শুক্রবার, সেপ্টেম্বর 22, 2023
spot_img

এয়ারপডস ব্যবহারে কী ক্যান্সার বা মস্তিষ্কে ক্ষতি হতে পারে?

আমরা সবাই একবিংশ শতাব্দীতে বাস করছি। সময়টা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির যুগ। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে আধুনিক প্রযুক্তির প্রভাব রয়েছে। প্রযুক্তির সাহায্যে অতীতে যে কাজগুলো অসম্ভব মনে হতো এখন তা সহজেই করা যাচ্ছে।। প্রযুক্তি আমাদের জীবনকে সহজ করে তুলছে এতে কোন সন্দেহ নেই। আমরা এমন একটি সমাজে বাস করি যেখানে প্রযুক্তি প্রতিদিন ব্যবহার করা হয়। আপনি যদি প্রযুক্তি ব্যবহার না করেন তবে আপনি নিজের জন্য জীবনকে কঠিন করে তুলছেন। তবে প্রযুক্তির ইতিবাচকতার পাশপাশি কিছু নেতিবাচকতাও রয়েছে।

এয়ারপডস কী?

এয়ারপডস হল ওয়্যারলেস ব্লুটুথ ইয়ারবাড (এয়ারফোন) যা আইফোন এবং আইপ্যাড এর জন্য বিশেষভাবে ডিজাইন করা হয়েছে। কিন্তু যেহেতু তারা ব্লুটুথ অডিও ডিভাইস, তাই এগুলোকে প্রায় অন্য যেকোনো কম্পিউটার বা স্মার্টফোনের সাথে ব্যবহার করা যায়; এমনকি আপনি অ্যাপল টিভির সাথে এয়ারপড যুক্ত করা যায়

এয়ারপডস ও এয়ারবাডের মধ্যে পার্থক্য

আইফোন প্রথম বাজারে এসেছিল ২০০৭ সালে, সেসময় অ্যাপল বাক্সে তারযুক্ত একজোড়া এয়ারবাড দেয়া ছিল৷ আইফোন-৭ এর সময় থেকে অ্যাপল প্রথাগত হেডফোন জ্যাক বন্ধ করে দেয়।

এয়ারপডস সম্পূর্ণ ওয়্যারলেস ডিভাইস, এতে কোনো তার নেই এবং একটির সাথে অপরটি (এয়ারপিস) সংযুক্ত নয়। বরং তারের পরিবর্তে, উভয় ইয়ারপিসেই আলাদা ব্লুটুথ রেডিও আছে এবং ব্লুটুথের মাধ্যমে ফোন বা অন্যান্য ডিভাইসের সাথে যুক্ত করা হয়।

এয়ারপডসের সংস্করণ

অ্যাপল এয়ারপডসের দুটি সংস্করণ প্রকাশ করেছে: দৃশ্যত, তারা অভিন্ন দেখতে, কিন্তু তাদের কিছু গুরুত্বপূর্ণ পার্থক্য আছে। প্রথম প্রজন্মের এয়ারপডগুলি অ্যাপলের আসল ডাব্লিউ-১ ওয়্যারলেস চিপ ব্যবহার করে তৈরি করা, আর এয়ারপডস-২ নতুন এইচ-১ ওয়্যারলেস চিপসেটের দ্বারা তৈরি করা হয়েছে, অ্যাপলের দাবি, যা প্রায় দ্বিগুণ দ্রুত কাজ করে।

১। অ্যাপল এয়ারপডস- আসল অ্যাপল এয়ারপডস (২০১৬ সালে প্রথম বাজারে আসে) ২.১১-ইঞ্চি লম্বা, ১.৭৪-ইঞ্চি চওড়া কেসে রাখা হয়েছিল।

২। অ্যাপল এয়ারপডস প্রো – অক্টোবর ২০১৯-এ বাজারে এসেছিল, অ্যাপল এয়ারপডস প্রো হল এয়ারপডস-এর একটি পুনঃডিজাইন করা সংস্করণ, যেখানে একটি বিস্তৃত কেস রয়েছে৷ এয়ারপডস প্রো এর প্রধান আকর্ষণ হলো সক্রিয় নয়েজ বাতিলকরণ ফিচার, যা প্রথম এয়ারপডসের তুলনায় বাইরের শব্দকে আরও কার্যকরভাবে ব্লক করে।

