হবিগঞ্জের রাস্তাকে নাটোরের রাস্তা দাবিতে প্রচার

সম্প্রতি, ফেসবুকে একটি রাস্তার ছবিকে নাটোরের সিংড়ার ছবি বলে দাবি করা হচ্ছে। 

সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী ও নাটোর-৩ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য জুনাইদ আহমেদ পলকের ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্টে শেয়ারকৃত পোস্টে (আর্কাইভ) দাবি করা হয়েছে, ছবিটি নাটোরের সিংড়ার চলনবিলের একটি সড়কের বর্তমান অবস্থার চিত্র। 

একই পোস্ট তিনি তার অফিশিয়াল ফেসবুক পেজেও শেয়ার করেছেন। দেখুন এখানে (আর্কাইভ)। 

এছাড়া, জুনাইদ আহমেদ পলক Shihab Hossain নামে যে ব্যক্তির পোস্ট শেয়ার করেছেন সেই পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ)। 

একইভাবে, একই ছবিকে নাটোরের সিংড়ার দাবি করে করা আরেকটি পোস্ট জুনাইদ আহমেদ পলক ফেসবুকে তার ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট (আর্কাইভ) ও অফিশিয়াল পেজে (আর্কাইভ) শেয়ার করেছেন। 

জুনাইদ আহমেদ পলক মো: মুরশিদুল ইসলাম নামে যে ব্যক্তির পোস্ট শেয়ার করেছেন সেই পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ)। 

একইদিন জনাব পলকের শেয়ারকৃত আরেকটি পোস্টেও একই ছবিকে নাটোরের বর্তমান ছবি বলে দাবি করা হয়। উক্ত পোস্ট পলকের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে দেখুন এখানে (আর্কাইভ) এবং ফেসবুক পেজে দেখুন এখানে (আর্কাইভ)। 

সম্প্রতি একই দাবিতে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ)।

একই দাবিতে ২০২২ সালে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ)।

একই দাবিতে ২০২১ সালে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ)।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, গাছসহ রাস্তার আলোচিত এই ছবিটি নাটোরের সিংড়ার নয় বরং হবিগঞ্জের বানিয়াচং থেকে ২০২০ সালে ছবিটি তুলেছিলেন ফটোগ্রাফার শঙ্কু দেব। 

এ বিষয়ে অনুসন্ধানের শুরুতে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের শেয়ারকৃত পোস্টগুলোর কমেন্টগুলো পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, সেখানে একাধিক ব্যক্তি ছবিটি নাটোরের নয় বলে মন্তব্য করেছেন। 

একটি কমেন্টে Shonku Deb নামের একটি অ্যাকাউন্টকে মেনশন করে একটি পোস্টের স্ক্রিনশট যুক্ত করে দিয়ে বলা হয়েছে, ছবিটি তিনি তুলেছেন। 

Screenshot collage: Rumor Scanner 

পরবর্তীতে Shonku Deb নামক অ্যাকাউন্টে গিয়ে আলোচিত পোস্টটি (আর্কাইভ) খুঁজে পাওয়া যায়।

শঙ্কু তার পোস্টে লিখেছেন, “গত ২০শে জুন ২০২০ সালে শোলাটেখা যাওয়ার মাঝপথে একটি ছবি তুলি। যেটি ছিল আমাদের বানিয়াচংয়ের। তো এই ছবিটি আমার আইডি সহ কয়েকটি গ্রুপে পোস্ট করার পরে বেশ রিচ উঠেছিল। তো যে ছবি ভাইরাল হয় সে ছবি কপি পোস্ট হবে এটা স্বাভাবিক ধরে নেন। কিন্তু অবাক লাগে যখন আমার ছবিটি এমপি, মন্ত্রী, ডিসি কেউ বাদ দেননি কপি পোস্ট দিতে। তা ও সমস্যা ছিল না যদি ছবির অরিজিনাল লোকেশন দিয়ে পোস্ট করতেন। যেখানে আমার এলাকার অস্তিত্ব ওই নেই সেখানে ক্রেডিট পাওয়া বিলাসিতা ছাড়া আর কিছু না। ছবির অরিজিনাল ডিটেইলস না জেনে একজন এমপি, মন্ত্রী, ডিসি কি ভাবে পোস্ট / শেয়ার করেন?”

