বৃহস্পতিবার, জুলাই 25, 2024
spot_img

ইউটিউবার রাফসানকে গ্রেফতারের দাবিটি গুজব

সম্প্রতি, আলোচিত কন্টেন্ট ক্রিয়েটর ইফতেখার রাফসান তার বাব-মা’কে একটি গাড়ি উপহার দেন। এই নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে নানা আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়। এর মাঝে সোশ্যাল মিডিয়া এক্টিভিস্ট সাঈদ আবদুল্লাহ রাফসানের বাবা-মায়ের বিপুল পরিমানে ব্যাংক লোন পরিশোধ না করার বিষয়টি সামনে আনলে সামাজিক মাধ্যমে নেটিজেনদের তোপের মুখে পড়েন রাফসান। পরবর্তীতে রাফসান তার ফেসবুকে পেজ এক ভিডিও বার্তায় এ বিষয়ে নিজের মতামত জানান। এরই প্রেক্ষিতে ইউটিউবে ‘গ্রেফতার ইউটিউবার রাফসান’ শীর্ষক শিরোনাম থাম্বনেইলে উল্লেখপূর্বক একটি ভিডিও প্রচার করা হয়েছে।

রাফসান

SOMOY 63 নামের একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে প্রচারিত ভিডিওটি দেখুন এখানে (আর্কাইভ)।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, রাফসান দ্য ছোট ভাই খ্যাত আলোচিত  কনটেন্ট ক্রিয়েটর ইফতেখার রাফসান গ্রেফতার হননি বরং, অধিক ভিউ পাওয়ার আশায় কোনোপ্রকার তথ্যসূত্র ব্যতীত চটকদার থাম্বনেইল ব্যবহার করে আলোচিত দাবির ভিডিওটি তৈরি করা হয়েছে।

অনুসন্ধানের শুরুতে আলোচিত ভিডিওটি পর্যবেক্ষণ করে ভিডিওটির ইন্ট্রেতে ‘অবশেষে গ্রেফতার হলেন আলোচিত ইউটিউবার রাফসান দ্যা ছোট ভাই’ দাবি পাওয়া গেলেও ভিডিওতে এই বিষয়ে কোনো সংবাদ বা সূত্র উপস্থাপন করতে দেখা যায়নি। অর্থাৎ ভিডিওটি’র থাম্বনেইল এবং ইন্ট্রোতে প্রচারিত দাবিটির সাথে বিস্তারিত অংশের অসামঞ্জস্যতা রয়েছে। ০২ মিনিট ১০ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে রাফসান দ্যা ছোট ভাইয়ের বাবা-মা এবং তাদেরকে গাড়ি উপহার এসব বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে। 

ভিডিওতে বলা হয়েছে, অবশেষে গ্রেফতার হলেন আলোচিত ইউটিউবার রাফসান দ্যা ছোট ভাই। ২.৫ কোটি টাকা ব্যাংক লোন নিয়ে ফেরত দেননি রাফসান দ্যা ছোট ভাইয়ের মা বাবা। আলোচিত এই কন্টেন্ট ক্রিয়েটর যার নাম রাফসান দ্যা ছোট ভাই। বাবা মো: জাকারিয়া এবং তার মা কাজী নুরুন্নেছা সেহেলি’র বিরোদ্ধে ৩ কোটি ১৫ লাখ টাকার লোন পরিশোধ না করার অভিযোগ উঠেছে। ব্যাংকের লোন নিয়ে না দেওয়ার অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানাও জারি হয়। পরে তারা জামিন নিলেও সম্পত্তি নিলামের আদেশ হয় কিন্তু সেই আদেশ হাইকোর্টে রিট করে আটকে দিয়েছেন তারা। সম্প্রতি কনটেন্ট থেকে আয় করা টাকায় মা’কে অডি গাড়ি উপহার দেওয়ার দাবি করে নতুন করে আলোচনায় আসেন রাফসান দ্যা ছোট ভাই। কিন্তু তার বাবা মা’র বিপুল অর্থের লোন পরিশোধ না করার বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম একটি পোস্ট করেছেন ‘Saiyed Abdullah’ নামে এক ব্যক্তি। 

