রফিকুল ইসলাম মাদানীর জামিন হওয়ার ভুয়া তথ্য প্রচার 

সম্প্রতি, “শিশুবক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানীর  জামিন হয়েছে” শীর্ষক দাবিতে একটি তথ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হয়েছে। 

Screenshot from Facebook | Journalist Elias Hossain

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে
পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, শিশুবক্তা খ্যাত রফিকুল ইসলাম মাদানীর জামিন হয়নি বরং কোনোপ্রকার নির্ভরযোগ্য সূত্র ছাড়াই উক্ত দাবিটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে। 

অনুসন্ধানে, সাম্প্রতিক সময়ে রফিকুল ইসলাম মাদানীর জামিন সংক্রান্ত কোনো সংবাদ রিউমর স্ক্যানারের এই প্রতিবেদন প্রকাশের পূর্ব পর্যন্ত দেশীয় কোনো সংবাদমাধ্যমে বা নির্ভরযোগ্য সূত্রের বরাতে খুঁজে পাওয়া যায়নি। 

তবে, গত ০১ মার্চ তারিখে জাতীয় দৈনিক ‘বাংলা ভিশন’ এর ওয়েবসাইটে “মুচলেকা দিয়ে মুক্তি পাচ্ছেন রফিকুল ইসলাম মাদানি” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot from ‘Banglavision’ website

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে,

‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ঢাকা ও গাজীপুরের বিভিন্ন থানায় তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের করা হয়েছে। গ্রেফতারের পর থেকেই কারাগারে আছেন তিনি। তবে ভবিষ্যতে রাষ্ট্রবিরোধী বক্তব্য না দেওয়ার মুচলেকা দিয়ে জামিন পেতে যাচ্ছেন তিনি। আদালত ও তার আইনজীবী সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।’ 

Screenshot from ‘Banglavision’ website

এছাড়া, প্রতিবেদনটিতে রফিকুল ইসলাম মাদানীর আইনজীবী অ্যাডভোকেট আশরাফ আলী মোল্লার বক্তব্য উদ্ধৃত করে উল্লেখ করা হয়েছে যে,

“ইতোমধ্যে রফিকুল ইসলাম মাদানি কারা কর্তৃপক্ষের উপস্থিতিতে হলফনামায় স্বাক্ষর করেছেন। তিনি মুচলেকা দিয়েছেন। ভবিষ্যতে সমাজ ও রাষ্ট্রবিরোধী বক্তব্য তিনি দেবেন না। এই মুচলেকা সম্বলিত আবেদন আমরা শিগগিরই হাইকোর্টে দাখিল করে সব মামলায় জামিন প্রার্থনা করব। আশা করি সব মামলায় জামিনে তিনি কারামুক্ত হবেন।” 

তাছাড়া, প্রতিবেদনটি বিশ্লেষণ করে ‘রফিকুল ইসলাম মাদানীর জামিন হয়েছে’ শীর্ষক কোনো সংবাদের প্রমাণ খুঁজে পাওয়া যায়নি। 

তবে, শিশুবক্তা খ্যাত মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানী মুচলেকা দিয়েছেন কিনা অথবা তিনি হলফনামায় স্বাক্ষর করেছেন কিনা সে বিষয়ে আলাদাভাবে যাচাই করে দেখা সম্ভব হয়নি। 

অর্থাৎ, কোনো প্রকার নির্ভযোগ্য সূত্র ছাড়াই রফিকুল ইসলাম মাদানীর জামিন হয়েছে শীর্ষক দাবিটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ঢালাওভাবে প্রচার করা হচ্ছে। 

শিশুবক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানীর সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে জানতে কি-ওয়ার্ড সার্চের মাধ্যমে দেশীয় মূলধারার সংবাদমাধ্যম ‘বাংলা ট্রিবিউন’ এর ওয়েবসাইটে গত ০১ মার্চ তারিখে “রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে আরও একজনের সাক্ষ্য” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot from ‘Bangla Tribune’ website

প্রতিবেদনে বলা হয়,

‘গাজীপুরের গাছা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় ইসলামি বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে বাদশা নামে আরও একজন সাক্ষ্য দিয়েছেন।  বুধবার (১ মার্চ) ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক এ এম জুলফিকার হায়াতের আদালতে সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য দিন ধার্য ছিল। এদিন আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়। এরপর সাক্ষ্য দেন বাদশা। তার সাক্ষ্য শেষে জেরা করেন আসামি পক্ষের আইনজীবী। জেরা শেষে আদালত পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য আগামী ১৭ মে দিন ধার্য করেছেন।’ 

‘বাংলা টিবিউন’ এর  এই প্রতিবেদনেও রফিকুল ইসলাম মাদানীর জামিন হয়েছে শীর্ষক কোনো সংবাদের উল্লেখ পাওয়া যায়নি। 

মূলত, শিশুবক্তা হিসেবে পরিচিত ইসলামিক বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানী ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় অভিযুক্ত হয়ে কারাগারে আছেন। সাম্প্রতিক সময়ে তার মামলার বিচারকার্যের বিষয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচারিত হয়। এসকল ঘটনার প্রেক্ষিতে কোনরূপ তথ্যসূত্র ছাড়াই ভিত্তিহীনভাবে রফিকুল ইসলাম মাদানীর জামিন হয়েছে শীর্ষক একটি দাবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে। 

উল্লেখ্য, রাষ্ট্রবিরোধী ও উসকানিমূলক কথাবার্তা এবং বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগে রফিকুল ইসলাম মাদানীকে ২০২১ সালের ৭ এপ্রিল আটক করা হয় এবং প্রায় ১০ মাস পর ২০২২ সালের জানুয়ারি মাসে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় ‘শিশু বক্তা’ হিসেবে পরিচিত রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক বিচারকাজ শুরু হয়। সর্বশেষ পাওয়া তথ্যানুযায়ী, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে বাদশা নামে আরও একজন সাক্ষ্য দিয়েছেন। 

প্রসঙ্গত, পূর্বেও রফিকুল ইসলাম মাদানীকে নিয়ে মিথ্যা তথ্য প্রচারের ঘটনায় একাধিক ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রিউমর স্ক্যানার। 

Screenshot from ‘Rumor Scanner’ website 

সুতরাং, শিশুবক্তা হিসেবে পরিচিত ইসলামিক বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানীর জামিন হওয়ার সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

RS Team
RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img