বৃহস্পতিবার, জুলাই 25, 2024
spot_img

“আর কোনোদিন কুমিল্লার হয়ে বিপিএল খেলবো না” শীর্ষক মন্তব্য করেননি ইমরুল কায়েস

গত পহেলা মার্চ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ (বিপিএল) এর দশম আসরে ফাইনালে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে ৬ উইকেটে পরাজিত করে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হয় ফরচুন বরিশাল। উক্ত ম্যাচে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের একাদশে জায়গা পাননি দলটির সাবেক অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। এরই প্রেক্ষিতে ইউটিউব এবং ফেসবুকে “আর কোনোদিন কুমিল্লার হয়ে বিপিএল খেলবো নাঃ সংবাদ সম্মেলনে কেঁদে কেঁদে বললেন ইমরুল” শীর্ষক শিরোনাম ও থাম্বনেইল ব্যবহার করে একটি ভিডিও প্রচার করা হয়েছে।

উক্ত দাবিতে ইউটিউবে প্রচারিত ভিডিও দেখুন এখানে (আর্কাইভ) এবং এখানে (আর্কাইভ)।

এই প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়া অবধি উক্ত দাবিতে ইউটিউবে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিও প্রায় ৫৪ হাজার বার দেখা হয়েছে। ভিডিওটিতে প্রায় ১ হাজারের বেশি অ্যাকাউন্ট থেকে প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে।

উক্ত ইউটিউব ভিডিওটি’র লিংক শেয়ার করে ফেসবুকে প্রচারিত পোস্ট দেখুন এখানে (আর্কাইভ)।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, ইমরুল কায়েস ভবিষ্যতে কুমিল্লার হয়ে বিপিএল খেলবেন না শীর্ষক কোনো মন্তব্য করেননি বরং কোনো নির্ভরযোগ্য তথ্যপ্রমাণ ছাড়াই ইমরুল কায়েসের ভিন্ন একটি মন্তব্যের ভিডিও ক্লিপ ও ছবির সাথে ডিজিটাল প্রযুক্তির সহায়তায় সম্পাদনার মাধ্যমে আলোচিত দাবি সম্বলিত শিরোনাম ও থাম্বনেইল যুক্ত করে উক্ত ভিডিওটি তৈরি করা হয়েছে।

অনুসন্ধানের শুরুতে আলোচিত ভিডিওটি পর্যবেক্ষণ করে রিউমর স্ক্যানার টিম। উক্ত ভিডিওটিতে ইমরুল কায়েসকে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের নিয়ে কোনো নেতিবাচক কথা বলতে দেখা যায়নি।

ভিডিওটির সংবাদপাঠ অংশে বলা হয়, “আর কোনদিন কুমিল্লার হয়ে বিপিএল খেলবো না। সংবাদ সম্মেলনে কেঁদে কেঁদে একি বললেন ইমরুল কায়েস। আমি কুমিল্লাকে দুইবার চ্যাম্পিয়ন করেছি। এবার তারা আমাকে দলে নিলেও আমার সাথে প্রতারণা করে। প্রথমে আমাকে অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। তারপর তারা আমাকে একাদশ থেকেও বাদ দেয়। অথচ আমি যে কয়টি ম্যাচ খেলেছি একটাও খারাপ খেলিনি। আমরা ক্রিকেটার, খেলাটা আমাদের আমাদের নেশা এবং পেশা। কিন্তু এভাবে যদি দলে নিয়ে বসিয়ে রাখা হয় তাহলে একজন খেলোয়াড় হিসেবেতো খারাপ লাগবেই। যদি খারাপ পারফরমেন্সের কারণে বাদ পড়তাম সেটা ভিন্ন কথা ছিল। তবে আমি তো নিয়মিত ভালো খেলছিলাম। সত্যি বলতে এমন ফ্রেঞ্চাইজির অধীনে আমি আর খেলতেই চাই না। আমি কুমিল্লাকে দুইবার চ্যাম্পিয়ন করেছি অথচ কুমিল্লা এবার আমাকে চরম অপমান করেছ।”

বিষয়টি যাচাইয়ে খেলাধুলা বিষয়ক বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল T Sports এর ইউটিউব চ্যানেলে গত ০২ মার্চ ‘ইমরুলের আক্ষেপ যে কারণে, আলিস তাকিয়ে সামনের দিকে’ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি ভিডিও খুঁজে পাওয়া যায়। উক্ত ভিডিওটিতে ইমরুল কায়েসকে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের ফাইনাল ম্যাচে পরাজয়ের বিষয়ে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে কথা বলতে দেখা যায়। তবে সেখানে তিনি দলটি’র হয়ে ভবিষ্যতে না খেলা বা অন্যকোনো নেতিবাচক মন্তব্য করেননি। তার দলে না থাকার প্রসঙ্গেও তিনি সেখানে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।

এই ভিডিওটি’র সাথে আলোচিত ভিডিওটি’র শুরুতে দেখানো ইমরুল কায়েসের ভিডিও ক্লিপের মিল পাওয়া যায়।

Video Comparison by Rumor Scanner

পাশাপাশি, গণমাধ্যম, ইমরুল কায়েসের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজ, কিংবা সংশ্লিষ্ট অন্য কোনো নির্ভরযোগ্য সূত্রে ইমরুল কায়েস ভবিষ্যতে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে বিপিএলে খেলবেন শীর্ষক দাবির সত্যতা পাওয়া যায়নি।

মূলত, গত পহেলা মার্চ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ (বিপিএল) এর দশম আসরের ফাইনালে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে ৬ উইকেটে পরাজিত করে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হয় ফরচুন বরিশাল। উক্ত ম্যাচে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের একাদশে জায়গা পাননি দলটি’র সাবেক অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। এরই প্রেক্ষিতে ইন্টারনেটে “আর কোনোদিন কুমিল্লার হয়ে বিপিএল খেলবো নাঃ সংবাদ সম্মেলনে কেঁদে কেঁদে বললেন ইমরুল” শীর্ষক শিরোনাম ও থাম্বনেইল ব্যবহার করে একটি ভিডিও প্রচার করা হয়েছে। তবে রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, আলোচিত দাবিটি সঠিক নয়। প্রকৃতপক্ষে ইমরুল কায়েস এমন কোনো মন্তব্য করেননি। কোনো নির্ভরযোগ্য তথ্যপ্রমাণ ছাড়াই ইমরুল কায়েসের ভিন্ন একটি মন্তব্যের ভিডিও ক্লিপ ও ছবির সাথে ডিজিটাল প্রযুক্তির সহায়তায় সম্পাদনার মাধ্যমে আলোচিত দাবি সম্বলিত শিরোনাম ও থাম্বনেইল যুক্ত করে উক্ত ভিডিওটি প্রচার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বিপিএলের সদ্য সমাপ্ত আসরকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন ভুয়া তথ্য প্রচারের প্রেক্ষিতে একাধিক ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রিউমর স্ক্যানার।

সুতরাং, ইমরুল কায়েস “আর কোনোদিন কুমিল্লার হয়ে বিপিএল খেলবো না” শীর্ষক মন্তব্য করেছেন দাবিতে ইন্টারনেটে প্রচারিত তথ্যটি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তথ্যসূত্র

RS Team
Rumor Scanner Fact-Check Team
- Advertisment -spot_img
spot_img
spot_img