আমেরিকা’স গট ট্যালেন্ট প্রোগ্রামে আযান শোনানোর ভিডিওটি এডিটেড

সম্প্রতি, “আমেরিকায় প্রকাশ্যে আযান দেওয়ার অনুমতি পেল ১২ বছরের মুসলিম যুবক!! পৃথীবির সবচেয়ে দামি ট্যালেন্ট শো অনুষ্ঠানে মধুর কন্ঠে আযান শুনিয়ে অবাক করিয়ে ১ম পুরস্কার পেল” শীর্ষক শীরোনামে একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হয়েছে।

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে। পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, আমেরিকা’স গট ট্যালেন্ট শো অনুষ্ঠানে আযান শোনানোর দাবিতে প্রচারিত ভিডিওটি বাস্তব নয় বরং এটি ডিজিটাল প্রযুক্তির সহায়তায় এডিট করে তৈরি করা একটি ভিডিও এবং আযান শুনিয়ে প্রথম হওয়ার দাবিটিও সত্য নয়।

ভিডিওটির কিছু স্থিরচিত্র রিভার্স সার্চের মাধ্যমে, ‘Sunni mh media’ নামের একটি ইউটিউব চ্যানেলে ২০২১ সালের ০৬ মার্চে “Beautiful azan (fake audition)” শীর্ষক শিরোনামে একটি ভিডিও খুঁজে পাওয়া যায়।

উল্লিখিত ইউটিউব ভিডিওটির ক্যাপশনে এটিকে ফেক অডিশন হিসেবে চিহ্নিত করে উপস্থাপন করা হয়েছে।

পরবর্তীতে, ভিডিওটির শেষের অংশে (৪ মিনিট ১০ সেকেন্ড) ‘NURHADI 1GUL’ নামের একটি ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রিপশনের জন্য প্রদর্শিত হয়।

আলোচিত ভিডিও হতে পাওয়া সূত্র ধরে ইউটিউবে কি-ওয়ার্ড সার্চের মাধ্যমে, ‘NURHADI 1GUL’ নামের ইউটিউব চ্যানেল এবং চ্যানেলের সাথে সংযুক্ত একটি ফেসবুক পেজ খুঁজে পাওয়া যায়।

উপরিল্লিখিত ইউটিউব চ্যানেল ও ফেসবুক একাউন্ট হতে প্রচারিত ভিডিওতে থাকা ব্যক্তির সাথে আলোচিত আযান দেওয়া ব্যক্তির চেহারার মিল খুঁজে পাওয়া যায়। সেই সাথে ইউটিউব চ্যানেল এবং ফেসবুক একাউন্টে একই ধরণের এডিটেড আরো অনেক ভিডিও খুঁজে পাওয়া যায়। তবে উক্ত পেজ এবং ইউটিউব চ্যানেলটিতে আলোচিত আজান দেওয়ার ভিডিওটি খুঁজে পাওয়া যায় নি।

আলোচিত ভিডিওটি এডিট করা কিনা তা অধিক নিশ্চিতের জন্য ভিডিওটির কিছু স্থিরচিত্র রিভার্স সার্চের মাধ্যমে, ‘Top Viral Talent’ নামের ইউটিউব চ্যানেলে ২০১৭ সালের ২৭ অক্টোবরে “He Sings For His Dead Friend… Don’t Cry… Simon Cowell Is Emotional and Cries | Jealous Labrinth” শীর্ষক শিরোনামে প্রচারিত একটি ভিডিও খুঁজে পাওয়া যায়। উক্ত ভিডিওর কিছু খণ্ডিত দৃশ্যের সাথে আলোচিত ভিডিওটির কিছু দৃশ্যের হুবহু মিল লক্ষ্য করা যায়।

বিষয়টি সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে ঐ কন্টেন্ট নির্মাতার সাথে যোগাযোগ করা হলেও এই প্রতিবেদন প্রকাশের আগ পর্যন্ত তার উত্তর পাওয়া যায় নি।

মূলত, এক ইন্দোনেশিয়ান ইউটিবার America’s Got Talent শো এর ভিন্ন একটি অডিশনের ভিডিওতে নিজের আজান দেওয়ার একটি ভিডিও ডিজিটাল প্রযুক্তির সহায়তায় সংযুক্ত করে ফেক অডিশনের ভিডিও নির্মাণ করেছিলেন। ফেক অডিশনের ঐ ভিডিওটি-ই বর্তমানে ‘আমেরিকায় প্রকাশ্যে আযান দেওয়ার অনুমতি পেয়েছে ১২ বছরের মুসলিম যুবক এবং পৃথিবীর সবচেয়ে দামি ট্যালেন্ট শো অনুষ্ঠানে আযান শুনিয়ে ১ম পুরস্কার পেয়েছে’ শীর্ষক দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, পূর্বেও “গান গাওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে আজান শুনিয়ে দিলেন” শীর্ষক শিরোনামে একটি ভিডিও ‘ব্রিটেন’স গট ট্যালেন্ট’ নামের টেলিভিশন প্রোগ্রামে আযান শোনানোর বাস্তব ভিডিও দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সেটিকে মিথ্যা হিসেবে শনাক্ত করে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রিউমর স্ক্যানার টিম।

সুতরাং, পৃথিবীর সবচেয়ে দামি ট্যালেন্ট শো তে আজান শুনিয়ে প্রথম হওয়ার বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং প্রচারিত ভিডিওটি এডিটেড।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img