বৃহস্পতিবার, জুলাই 18, 2024
spot_img

স্বামীর প্রতি রাগ কমাতে মহিলাদের ক্ষোভ প্রকাশের ভিডিও দাবিতে ভিন্ন ঘটনার ভিডিও প্রচার

সম্প্রতি, স্বামীর প্রতি রাগ কমাতে মহিলারা একটি বাগানে এসে তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেন দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি ভিডিও প্রচার করা হয়েছে। 

ফেসবুকে প্রচারিত এমন পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ) এবং এখানে (আর্কাইভ)।

এই প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়া অবধি উক্ত দাবির একটি ভিডিওটি-ই প্রায় ১ লক্ষ ৬৭ হাজার বার দেখা হয়েছে। পাশাপাশি ভিডিওটিতে ৪৩৯ টি পৃথক অ্যাকাউন্ট থেকে প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে এবং ৭৬৯ বার শেয়ার করা হয়েছে।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, প্রচারিতটি স্বামীর প্রতি রাগ কমাতে মহিলাদের বাগানে এসে ক্ষোভ প্রকাশের কোনো ঘটনার নয়। প্রকৃতপক্ষে, মিয়া বান্দুচ্চি নামের একজন লেখিকা ও আধ্যাত্মিক গুরুমা’র প্রবর্তিত Rage Ritual নামের একটি প্রথার ভিডিওকে আলোচিত দাবিতে প্রচার করা হচ্ছে। যেখানে নারীরা স্বামী নয় বরং তাদের সাথে ঘটে যাওয়া কোনো খারাপ ঘটনা বা যেকোনো ব্যক্তির প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করতে অংশগ্রহণ করে থাকেন।

আলোচিত দাবিটির বিষয়ে অনুসন্ধানে কি-ওয়ার্ড সার্চের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গণমাধ্যম USA Today-র ওয়েবসাইটে গত ৮ মে Women are paying big money to scream, smash sticks in the woods. It’s called a rage ritual. শীর্ষক শিরোনামে প্রচারিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায়, মিয়া বান্দুচ্চি নামের একজন লেখিকা ও স্বঘোষিত আধ্যাত্মিক গুরুমা গত কয়েক বছর স্কটল্যান্ডে Rage Ritual নামের একটি প্রথার প্রবর্তন করেছেন। কয়েক দিনব্যাপী চলমান এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে অংশগ্রহণকারীদের গুণতে হয় প্রায় কয়েক হাজার মার্কিন ডলার। রিচ্যুয়ালটির প্রথা অনুযায়ী অংশগ্রহকারীরা একটি লাঠি নিয়ে তার সাথে ঘটে যাওয়া কোনো খারাপ ঘটনা বা কোনো ব্যক্তির প্রতি তার জমে থাকা ক্ষোভের কথা স্মরণ করেন। পরবর্তীতে চিৎকার করে, লাঠিটি দ্বারা মাটিতে আঘাত করে তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেন। সাধারণত যতক্ষণ পর্যন্ত তাদের শরীর সক্ষম থাকে ততক্ষণ পর্যন্ত এই কার্যক্রম চলমান থাকে। উক্ত রিচ্যুয়ালটি যেন প্রতিবেশীদের জন্যে বিরক্তির কারণ হয়ে না দাঁড়ায় তাই এই রিচ্যুয়ালটি জঙ্গলে পরিচালিত হয়ে থাকে।

Screenshot: USA Today

এছাড়াও জানা যায়, মিয়া বান্দুচ্চি, যিনি ইন্টারনেটে মিয়া ম্যাগিক নামে পরিচিত তার এই রিচ্যুয়ালের ভিডিওগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টিকটকে ব্যাপক জনপ্রিয়। মূলত সেখান থেকেই তার এই রিচ্যুয়ালে নারী অংশগ্রহকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।

পাশাপাশি প্রতিবেদনটি মিয়া বান্দুচ্চি বা মিয়া ম্যাগিক এর টিকটক আইডিতে প্রচারিত বেশ কয়েকটি ভিডিও দেখতে পাওয়া যায়। যেখানে আলোচিত দাবিতে প্রচারিত ভিডিওটিও রয়েছে।

পরবর্তীতে দাবিটির অধিকতর সত্যতা যাচাইয়ে প্রাসঙ্গিক কি-সার্চের মাধ্যমে অনুসন্ধানে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আরেকটি গণমাধ্যম Fox News ওয়েবসাইটে গত ২৬ মে In new viral trend, women spend up to $8K on rage rituals that include screaming ceremonies, breaking things শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়। উক্ত প্রতিবেদন পর্যালোচনা করেও একই তথ্য পাওয়া যায়।

অর্থাৎ, নারীদের জীবনের সামগ্রিক ক্ষোভ ও হতাশা নিরসনে আয়োজিত Rage Ritual এর ভিডিওকে স্বামীদের প্রতি নারীর রাগ প্রকাশের ভিডিও দাবিতে ইন্টারনেটে প্রচার করা হচ্ছে।

মূলত, মিয়া বান্দুচ্চি নামের একজন লেখিকা ও স্বঘোষিত আধ্যাত্মিক গুরুমা নারীদের জীবনের সামগ্রিক রাগ, ক্ষোভ এবং হতাশা প্রকাশের জন্যে Rage Ritual নামের একটি প্রথা চালু করেছেন। যেখানে জঙ্গলে গিয়ে নারীরা একটি লাঠি নিয়ে মাটিতে পিটিয়ে পিটিয়ে এবং চিৎকার করে তাদের সকল ক্ষোভ প্রকাশ করেন। যার ভিডিও মিয়া বান্দুচ্চি ওরফে মিয়া ম্যাগিক তার টিকটক আইডিতে প্রচার করেন। সম্প্রতি, তার টিকটকে প্রচারিত এমন একটি ভিডিও ‘স্বামীর প্রতি রাগ কমানোর জন্য মহিলাদের মিলন মেলা। এই বাগানে সব মহিলারা আসে তাদের স্বামীদের প্রতি ক্ষোভ গুলো প্রকাশ করার জন্য’ শীর্ষক দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হয়েছে। 

সুতরাং, নারীদের Rage Ritual নামের একটি প্রথার ভিডিওকে স্বামীর প্রতি নারীদের ক্ষোভ প্রকাশের ভিডিও দাবিতে ইন্টারনেটে প্রচার করা হচ্ছে; যা মিথ্যা। 

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img