তথ্য যাচাই

অনুসন্ধানের শুরুতে ভিডিওতে প্রচারিত তথ্যের সূত্র ধরে সোশ্যাল মিডিয়া এক্টিভিস্ট ‘Saiyed Abdullah’ এর ফেসবুক অ্যাকাউন্টে গত ১৩ মে রাফসান দ্যা ছোট ভাই এবং তার বাবা মা’র ব্যাংক লোন এর বিষয়ে একটি পোস্ট (আর্কাইভ) খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot: Facebook

পোস্টটিতে উল্লেখ করা হয়, ‘ধরেন, আপনার পরিবার এই মুহূর্তে একটা ব্যাংক থেকে সোয়া তিন কোটি টাকার ঋণখেলাপি। সেই টাকা আপনার পরিবার দীর্ঘদিন ধরে পরিশোধ করছেনা। ব্যাংকের লোন পেমেন্ট না করে ঝুলায়ে রেখে অন্যান্য সকল ক্ষেত্রে টাকা উড়ায়ে বেড়াচ্ছেন আপনি এবং সবাইকে দেখিয়ে বেড়াচ্ছেন সেগুলো— কেমন লাগবে সেটা দেখতে?’

এছাড়াও, পোস্টটিতে উক্ত ব্যক্তি রাফসান দ্যা ছোট ভাই তার বাব মা’কে দেওয়া অডি কার গিফট এবং রাফসান দ্যা ছোট ভাইয়ের বাবা মায়ের ব্যাংক লোন এবং সেই লোন পরিশোধের বিষেয়ে লিখেন।

অর্থাৎ, পোস্টে রাফসান দ্যা ছোট ভাই গ্রেফতার এমন কোনো তথ্যের উল্লেখ ছিলনা।

আলোচিত দাবির ভিডিওটি প্রকাশিত হয় গত ১৪ মে। এদিকে সাঈদ আবদুল্লাহর অভিযোগের প্রেক্ষিতে রাফসান ১৪ মে রাতে তার ফেসবুক পেজে এক ভিডিও বার্তায় নিজের অবস্থান তুলে ধরেন।

ভিডিওতের রাফসান বলেন, ‘সো, আমি কালকে ফেসবুকে একটা পোস্ট দেখছি যেখানে বলা হইছিলো  আমি নাকি একটি ২ কোটি টাকার গাড়ি কিনেছি, আর আমার বাবার নাকি ৩ কোটি টাকার লোন। এখন আমি একটা জিনিস বলি, এখানে কিছু ভুল তথ্য আছে, মিস ইনফরমেশন আছে। প্রথম জিনিস এই গাড়ির দাম ২ কোটি টাকার আশপাশেও না। এটা একটু চেক করে দেখেন, এটা অনেকেই জানে।’

এছাড়াও, ভিডিওটিতে রাফসান তার বাবা মায়ের লোন এর কথা স্বীকার করে বিষয়টি আদালতে বিচারাধীন আছে বলে দাবি করেন। ব্যাংক লোন, সেই লোন পরিশোধ না করা প্রসঙ্গে নিজের অবস্থান ব্যক্ত করেন।

তাছাড়া, রাফসানকে গ্রেফতারের দাবির বিষয়ে অনুসন্ধানে মূলধারার গণমাধ্যমে দাবির কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি।

মূলত,  SOMOY 63 নামে একটি চ্যানেল থেকে প্রচারিত একটি ভিডিওর থাম্বনেইলে ‘গ্রেফতার ইউটিউবার রাফসান’ দাবিতে একটি ভিডিও ইউটিউবে প্রচার করা হয়েছে। কিন্তু রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, দাবিটি সঠিক নয়। প্রকৃতপক্ষে, সম্প্রতি আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর ইফতেখার রাফসান তার বাবা মা’কে গাড়ি উপহার দিলে এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা হয়। এরই মধ্যে ফেসবুকে তার বাবা মায়ের ব্যাংক লোনের হিসাব তুলে ধরে সোশ্যাল মিডিয়া এক্টিভিস্ট সাঈদ আবদুল্লাহ একটি পোস্ট করেন। উক্ত পোস্টের বিষয়ে আলোচনার সাথে কোনো প্রাসঙ্গিক তথ্যসূত্র ছাড়াই ইউটিউবে তার গ্রেফতারের দাবি প্রচার করা হয়।

সুতরাং, আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর ইফতেখার রাফসান গ্রেফতার হওয়ার দাবিটি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img