Screenshot source : Facebook 

পরবর্তীতে আরো অনুসন্ধান করে শঙ্কুর ফটোগ্রাফি বিষয়ক পেজ ‘পথে প্রান্তরে’তে ২০২০ সালের ২৬ জুলাই প্রকাশিত একটি পোস্টে (আর্কাইভ) আলোচিত ছবিটি খুঁজে পাওয়া যায়। 

ছবিটির লোকেশন হিসেবে পোস্টে উল্লেখ করা হয়, হরতি জঙ্গল রোড (বানিয়াচং)।

Screenshot source : Facebook

একইদিন (২৬ জুলাই, ২০২০) Tour Group Bd নামক একটি গ্রুপেও শঙ্কু একই ছবি ও তথ্য পোস্ট করেন। দেখুন এখানে (আর্কাইভ)। 

Screenshot source : Facebook

এ বিষয়ে জানতে রিউমর স্ক্যানার টিমের পক্ষ থেকে আমরা জনাব শঙ্কু দেবের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি আমাদের জানান, “২০২০ সালের ২০ জুন তুলেছিলাম আমি বানিয়াচং উপজেলার শোলাটেখা জায়গায়। আমি তো ফটোগ্রাফার। সেদিন ফটোওয়াকে গিয়ে ছবিটি তুলেছিলাম। এরপর আমি ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ার পর ছবিটি ভাইরাল হয়ে যায়।” 

শঙ্কু বলছেন, তার এই ছবিটি ভিন্ন স্থান এবং ভিন্ন জনের তোলা বলে প্রচার হয়ে আসছে। আমাদের অনুরোধে শঙ্কু তার তোলা আলোচিত ছবিটির মূল ফাইল আমাদের কাছে পাঠান। আমরা ছবিটির মেটাডাটা বিশ্লেষণ করে নিশ্চিত হই, ছবিটি ২০২০ সালের ২০ জুনই তোলা হয়। তবে ছবি তোলার সময় ডিভাইসটির লোকেশন বন্ধ থাকায় ছবির লোকেশনের বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। 

Screenshot collage: Rumor Scanner

পরবর্তীতে বানিয়াচংয়ের মাতাপুরে থাকেন ‘S M Ovi’ নামক এক ব্যক্তির সাথে যোগাযোগ করে রিউমর স্ক্যানার টিম। 

জনাব অভি রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুরোধে উক্ত স্থানে গিয়ে কিছু ছবি এবং একটি ভিডিও ধারণ (রিউমর স্ক্যানারের কাছে সংরক্ষিত রয়েছে) করে আমাদের কাছে পাঠান। 

আমরা ছবিগুলোর মেটাডাটা বিশ্লেষণ করে নিশ্চিত হই, আলোচিত রাস্তাটি হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ের আদর্শবাজার-লক্ষীবাওর জলাবন রোডে অবস্থিত করতকলা নামক স্থানে অবস্থিত।

Screenshot collage: Rumor Scanner

মূলত, সম্প্রতি ফেসবুকে একটি রাস্তার ছবিকে নাটোরের সিংড়ার ছবি বলে দাবি করা হচ্ছে। নাটোরের সিংড়ার চলনবিলের একটি সড়কের বর্তমান অবস্থার চিত্র দাবিতে প্রচারিত তিনটি পোস্ট তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী ও নাটোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য জুনাইদ আহমেদ পলকের ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ও পেজে শেয়ার করা হয়েছে। কিন্তু রিউমর স্ক্যানারের অনুসন্ধানে জানা যায়, আলোচিত ছবিটি নাটোরের নয়। প্রকৃতপক্ষে, ২০২০ সালে শঙ্কু দেব নামে একজন ফটোগ্রাফার হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ের আদর্শবাজার-লক্ষীবাওর জলাবন রোডে অবস্থিত করতকলা নামক স্থান থেকে ছবিটি তুলেছিলেন। 

উল্লেখ্য, চলন বিলের রাস্তার পুরানো অবস্থান বুঝাতে যে ছবি ব্যবহার হয়েছে সেই ছবিটি তোলার স্থান ও সময় সম্পর্কে নিশ্চিত কোনো তথ্য না পাওয়ায় ঐ রাস্তার পুরানো ও বর্তমান অবস্থার প্রকৃত চিত্রের তুলনা দেখানো সম্ভব হয়নি। তবে ওপেন সোর্স অনুসন্ধানে নিকট অতীতে ধারণকৃত চলন বিলের রাস্তার বেশ কিছু ভিডিও ইন্টারনেটে পাওয়া গেছে। যার মাধ্যমে বর্তমানে চলন বিলের মাঝে ‘পাকা সড়কই’ পরিলক্ষিত হচ্ছে। ভিডিও গুলো দেখুন এখানে, এখানে এবং এখানে। 

Screenshot collage: Rumor Scanner 

প্রসঙ্গত, গত বছর (২০২২) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকতে না পারা শীর্ষক একটি দাবি ছড়িয়ে পড়লে বিষয়টি গুজব হিসেবে শনাক্ত করে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করে রিউমর স্ক্যানার। 

সুতরাং, হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ের আদর্শবাজার-লক্ষীবাওর জলাবন রোডের একটি রাস্তার ছবিকে নাটোরের ছবি বলে ফেসবুকে দাবি করা হচ্ছে; যা সম্পূর্ণ মিথ্যা। 

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img