হিজাব পরে শিক্ষাঙ্গনে যাওয়ার পক্ষে কর্ণাটক হাইকোর্টের রায় দাবিতে প্রচারিত তথ্যটি মিথ্যা

সম্প্রতি, “আলহামদুলিল্লাহ। কর্নাটক হাইকোর্টের রায়ঃ হিজাব পরে শিক্ষাঙ্গনে যেতে পারবে মুসলিম মেয়েরা। সাহসী নারী মুসকানের জন্য শুভকামনা।” শীর্ষক একটি তথ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, মুসলিম মেয়েদের হিজাব পরে শিক্ষাঙ্গনে যাওয়ার বিষয়ে কর্ণাটক হাইকোর্টের রায়ের বিষয়টি সত্য নয় বরং এই বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো রায় ই ঘোষণা করা হয়নি।

কি-ওয়ার্ড সার্চ পদ্ধতির মাধ্যমে, ‘হিন্দুস্থান টাইমসের’ বাংলা সংস্করণে আজ ৯ ফেব্রুয়ারি ভারতীয় সময় ৬:৪২ মিনিটে “Karnataka Hijab Row: মিলল না অন্তর্বর্তীকালীন ছাড়, হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির কাছে গেল হিজাব মামলা” শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot from Hindustan Times Bangla website

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, ‘স্কুল-কলেজে হিজাব পরা নিয়ে কোনও অন্তর্বর্তীকালীন রায় দিল না কর্নাটক হাইকোর্ট। বরং হিজাবের উপর নিষেধাজ্ঞার সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে যে একগুচ্ছ মামলা দায়ের করা হয়েছে, তা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি রীতুরাজ আওয়াস্তির কাছে স্থানান্তর করেছেন বিচারপতি কৃষ্ণা এস দীক্ষিত। অর্থাৎ কোন রায় না দিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হিজাব পরা নিয়ে কর্ণাটক হাইকোর্টের বিচারপতি কৃষ্ণা এস দীক্ষিত একক বেঞ্চ বিতর্কিত মামলাটি বৃহত্তর বেঞ্চে প্রধান বিচারপতি রীতুরাজ আওয়াস্তির কাছে স্থানান্তর করেছেন।

আরো পড়ুনঃ হিজাববিহীন ছবিগুলো ‘আল্লাহু আকবর’ বলা তরুণী মুসকান খানের নয়

এছাড়াও, ভারতীয় বেশকিছু সংবাদমাধ্যমে একই তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়। পরবর্তীতে, ‘The Times of India’ ওয়েবসাইটে ভারতীয় সময় ৯:৫৭ মিনিটে ‘Karnataka Hijab Row Live Updates: Three-judge HC bench to hear petitions challenging govt rule on dress code on Thursday‘ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

কর্ণাটক
Screenshot from The Times of India website

মূলত, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হিজাব পরা নিয়ে আজ বুধবার দুপুরে কর্ণাটক হাইকোর্টের বিচারপতি কৃষ্ণা এস দীক্ষিত একক বেঞ্চে বিতর্কিত মামলাটি বৃহত্তর বেঞ্চে প্রধান বিচারপতি রীতুরাজ আওয়াস্তির কাছে স্থানান্তর করেন। পরবর্তীতে, রাত ৯টা নাগাদ কর্ণাটক হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি ঋতু রাজ অবস্থি, বিচারপতি কৃষ্ণ এস দীক্ষিত এবং বিচারপতি জেএম খাজির সমন্বয়ে গঠিত একটি বেঞ্চ জানায়, ড্রেস কোড সংক্রান্ত সরকারি নিয়মকে চ্যালেঞ্জ করে আবেদনের শুনানি আগামীকাল অর্থাৎ বৃহস্পতিবার হবে।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের কয়েকটি কলেজে হিজাব পরিধান করা তাদের ইউনিফর্ম নীতিবিরুদ্ধ বলে ক্লাসের ভেতর হিজাব পরা নিষিদ্ধ ঘোষণা করলে হিজাব নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়, যা পরবর্তীতে বৃহৎ আকার ধারণ করে। হিজাব নিষেধাজ্ঞার প্রতিবাদে এক মুসলিম ছাত্রী কর্ণাটক হাইকোর্টে মামলা করেন।

Screenshot from BBC News Bangla Website

সুতরাং, কর্ণাটক হাইকোর্টের রায় দাবিতে হিজাব পরে শিক্ষাঙ্গনে যেতে পারবে মুসলিম মেয়েরা শীর্ষক তথ্যটি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

[su_box title=”True or False” box_color=”#f30404″ radius=”0″]

  • Claim Review: কর্নাটক হাইকোর্টের রায়ঃ হিজাব পরে শিক্ষাঙ্গনে যেতে পারবে মুসলিম মেয়েরা
  • Claimed By: Facebook Posts
  • Fact Check: False

[/su_box]

তথ্যসূত্র

  1. Hindustan Times Bangla: https://bangla.hindustantimes.com/nation-and-world/karnataka-hijab-row-no-interim-relief-single-judge-refers-case-to-karnataka-high-court-chief-justice-31644402569150.html
  2. TImes of India: https://timesofindia.indiatimes.com/city/bengaluru/karnataka-news-live-updates-covid-omicron-coronavirus-hijab-row-basavaraj-bommai-dk-shivakumar-february-9-2022/liveblog/89434714.cms
  3. BBC Newshttps://www.bbc.com/bengali/news-60303285
RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img