ফরাসি ভাষা ত্যাগ করে সেনেগাল আরবি ভাষাকে সরকারি ভাষা হিসেবে ঘোষণা করেনি 

সম্প্রতি, আফ্রিকা মহাদেশের দেশ সেনেগাল ফরাসি ভাষা ত্যাগ করে আরবি ভাষাকে দেশটির দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে গ্রহণের ঘোষণা করেছে, শীর্ষক দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট প্রচারিত হচ্ছে। 

ফরাসি ভাষা

উক্ত দাবিতে ফেসবুকে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ) এবং এখানে (আর্কাইভ)। 

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, সেনেগাল সরকার ফরাসি ভাষা ত্যাগ করে আরবি ভাষাকে দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে গ্রহণ করার কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি বরং, কোনো গ্রহণযোগ্য তথ্যসূত্র ছাড়াই আলোচিত দাবিটি প্রচার করা হচ্ছে। 

এ বিষয়ে অনুসন্ধানের শুরুতে দাবিটির সূত্রপাত জানতে কি-ওয়ার্ড সার্চ করলে কিছু এক্স পোস্টে ও ওয়েবসাইটে দাবিটি দেখতে পাওয়া যায়।

এক্স পোস্টগুলোতে কোনো তথ্যসূত্র ব্যবহার না করা হলেও Nairaland, Medium, KaziNiKaziNews Rangers এর মতো কিছু ওয়েবসাইট সেনেগালের ক্যাবিনেট মিটিংকে দাবিটির স্বপক্ষে তথ্যসূত্র হিসেবে উল্লেখ করে। দাবিটির প্রচারের সময়কাল হিসেবে চলমান মে মাসের প্রথম সপ্তাহ লক্ষ্য করা যায়। এই সময়ের পূর্বে অনুষ্ঠিত হওয়া সেনেগালের সর্বশেষ ক্যাবিনেট মিটিংয়ের খোঁজ করলে গত এপ্রিল মাসের ২৪ তারিখে অনুষ্ঠিত হওয়া একটি ক্যাবিনেট মিটিংয়ের সন্ধান পাওয়া যায় যা একইসাথে এখন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হওয়া সেনেগালের সর্বশেষ ক্যাবিনেট মিটিং।

পরবর্তীতে ক্যাবিনেটে আলোচিত হওয়া বিষয় সম্পর্কে জানতে ইংরেজি কি-ওয়ার্ড সার্চ করলে কোনো সংবাদ পাওয়া যায়নি। কি-ওয়ার্ডকে ফরাসি ভাষায় ভাষান্তরিত করে অনুসন্ধান করলে জাপানে অবস্থিত সেনেগালের দূতাবাসের ওয়েবসাইট, সেনেগালের সরকারি তথ্য অফিসের ওয়েবসাইট এবং সেনেগালের সংবাদমাধ্যম Senego এর ওয়েবসাইটে এ বিষয়ে প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়৷ 

প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গত ২৪ এপ্রিল তারিখে সেনেগালের প্রেসিডেন্ট বাসিরোউ ডিওমায়ে ডিয়াখার ফায়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হওয়া উক্ত ক্যাবিনেট মিটিংয়ে সেনেগালের ক্যাবিনেট জীবনযাত্রার ব্যয় কমাতে গ্রহণ করা পদক্ষেপ, বিশেষ কিছু খাদ্যবস্তুর প্রতি সার্বক্ষণিক নজরদারি, বাসা ভাড়ার খরচ কমানোসহ নানা বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা করেন। জীবনযাত্রার উচ্চ ব্যয়ের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সেনেগালের প্রেসিডেন্ট সেনেগালের প্রধানমন্ত্রী, বাণিজ্য ও শিল্প, অর্থ ও বাজেট এবং কৃষির দায়িত্বে থাকা মন্ত্রীবর্গদেরকে আগামী ১৫ মে তারিখের মধ্যে একটি কর্মক্ষম ইমার্জেন্সি পরিকল্পনা প্রস্তাবের নির্দেশ প্রদান করেন। স্থানীয় পণ্যের অগ্রগতি নিশ্চিত করতেও পদক্ষেপ নেওয়া হয়৷ এছাড়াও, জীবনমান উন্নয়নে আরো বেশ কিছু বিষয়েও সেই ক্যাবিনেট মিটিংয়ে আলোচনা করা হয়। 

উক্ত ক্যাবিনেটে ফরাসি ভাষা ত্যাগ করে আরবি ভাষাকে দাপ্তরিক বা সরকারি ভাষা বানানোর পক্ষে কোনো আলোচনা কিংবা প্রস্তাব উত্থাপিত হয়নি।

তবে, আরবি ভাষা নিয়ে অন্য আরেকটি বিষয়ে উক্ত ক্যাবিনেট মিটিংয়ে আলোচনা করা হয়েছে। যুব কর্মসংস্থানকে উন্নীত করার নীতি পর্যবেক্ষণ এবং ফরাসি ও আরবিতে পড়াশোনা করা তরুণ গ্র্যাজুয়েটদেরকে দ্রুত পেশাদার একীভূতকরণ নিশ্চিত করার জন্য পদক্ষেপ বাস্তবায়নের প্রতি সেনেগালের প্রেসিডেন্ট নির্দেশ দেন। 

Screenshot : Ambassade du Sénégal au Japon

উল্লেখ্য যে, বর্তমানে প্রায় ৩৯টি ভাষাভাষী দেশ সেনেগালের শতকরা প্রায় ৮০ ভাগ জনগোষ্ঠী তাদের মাতৃভাষা বা দ্বিতীয় কিংবা তৃতীয় ভাষা হিসেবে উলোফ ভাষায় কথা বললেও ফ্রান্সের থেকে স্বাধীনতা পাওয়ার পর থেকেই সেনেগালের একমাত্র দাপ্তরিক ভাষা ফরাসি।

মূলত, গত এপ্রিলের ২৪ তারিখে আফ্রিকার দেশ সেনেগালের প্রেসিডেন্টের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হওয়া সেনেগালের ক্যাবিনেট মিটিংয়ে জীবনমান উন্নয়নের বিষয়ে নানা আলোচনা করা হয়৷ তাছাড়া ফরাসি এবং আরবি ভাষায় পড়াশোনা করা নাগরিকদের জন্য পরিকল্পনা নিয়েও আলোচনা করা হয়। সেই ক্যাবিনেট মিটিংকে তথ্যসূত্র হিসেবে ব্যবহার করে সেনেগাল ফরাসি ভাষা ত্যাগ করে নিজেদের দাপ্তরিক বা সরকারি ভাষা হিসেবে আরবিকে গ্রহণ করেছে মর্মে দাবি প্রচারিত হচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে উক্ত ক্যাবিনেটে ফরাসি ভাষা ত্যাগ করে আরবি ভাষাকে সেনেগালের দাপ্তরিক ভাষা করার বিষয়ে কোনো আলোচনাই হয়নি।

সুতরাং, সেনেগালের ফরাসি ভাষা ত্যাগ করে দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে আরবি গ্রহণ করার দাবিটি মিথ্যা। 

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img