এয়ারপডস এর বৈশিষ্ট্য

উভয় এয়ারপডসের মধ্যেই একটি অ্যাক্সিলোমিটার রয়েছে, যা অঙ্গভঙ্গি বোঝার জন্য ব্যবহৃত হয়, অপটিক্যাল সেন্সরগুলি এটি আপনার কানে ঢোকানো হয়েছে কিনা তা জানতে এবং ফোন কল ও সিরি ব্যবহার করার জন্য মাইক্রোফোন ব্যবহৃত হয়। এয়ারপডগুলিতে একটি চার্জিং কেস এ থাকে যাতে যে কোনও জায়গায় বসে এয়ারপিসের ব্যাটারির চার্জ বাড়ানোর জন্য একটি সমন্বিত ব্যাটারি রয়েছে। প্রথম এয়ারপডসে কেসটিতে একটি কেবল দিয়ে চার্জ করা হত, আর নতুন এয়ারপডস-২ এ একটি ওয়্যারলেস চার্জিং কেস এর সুবিধাও রয়েছে।

এয়ারপডস নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ইন্টারনেটে প্রচারিত নেতিবাচক তথ্যের নমুনা

১। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে R Y A N | M A R T I N নামের একজন ব্যবহারকারী তার টুইটে লিখেছেন, এয়ারপড মস্তিষ্কের টিউমার সৃষ্টি করছে। আপনি যদি ক্যান্সার না চান, আমি আপনাকে তাদের ফেলে দেওয়ার পরামর্শ দিই (অনুবাদিত)

২। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে The360upgrade নামের একটি হ্যান্ডেল থেকে টুইট করা হয়েছে যে, যদি আপনার কাছে এখনও এয়ারপড থাকে, সেগুলিকে ফেলে দিন। এগুলি একটি ফোন কলের ১০ গুণ বিকিরণ করে। আপনার কানে সব সময় বিমিং, এমনকি যখন আপনি এটি দিয়ে কথা না বলেন তখনও। ইএমএফ বিকিরণ একটি সেলুলার স্ট্রেস এবং এতে ক্যান্সার হতে পারে। আপনার মস্তিষ্ক  নষ্ট হওয়া বন্ধ করুন, তারযুক্ত হেডফোন ব্যবহার করুন।

৩। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেEnvironmental Health Trust নামের একটি পেজ থেকে দেয়া একটি পোস্টে দাবি করা হয়েছে যে, আপনার মাথার খুলির কাছেই এয়ারপড। তারা সরাসরি আপনার মস্তিষ্ক এবং কানের পাশে আরএফআর প্রেরণ করে এবং আরএফআর আপনার মস্তিষ্ক এবং কানের টিস্যুতে শোষিত হয়(সারাংশ)। 

ই.এম.এফ.এস বা বিকিরণ কী

জাতীয় ক্যান্সার ইনস্টিটিউট অনুসারে ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক ফিল্ড বা ই.এম.এফ.এস হলো শক্তির বৈদ্যুতিক এবং চৌম্বক ক্ষেত্রের সংমিশ্রণ বা বিকিরণ, যা বিদ্যুৎ দ্বারা উৎপাদিত হয়

এই ধরণের বিকিরণকে উচ্চ-ফ্রিকোয়েন্সি ই.এম.এফ.এস, বা আয়োনাইজিং হিসাবে ধরা হয়, যা এক্স-রে এবং গামা রশ্মি এবং নিম্ন-থেকে-মধ্য কম্পাঙ্কের ই.এম.এফ.এস দ্বারা উৎপাদিত হয়

তবে, ওয়্যারলেস ডিভাইস যেমন ব্লুটুথ ডিভাইস, ওয়্যারলেস হেডফোন, ল্যাপটপ এবং সেলফোনগুলি রেডিওফ্রিকোয়েন্সি রেডিয়েশন বা আর.এফ.এস হিসাবে নন-আয়োনাইজিং ইএমএফ.এস নির্গত করে

এয়ারপডস বা এজাতীয় ব্লুটুথ ডিভাইস এর স্বাস্থ্যগত ঝুকির বিষয়ে বিশেষজ্ঞগণ ও গবেষণা কী বলছে

