সমগ্র ভারতে নয়, হিজাব আন্দোলনের তাবাসসুম দ্বাদশের পরীক্ষায় কর্ণাটক রাজ্যে প্রথম হয়েছেন

সম্প্রতি ‘ভারতের কর্ণাটকে হিজাব আন্দোলনের তাবাসসুম দ্বাদশ পরীক্ষায় ভারতে ১ম।‘ শীর্ষক শিরোনামে একটি তথ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে। 

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ), এখানে (আর্কাইভ) এবং এখানে (আর্কাইভ)। গণমাধ্যমের ফেসবুক পেইজে প্রচারিত পোস্ট দেখুন কালবেলা

তাবাসসুম শাইকের সংবাদে ভিন্ন ছাত্রীর ছবি ব্যবহার করে গণমাধ্যমে প্রচারিত প্রতিবেদন দেখুন; সমকাল, জুম বাংলা, নাগরিক টিভিকালবেলা, উখিয়া নিউজ। 

ওপার বাংলায় প্রচারিত এমন পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ)। 

  

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, ভারতের কর্ণাটকের হিজাব আন্দোলনের তাবাসসুম শাইক দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষায় সমগ্র ভারতে প্রথম হননি বরং তিনি নিজ প্রদেশ কর্ণাটকে মানবিক বিভাগে প্রথম স্থান অর্জন করেছেন।

কি-ওয়ার্ড অনুসন্ধানের মাধ্যমে ভারতীয় গণমাধ্যম The Indian Express এ গত ২২ এপ্রিল ‘Karnataka 2nd PUC Result 2023 Updates: Over 5.24 lakh students cleared the exam‘ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়। 

Screenshot: The Indian Express 

প্রতিবেদনে প্রদত্ত তথ্যানুযায়ী, গত ২২ এপ্রিল চলতি বছরের দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়। কর্ণাটক স্কুল পরীক্ষা ও মূল্যায়ন বোর্ড (কেএসইএবি) এই ফলাফল ঘোষণা করে। এর আগে গত ৯ মার্চ শুরু হয়ে ২৯ মার্চ পর্যন্ত এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষায় ৭ লাখ ২ হাজার ৬৭ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে এবং এর মধ্যে ৫ লাখ ২৪ হাজার ২০৯ জন শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়। 

Screenshot: The Indian Express 

এর মধ্যে বিজ্ঞান, বাণিজ্য বিভাগ এবং মানবিক বিভাগ থেকে ভিন্ন ভিন্ন পরিক্ষার্থী মেধা তালিকায় প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অর্জন করেন। এই মেধা তালিকায় মানবিক বিভাগ থেকে প্রথম স্থান অর্জন করেন তাবাসসুম শাইক।

Image Collage: Rumor Scanner

ভারতীয় আরেকটি গণমাধ্যম Times of India তেও একইদিনে ‘Karnataka 2nd pre-university pass percentage jumps to 74.7; DK, Udupi districts top‘ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন থেকেও একই তথ্য জানা যায়। 

Screenshot: Times of India

পাশাপাশি প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায়, মেধা তালিকায় স্থান করে নেওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে মানবিক থেকে তাবাসসুম শাইক ৬০০ নাম্বারের মধ্যে ৫৯৩, বাণিজ্য বিভাগ থেকে অনন্যা কেএ ৬০০ এর মধ্যে ৬০০ পেয়ে ও বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এসএম কৌশিক ও সুরভী এস ৬০০ এর মধ্যে ৫৯৬ নাম্বার পেয়ে যৌথভাবে প্রথম স্থান অর্জন করেন। 

Screenshot: Times of India
গণমাধ্যমে তাবাসসুম শাইকের ভুল ছবি

বাংলাদেশি গণমাধ্যম সমকালে তাবাসসুম শাইকের ছবি দাবিতে প্রচারিত ছবিটিও তার নয়।

রিভার্স ইমেজ সার্চের মাধ্যমে দেখা যায়, ভারতীয় গণমাধ্যম Times of India তে ২০২২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি ‘Hijab row: Complaint filed against outfit for announcing reward to Mandya girl‘ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে বাংলাদেশি গণমাধ্যমে ব্যবহৃত ছবিটি খুঁজে পাওয়া যায়। 

Image Comparison: Rumor Scanner

ছবিটির বিস্তারিত বিবরণী থেকে জানা যায়, ছবির শিক্ষার্থীটির নাম মুসকান খান৷ তিনি মান্দ্যাইয়া জেলার পিইএস কলেজ অব আর্টস, সায়েন্স অ্যান্ড কমার্স কলেজের শিক্ষার্থী ছিলেন।

অর্থাৎ, তাবাসসুমের ছবি দাবিতে গণমাধ্যমে প্রচারিত ছবিটি ভিন্ন আরেক শিক্ষার্থীর। এই শিক্ষার্থীর আরও কিছু ছবি দেখুন এখানে, এখানে। 

Screenshot: Zee News

উল্লেখ্য, ২০২২ সালে কর্ণাটকের বেঙ্গালুরুতে হিজাব পরে ক্লাস করতে দেওয়ার দাবিতে আন্দোলনকারী মেয়েদের মধ্যে সম্মুখ সারিতে ছিলেন তাবাসসুম শাইক। সেসময় প্রতিবাদের অংশ হিসেবে বন্ধুদের সঙ্গে স্কুলে যাওয়াও বন্ধ করে দিয়েছিলেন তিনি। 

মূলত, গত ৯ মার্চ থেকে ২৯ মার্চ ভারতের কর্ণাটক রাজ্যে দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় এবং গত ২২ এপ্রিল কর্ণাটক স্কুল পরীক্ষা ও মূল্যায়ন বোর্ড (কেএসইএবি) এই পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করে। এতে মানবিক বিভাগ থেকে তাবাসসুম শাইক ৬০০ নাম্বারের মধ্যে ৫৯৩ নাম্বার পেয়ে প্রথম স্থান অর্জন করেন। কিন্তু রিউমর স্ক্যানারের অনুসন্ধানে দেখা যায়, তার এই অর্জনটিকেই বাংলাদেশে ফেসবুকে সমগ্র ভারতে প্রথম হওয়ার দাবিতে প্রচার করা হচ্ছে। 

সুতরাং, ভারতের কর্ণাটকে হিজাব আন্দোলনের তাবাসসুম দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষায় সমগ্র ভারতে প্রথম হয়েছেন দাবিতে প্রচারিত তথ্যটি সম্পূর্ণ বিভ্রান্তিকর। 

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img