ফিলিস্তিনকে রক্ষা করতে পাঁচ হাজার সৈন্য পাঠাননি কিম জং উন

সম্প্রতি শর্ট ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম টিকটকে ফিলিস্তিনকে রক্ষা করতে ৫,০০০ সেনা সদস্য পাঠালেন উত্তর কোরিয়ার সুপ্রিম লিডার কিম জং উন শীর্ষক দাবিতে একটি ভিডিও প্রচার করা হচ্ছে।

সৈন্য পাঠাননি কিম জং উন

উক্ত দাবিতে টিকটকে প্রচারিত ভিডিওটি দেখুন এখানে (আর্কাইভ)। 

এই প্রতিবেদনটি প্রকাশ হওয়া অবধি উক্ত ভিডিওটি প্রায় ৬ লক্ষ বার দেখা হয়েছে এবং প্রায় ৫৫ হাজার পৃথক অ্যাকাউন্ট থেকে ভিডিওটিতে প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, ফিলিস্তিনকে রক্ষা করতে কিম জং উন পাঁচ হাজার সেনা সদস্য পাঠাননি বরং কোনোরকম তথ্যসূত্র ছাড়াই উক্ত দাবিটি প্রচার করা হচ্ছে।

অনুসন্ধানের প্রাথমিক পর্যায়ে প্রাসঙ্গিক কি-ওয়ার্ড সার্চ করে নির্ভরযোগ্য সূত্রে এ বিষয়ে কোনো সংবাদ বা ঘোষণা খুঁজে পায়নি রিউমর স্ক্যানার টিম। তাছাড়া, সাম্প্রতিক সময়েও ইসরায়েল-ফিলিস্তিন ইস্যুতে উত্তর কোরিয়ার সরাসরি কোনো গুরুত্বপূর্ণ বিবৃতি বা সংবাদ খুঁজে পাওয়া যায় নি। 

তবে, চলতি বছরের শুরুর দিকে যুক্তরাষ্ট্রের সরকারের মালিকানাধীন সংবাদ নেটওয়ার্ক ও আন্তর্জাতিক রেডিও ব্রডকাস্টার প্রতিষ্ঠান ভয়েস অফ আমেরিকায় “SKorea’s Spy Agency: Hamas Used North Korean Weapons Against Israel” শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। 

প্রতিবেদনটিতে দক্ষিণ কোরিয়ার স্পাই এজেন্সির বরাতে জানানো হয়, উত্তর কোরিয়ায় তৈরি হওয়া অস্ত্র ব্যবহার করে ফিলিস্তিনের সংগ্রামী সংগঠন হামাস ইসরায়েলে হামলা করেছে। তবে, জাতিসংঘে নিয়োজিত উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত কিম সং উক্ত দাবিটি অস্বীকার করেছেন এবং এটিকে মিথ্যা গুজব দাবি করে যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যমকে দাবিটি ছড়ানোর জন্য অভিযুক্ত করেন।

তার আগে গত বছরের ১০ ডিসেম্বর তারিখে আন্তর্জাতিক শীর্ষস্থানীয় বার্তা সংস্থা রয়টার্স “North Korea condemns US veto of Gaza ceasefire call at UN” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ করে। সংবাদটিতে জানা যায়, ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিনের সংগঠন হামাসের মধ্যে যুদ্ধবিরতির জন্য জাতিসংঘের একটি রেজ্যুলেশনে ভেটো দেওয়ার কারণে উত্তর কোরিয়ার একজন সিনিয়র কর্মকর্তা যুক্তরাষ্ট্রের সমালোচনা করে দাবি করেন, যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধবিরতিতে ভেটো দিয়ে দ্বিমুখী নীতি বা ডাবল স্ট্যান্ডার্ড প্রদর্শন করেছে৷ 

তাছাড়া, উত্তর কোরিয়াকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করা সংবাদমাধ্যম Daily NK এবং NK News এও উক্ত বিষয়ে অনুসন্ধান করে কোনো সংবাদ খুঁজে পাওয়া যায়নি। 

উল্লেখ্য যে, উত্তর কোরিয়া ইসরায়েলকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করে না। ইসরায়েল এবং উত্তর কোরিয়ার মধ্যে কোনো স্বাভাবিক কূটনৈতিক সম্পর্কও নেই। উত্তর কোরিয়া সবসময়ই ফিলিস্তিনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিদলীয় নন প্রফিট পলিসি রিসার্চ সংস্থা CSIS এর তথ্যানুসারে, ফিলিস্তিনের সমর্থনে উত্তর কোরিয়ার ইতিহাস অনেক পুরোনো। উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ২০০৮, ২০১৫ ও ২০২১ সালে ইসরায়েলের সেনাবাহিনীর আক্রমণকে ‘মানবতার বিপক্ষে অপরাধ’ বলেও অভিহিত করেছে। তবে, ফিলিস্তিনকে রক্ষা করতে ৫,০০০ সৈন্যের কোনো সেনাবাহিনী কিম জং উনের তরফ থেকে পাঠানোর স্বপক্ষে কোনো বিশ্বাসযোগ্য তথ্যপ্রমাণ নেই।

তাছাড়া, আলোচিত দাবিতে প্রচারিত ভিডিওটিতে কিম জং উনের ব্যবহৃত ছবিটিও পুরোনো। ছবিটির মূল উৎস খুঁজে পাওয়া না গেলেও, ছবিটি অন্তত ৯ বছর ধরে অনলাইনে বিদ্যমান আছে।

Comparison : Rumor Scanner

মূলত, ফিলিস্তিনকে উত্তর কোরিয়া বেশ আগে থেকেই সমর্থন জানিয়ে আসছে। ইসরায়েলকেও রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয় না উত্তর কোরিয়া। তবে, ফিলিস্তিনকে সাহায্য করতে ৫,০০০ সৈন্যের কোনো সেনাবাহিনী পাঠাননি বা পাঠানোর কোনো নির্দেশ দেননি উত্তর কোরিয়ার সুপ্রিম লিডার কিম জং উন। 

সুতরাং, ফিলিস্তিনকে সাহায্য করতে সেনা সদস্য  পাঠালেন উত্তর কোরিয়ার সুপ্রিম লিডার কিম জং উন শীর্ষক টিকটকে প্রচারিত দাবিটি মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img