১। ফ্যাক্টচেকিং প্রতিষ্ঠান পলিটিফ্যাক্ট এক ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি যে বিজ্ঞানীরা এয়ারপডসকে স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকি হিসেবে ঘোষণা করেছেন। এয়ারপডস সরকার-প্রতিষ্ঠিত সীমার অনেক নিচে এবং সেলফোনের তুলনায় অনেক কম বিকিরণ মাত্রা নির্গত করে।

এছাড়াও, “দাবিটি স্বাস্থ্য সংস্থাগুলির দৃষ্টিভঙ্গির সাথে সম্পূর্ণরূপে অসঙ্গতিপূর্ণ,” বলেছেন পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োইঞ্জিনিয়ারিং-এর ইমেরিটাস অধ্যাপক কেনেথ ফস্টার। তিনি 1970 এর দশকের শুরু থেকে রেডিওফ্রিকোয়েন্সি শক্তির ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যের প্রভাব সম্পর্কে অধ্যয়ন করেছেন

২। বার্তাসংস্থা রয়টার্সের এক ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তা এবং বিজ্ঞানীরা রয়টার্সকে বলেছেন, ব্লুটুথ হেডফোনের মতো ওয়্যারলেস ডিভাইস ব্যবহার করার বিরুদ্ধে লোকেদের পরামর্শ দেওয়ার (ক্ষতির কারণে) কোনও প্রতিষ্ঠিত প্রমাণ নেই।

এছাড়াও, রয়টার্স এজাতীয় সকল দাবি সমর্থন করার কোনও প্রমাণ খুঁজে পায়নি

বার্তাসংস্থা রয়টার্সের এক ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, নিম্ন স্তরের এক্সপোজারের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব বোঝার জন্য গবেষণা চলছে, তবে ২০১৯ সালের পিয়ার-রিভিউ সমীক্ষায় দেখা গেছে যে ব্লুটুথ হেডফোনগুলি স্মার্ট ফোনের মতো ডিভাইসগুলির তুলনায় ১০-৪০০ গুণ কম বিকিরণ নির্গত করে৷

এছাড়াও আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে, যদিও “নিম্ন ঝুঁকি মানে শূন্য ঝুঁকি নয়,” গবেষকরা বলেছেন, অ-আয়োনাইজিং বিকিরণ উত্সগুলি সাধারণত আয়োনাইজিং বিকিরণ উত্সের চেয়ে নিরাপদ বলে বিবেচিত হয়

তারা সিদ্ধান্ত দিয়েছেন: “বর্তমানে পর্যাপ্ত প্রমাণ নেই যে ওয়্যারলেস হেডফোন যথেষ্ট স্বাস্থ্য ঝুঁকি তৈরি করে (ব্যবহার বন্ধ করার পর্যায়ের)।”

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা রয়টার্সকে আরও বলেছে: “বর্তমানে এমন কোনও প্রমাণ নেই যে অ্যাপল এয়ারপডসগুলিতে ব্যবহৃত নিম্ন-স্তরের ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক ক্ষেত্রগুলি ক্যান্সারের কারণ হতে পারে।”ICNIRP রয়টার্সকে বলেছে যে যতক্ষণ পর্যন্ত এয়ারপডস তাদের নির্দেশিকা মেনে চলে “কোনও স্বাস্থ্য সমস্যা আশা করা উচিত নয়” কারণ “বৈজ্ঞানিক সর্বশেষ মূল্যায়ন থেকে দেখা যায়  এমন কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই যে ই.এম.এফ.এস ক্যান্সারের কারন“।

অ্যাপল কর্তৃপক্ষের উত্তর

অ্যাপল ইমেলের মাধ্যমে রয়টার্সকে বলেছে: “আমরা আমাদের গ্রাহকদের স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তাকে অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে নিই। আমরা যত্ন সহকারে আমাদের সমস্ত পণ্য ডিজাইন করি এবং প্রযোজ্য সুরক্ষা প্রয়োজনীয়তাগুলি মেনে চলা নিশ্চিত করতে আমরা সেগুলিকে ব্যাপকভাবে পরীক্ষা করি।

“এয়ারপডস এবং অ্যাপল এর অন্যান্য ওয়্যারলেস ডিভাইসগুলি সমস্ত প্রযোজ্য রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি এক্সপোজার নির্দেশিকা এবং সীমা পূরণ করে। এছাড়াও, এয়ারপডস এবং এয়ারপডস প্রো রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি এক্সপোজারের জন্য প্রযোজ্য সীমার দুই গুণেরও কম”।

