মহিউদ্দিন রনির বাড়ি থেকে ২৬ কোটি টাকা উদ্ধারের দাবিটি মিথ্যা

সম্প্রতি “র‍্যাবের অভিযানে মহিউদ্দিন রনির বাড়ি থেকে ২৬ কোটি টাকা উদ্ধার!” শীর্ষক শিরোনামে একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। 

ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে,এখানে এবং এখানে। পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে , এখানে এবং এখানে

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, র‍্যাবের অভিযানে মহিউদ্দিন রনির বাড়ি থেকে ২৬ কোটি টাকা উদ্ধার করা হইয়েছে শীর্ষক শিরোনামের সাথে সংযুক্ত ভিডিওটির কোনো সমঞ্জস্যতা নেই বরং এটি ক্যাসিনোকাণ্ডে গ্রেফতাকৃত এনামুল হক এনু ও তার ভাই রুপন ভূঁইয়ার বাড়ি থেকে র‍্যাবের অভিযানে নগদ সাড়ে ২৬ কোটি টাকা উদ্ধার করার ভিডিও। 

কী-ওয়ার্ড অনুসন্ধানের মাধ্যমে, দেশের মূল ধারার গণমাধ্যম এটিএন বাংলার অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে ২০২০ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত ভিডিওর সাথে আলোচিত ভিডিওর মিল খুঁজে পাওয়া যায়। 

ভিডিওটিতে উল্লেখ করা হয়, সাড়ে ২৬ কোটি টাকা ছাড়াও তাদের বাড়ি থেকে ৫ কোটি ১৫ লাখ টাকার এফডিআরের কাগজপত্র, মোটা অঙ্কের বৈদেশিক মুদ্রা ও প্রায় এক কেজি ওজনের স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করা হয়। 

এছাড়াও, মূলধারার গণমাধ্যম যুগান্তরের ওয়েবসাইটে ২০২০ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি এনু-রুপনের ‘টাকার গোডাউনে’ অভিযান: সিন্দুকে ২৭ কোটি টাকা শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়। 

প্রতিবেদনটিতে উল্লেখ করা হয়, ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে র‌্যাব-৩ এর একটি দল সোমবার রাত সাড়ে ১২টায় পুরান ঢাকার ১১৯/১ লাল মোহন সাহা স্ট্রিটে মমতাজ ভিলায় অভিযান শুরু করে। মঙ্গলবার দুপুর দেড়টা পর্যন্ত টানা ১২ ঘণ্টা চলে শ্বাসরুদ্ধকর এ অভিযান। র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমের নেতৃত্বে এ অভিযান শুরু হয়।

এনামুল হক এনু ও তার ভাই রুপন ভূঁইয়ার ব্যাপারে অনুসন্ধান করতে গিয়ে এই বাড়ির সন্ধান পায় র‍্যাব। পুরান ঢাকার নারিন্দার লাল মোহন সাহা স্ট্রিটে  ছয়তলা বিশিষ্ট এই বাড়িটি অবস্থিত ছিল। 

এছাড়াও, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া আলোচিত ভিডিওর শুরু থেকে ৯ সেকেন্ড পর্যন্ত র‍্যাবের অভিযানের ভিডিও দেখানো হয়, কিন্তু সেখানে মহিউদ্দিন রনির নামের উল্লেখ্য পাওয়া যায়নি। এরপর ভিডিওর ১০ সেকেন্ডে DR FAYZUL HAQ নামের এক ব্যক্তির মহিউদ্দিন রনিকে নিয়ে দেয়া বক্তব্যের খণ্ডিত অংশ দেখানো হয় কিন্তু সেখানে নির্দিষ্ট করে রনির বাড়িতে র‍্যাবের অভিযানের কথা তিনি উল্লেখ্য করেননি। কিন্তু উপস্থাপক কোন প্রমাণ ছাড়াই বারবার রনির বাড়ি থেকে র‍্যাবের ২৬ কোটি টাকা উদ্ধারের কথা উল্লেখ্য করেন। এরপর ভিডিওর ৫৫ সেকেন্ড থেকে ৬ মিনিট ৩২ সেকেন্ড পর্যন্ত আবার FAYZUL HAQ এর বক্তব্য দেখানো হয়েছে। কিন্তু এখানেও রনির বাড়ি থেকে ২৬ কোটি টাকা উদ্ধারের কোনো উল্লেখ্য পাওয়া যায়নি। ৬ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড থেকে এনামুল হক এনু ও তার ভাই রুপন ভূঁইয়ার বাড়ি থেকে নগদ সাড়ে ২৬ কোটি টাকা  উদ্ধার করার ভিডিও দেখানো হয়। ৮ মিনিট ৪০ সেকেন্ডের সময় তাদের নামের উল্লেখও পাওয়া যায়। 

মূলত, র‍্যাবের অভিযানে মহিউদ্দিন রনির বাড়ি থেকে ২৬ কোটি টাকা উদ্ধার করা হয়েছ এমন দাবিতে আলোচিত ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করা হলেও উক্ত ভিডিওর কোথাও মহিউদ্দিন রনির বাড়ি থেকে নগদ অর্থ উদ্ধারের কোনো দৃশ্য দেখা যায় নি। অর্থাৎ বানোয়াট শিরোনামে এনামুল হক এনু ও তার ভাই রুপন ভূঁইয়ার বাড়িতে র‍্যাবের অভিযানে চালিয়ে নগদ সাড়ে ২৬ কোটি টাকা উদ্ধার করার ভিডিওকে উক্ত দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে।

তাছাড়া বাংলাদেশের মূলধারার কোনো গণমাধ্যমে মহিউদ্দিন রনি বাসায় র‍্যাবের অভিযান সংক্রান্ত কোনো তথ্য পাওয়া যায় নি। 

প্রসঙ্গত, টাকা কাটার পরও ট্রেনের টিকিট না পেয়ে গত ৭ জুলাই থেকে ঢাকার কমলাপুর রেলস্টেশনে ৬ দফা দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মহিউদ্দিন রনি। অবশেষে গত ২৫ জুলাই রেল মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে টানা ৪ ঘণ্টার বৈঠকের পর নিজের এই কর্মসূচি স্থগিত করেন তিনি।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারি কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যায় একটি ১০ তলা বাড়িতে অভিযান চালিয়ে এনামুল হক এনু ও রুপন ভূঁইয়াকে গ্রেফতার করা হয়। 

সুতরাং,“র‍্যাবের অভিযানে মহিউদ্দিন রনির বাড়ি থেকে ২৬ কোটি টাকা উদ্ধার!” শীর্ষক শিরোনামে প্রচারিত ভিডিওটি মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

ATN Bangla News-YouTube: এটিএন বাংলা সন্ধ্যার সংবাদ | ATN Bangla News at 7 PM | 25.02.2020

যুগান্তর: এনু-রুপনের ‘টাকার গোডাউনে’ অভিযান: সিন্দুকে ২৭ কোটি টাকা

ইত্তেফাক: এনু-রুপনের বাড়িতে র‍্যাবের অভিযান, সিন্দুকভর্তি টাকা-স্বর্ণালংকার উদ্ধার

যুগান্তর: ক্যাসিনোকাণ্ডের এনু ও রুপন গ্রেফতার

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img