumor Scanner

উক্ত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, এই জাহাজটির নাম এমভি রেনা। এটি একটি কন্টেইনার জাহাজ। নেভিগেশন ত্রুটির ফলে ২০১১ সালের ০৪ অক্টোবর জাহাজটি নিউজিল্যান্ডের উপকূলীয় শহর তৌরাঙ্গার নিকটবর্তী অ্যাট্রোল্যাবে রিফে আটকে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে।

পরবর্তীতে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসির ওয়েবসাইটে ২০১১ সালের ১৪ নভেম্বর ‘New Zealand stricken ship Rena emptied of oil’ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনেও আলোচিত ছবিটির অনুরূপ একটি ছবি খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot: BBC

উক্ত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গ্রীসের মালিকানাধীন লাইব্রেরিয়ার পতাকাবাহী জাহাজ এমভি রেনা প্রবাল প্রাচীরে আটকে যাওয়ার পর ভেঙে যাওয়ার ঝুঁকিতে ছিল। জাহাজটি প্রাথমিকভাবে ৩৫০ টন তেল ছড়িয়ে পড়েছিল এবং সেসময় হাজারের অধিক সামুদ্রিক পাখি মারা যায়। বৈরি আবহাওয়ার কারণে সে সময় জাহাজ উদ্ধার কার্যক্রম ব্যাহত হয় এবং পরিবেশগত বিপর্যয়ের আশঙ্কা তৈরি হয়।

অর্থাৎ, উপরিউক্ত বিষয়গুলো পর্যালোচনা করলে এটা স্পষ্ট যে, আলোচিত জাহাজটি হুতিদের দ্বারা আটক বা হামলার শিকার হয়নি বরং এটি ২০১১ সালে দুর্ঘটনার শিকার জাহাজ এমভি রেনা।

মূলত, ২০১১ সালের ০৪ অক্টোবর নেভিগেশন ত্রুটির ফলে গ্রীসের মালিকানাধীন লাইব্রেরিয়ার পতাকাবাহী জাহাজ এমভি রেনা নিউজিল্যান্ডের উপকূলীয় শহর তৌরাঙ্গার নিকটবর্তী অ্যাট্রোল্যাবে রিফে আটকে যায়। পরবর্তীতে এ বিষয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়া জাহাজের ছবিসহ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়৷ সাম্প্রতিক সময়ে সেই জাহাজটির ছবি ‘লোহিত সাগরে ইয়েমেনের খেলোয়াড়রা আরেকটি গোল করেছে’ শীর্ষক শিরোনামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হয়েছে। 

উল্লেখ্য, পূর্বেও ভিডিও গেমের দৃশ্যকে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের দ্বারা ইসরায়েলের যুদ্ধজাহাজ ধ্বংসের ভিডিও দাবিতে প্রচার করা হলে সে সময় বিষয়টি নিয়ে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রিউমর স্ক্যানার।

সুতরাং, ২০১১ সালে দুর্ঘটনার শিকার জাহাজ এমভি রেনার ছবিকে সম্প্রতি ইয়েমেনের হুতিদের হামলার শিকার জাহাজের ছবি দাবিতে ফেসবুকে প্রচার করা হয়েছে; যা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img