ফ্রিকোয়েন্সি সীমা

বার্তাসংস্থা রয়টার্সের এক ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, নির্দিষ্ট শোষণ হার (SAR) বলতে বোঝায় যে হারে শরীর রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি শক্তি শোষণ করে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, ফেডারেল কমিউনিকেশন কমিশন (এফসিসি) মোবাইল ফোন নির্মাতাদের প্রতি কিলোগ্রাম  ১.৬ ওয়াটের SAR সীমা নির্ধারিত করেছে

এফসিসি-তে অ্যাপলের পাবলিক ফাইলিং, ২০১৯-এ ইয়ার বাডের SAR পরিমাপ করা হয়েছিল ০.০৭১ এবং ০.০৯৫ ওয়াট প্রতি কিলোগ্রাম, যা একত্রে করে প্রকৃতপক্ষে FCC সীমার প্রায় দুই গুণ কম।

এই পরিমাপ অ-আয়নাইজিং রেডিয়েশন প্রোটেকশন – ICNIRP (একটি অলাভজনক সংস্থা) সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক কমিশনের শর্তও পূরণ করে, যা জনসাধারণকে প্রতি কিলোগ্রামে ২ ওয়াটের বেশি ব্যবহার না করার সুপারিশ করে

কোন রেডিয়েশন ক্ষতিকারক এবং কোনটি নয়

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ এনভায়রনমেন্টাল হেলথ সার্ভিসেস অনুসারে, আয়নাইজিং ই.এম.এফ.এস-এর দীর্ঘায়িত প্রভাব মানুষের ক্ষতি করতে পারে, যদিও নিম্ন-স্তরের ই.এম.এফ.এস ক্ষতিকর নয় বলে মনে করা হয়

ইউএস ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বলেছে যে “বৈজ্ঞানিক ঐক্যমত্য পাওয়া যায় যে নন-আয়োনাইজিং রেডিয়েশনের কারণে ক্যান্সার হয় না। এছাড়াও ফেডারেল কমিউনিকেশন কমিশন দ্বারা নির্ধারিত রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি সীমা বা তার চেয়ে কম, নন-আয়োনাইজিং বিকিরণে মানুষের ক্ষতির  কোনও উদাহরণ পাওয়া যায়নি।”

বিজ্ঞানীরাই এম.এফ.এস-এর প্রভাব নিম্ন-স্তরের এবং উচ্চ-স্তরের এই দুই ধরণের বিকিরণে ভাগ করেছেন, যাকে যথাক্রমে নন-আয়নাইজিং এবং আয়নাইজিং বলা হয়। এক্স-রে এবং তেজস্ক্রিয় পদার্থগুলি আয়নাইজিং বিকিরণের উদাহরণ, যা যথেষ্ট উচ্চ এক্সপোজারের সাথে ক্যান্সার এবং সেলুলার ক্ষতির কারণ হতে পারে। নন-আয়নাইজিং রেডিয়েশনের উৎসগুলির মধ্যে রয়েছে মাইক্রোওয়েভ, ওয়াইফাই রাউটার, মোবাইল ফোন এবং এয়ারপডের মতো ব্লুটুথ ওয়্যারলেস হেডফোন।

সুতরাং, এয়ারপডস বা এ জাতীয় ব্লুটুথ ডিভাইস নন-আয়নাইজিং রেডিওফ্রিকোয়েন্সি রেডিয়েশন বা আর.এফ.এস (নিম্ন-স্তরের) মস্তিষ্কে ক্যান্সার সৃষ্টি করেনা। এই দাবির স্বপক্ষে কোনও গবেষণা বা প্রমাণও পাওয়া যায়না। যদিও ব্লুটুথ ডিভাইস দ্বারা নির্গত নন-আয়নাইজিং বিকিরণ নিয়ে আরও বিস্তারিত গবেষণা চলছে।

তথ্যসূত্র

Lifewire- What Are AirPods and How Do They Work?

Apple- AirPods – Apple 

Computerhope- What are AirPods?

Politifact- PolitiFact | There’s no evidence that radiation emitted from Apple AirPods will cook your brain 

Reuters- Fact Check-No established evidence that Apple AirPods harm your health | Reuters

RS Team
RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img