চটকদার থাম্বনেইল ব্যবহার করে সংসদ সদস্য মমতাজের গ্রেফতারের ভুয়া সংবাদ প্রচার 

সম্প্রতি, “এইমাত্র বিমানবন্দর থেকে ভারতীয় পুলিশের হাতে গ্রেফতার মমতাজ।আর রক্ষা হলো না এমপি মমতাজের” শীর্ষক শিরোনাম এবং থাম্বনেইল ব্যবহার করে একটি ভিডিও ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম  ইউটিউবে প্রচারিত হয়েছে।

মমতাজ

ইউটিউবে প্রচারিত ভিডিওটি দেখুন ভিডিও (আর্কাইভ)। 

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, সংগীতশিল্পী ও সংসদ সদস্য মমতাজ বেগম গ্রেফতার হননি বরং অধিক ভিউ পাবার আশায় চটকদার থাম্বনেইল ও শিরোনাম ব্যবহার করে উক্ত ভিডিওটি প্রচার করা হয়েছে। 

গত ১০ সেপ্টেম্বর ‘B tv news 24‘ নামক একটি ইউটিউব চ্যানেলে ‘এইমাত্র বিমানবন্দর থেকে ভারতীয় পুলিশের হাতে গ্রেফতার মমতাজ। আর রক্ষা হলো না এমপি মমতাজের” শীর্ষক শিরোনাম ও থাম্বনেইল ব্যবহার করে আলোচিত ভিডিওটি প্রচার করা হয়।

Screenshot: YouTube 

ভিডিওটি পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যায়, এটি কয়েকটি ভিডিও প্রযুক্তির সাহায্যে যুক্ত করে তৈরি করা হয়েছে। ৮ মিনিট ২ সেকেন্ডের এই ভিডিওর শুরুতে দুইটি ভিডিওর খণ্ডাংশ দেখানো হয়। পরবর্তীতে ভিডিওটিতে চ্যানেলটির উপস্থাপক আলোচিত দাবিতে একটি ভিডিও দেখান। 

ভিডিওটি দেখানোর আগে আলোচিত ভিডিওটিতে চ্যানেলটির উপস্থাপক বলেন, ‘এবার কিন্তু আর রক্ষা পেলো না এমপি মমতাজ। একের পর এক তাকে নিয়ে নিউজ আপনারা শুনতে পেয়েছেন কিন্তু সর্বশেষ ভারতের আদালতে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানায় দায়ের করেছে। যেকোনো সময় মমতাজ গ্রেফতার হতে পারে। কারন আপনারা জানেন ভারতের আদালত কিন্তু বাংলাদেশের আদালতের মতো না। তারা তাদের মতোই বিচার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে সেক্ষেত্রে কি হতে যাচ্ছে মমতাজের আমরা চাঞ্চল্যকর ও গুরুত্বপূর্ণ নিউজ আপনাদেরকে দিব।’ 

পরবর্তীতে দেখানো ভিডিওতে বলা হয়, ‘দর্শক সময়টা অনেকটা খারাপ যাচ্ছে আমাদের আওয়ামী লীগের একজন প্রথিতযশা সংসদ সদস্য শিল্পী মমতাজ বেগমের। সাংসারিক কলহ চলছে ইভেন আগামী নির্বাচনে তার আসন থেকে জাতীয় পার্টির একজন শক্ত প্রার্থী আছে। আওয়ামী লীগেরও একাধিক প্রার্থী সেই আসন থেকে আসনটা বাগানোর চেষ্টা করছে। স্থানীয় রাজনীতিতে নেতাকর্মীদের মধ্যে বিভেদ আছে, কোন্দল আছে। স্বামীর সাথেও আছে নানান ধরনের ঝামেলা। সকল কিছু মিলিয়ে অনেকটা চাপে আছে যখন শিল্পী মমতাজ তখনই আরও এক দুঃসংবাদ যেটি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীরও কিছু করার নেই।কারন বাংলাদেশ থেকে বের হয়ে তিনি যদি ভারত যান তাহলে সাথে সাথেই তাকে গ্রেফতার করা হবে….।’

পুরো ভিডিওর সূত্র ধরে প্রাসঙ্গিক কি-ওয়ার্ড অনুসন্ধানের মাধ্যমে গত ০৭ সেপ্টেম্বর জাতীয় দৈনিক কালের কণ্ঠ এর অনলাইন সংস্করণে ‘মমতাজের আবেদন খারিজ করে গ্রেফতার পরোয়ানা ভারতের আদালতের‘ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়। 

প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ৯ আগস্ট ভারতের মুর্শিদাবাদের মুখ্য বিচার৷ বিভাগীয় আদালতে হাজির হওয়ার কথা ছিল সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমের। মমতাজ বাংলাদেশ হাইকমিশনের মাধ্যমে একটি আবেদনপত্র আদালতে দাখিল করে জানান সেই দিন কানাডায় একটি অনুষ্ঠানে থাকার ফলে তাঁর পক্ষে আদালতে হাজিরা দেওয়া সম্ভব হয়নি। মুর্শিদাবাদের মুখ্য বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেট ওই আবেদন খারিজ করে দিয়ে মমতাজের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

উক্ত প্রতিবেদনে থাকা তথ্যগুলো প্রচারিত ভিডিওটির ৫ মিনিট ১৫ সেকেন্ড থেকে পাঠ করা হয়। কিন্তু প্রচারিত ভিডিওটিতে কিংবা উক্ত প্রতিবেদনের কোথাও সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমের গ্রেফতারের কথা উল্লেখ ছিল না।

এছাড়া প্রচারিত ভিডিওতে মমতাজকে গ্রেফতারের কথা বলা হলেও সম্প্রতি তাকে জামিন দেওয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত কিছু প্রতিবেদন দেখুন এখানে, এখানে

অর্থাৎ প্রচারিত ভিডিওতে থাকা তথ্যের সাথে ভিডিওটির থাম্বনেইল এবং শিরোনামে থাকা তথ্যের কোনো প্রকার মিল খুঁজে পাওয়া যায়নি। 

মূলত, সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমের বিরুদ্ধে চুক্তিভঙ্গ এবং প্রতারণার অভিযোগে জনৈক শক্তিশংকর বাগচী ভারতের আদালতে মামলা করেন। গত ৯ আগস্ট মামলার শুনানিতে উপস্থিত না হওয়াতে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে বহরমপুর আদালত। উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে ‘এইমাত্র বিমানবন্দর থেকে ভারতীয় পুলিশের হাতে গ্রেফতার মমতাজ।আর রক্ষা হলো না এমপি মমতাজের’ শীর্ষক শিরোনাম এবং থাম্বনেইল ব্যবহার করে একটি ভিডিও প্রচার করা হয়। তবে অনুসন্ধানে জানা যায়, অধিকতর ভিউ পাবার আশায় চটকদার থাম্বনেইল ও শিরোনাম ব্যবহার করে আলোচিত ভিডিওটি প্রচার করা হয়। প্রকৃতপক্ষে, মমতাজ গ্রেফতার হননি এবং সম্প্রতি তিনি জামিন পেয়েছেন। 

সুতরাং, ভারতীয় পুলিশের হাতে সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমের গ্রেফতারের দাবিতে প্রচারিত ভিডিওটি সম্পূর্ণ মিথ্যা। 

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img